মাদারীপুরে জুট মিলে আগুন, কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা

ঢাকা , ১২ ফেব্রুয়ারী , (ডেইলি টাইমস ২৪):

মাদারীপুরের শহরতলী সৈদারবালি এলাকায় কাজী হায়দার জুট মিলে এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট কাজ করছে। আগুনের ভয়াবহতার কারণে রাজৈরের টেকেরহাট ও বরিশালের গৌরনদী ফায়ার সার্ভিসকেও তলব করা হয়েছে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত  (সন্ধ্যা ৭টা) আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। এদিকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ সম্ভব না হলেও কয়েক কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা কর্তৃপক্ষের।

মিল কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আজ সোমবার বিকেল ৫টার দিকে কাজী হায়দার জুট মিলের মেশিন রুমের দক্ষিণ পাশ থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। মুহুর্তের মধ্যে আগুন পার্শ্ববর্তী বিল্ডিংসহ পাটের গুদামে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় শ্রমিকরা আর্তচিৎকার করতে করতে দৌড়ে মিল থেকে বেরিয়ে আসে। শ্রমিকদের ছুটাছুটির কারণে অফিস রুমের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা ধোয়ার কুণ্ডলি দেখে মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিসকে ফোন করে। মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। আগুনের ভয়াবহতার কারণে রাজৈরের টেকেরহাট ও বরিশালের গৌরনদী ফায়ার সার্ভিসকে তলব করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা দিকে টেকেরহাটের ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে।

সূত্র আরো জানায়, এরইমধ্যে মিলের অভ্যন্তরে দুইটি ইউনিটের মেশিনপত্র এবং তিনটি পাট গুদামের মধ্যে দুইটি গুদামসহ পাট পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। মিলের তিনটি পাটের গুদামে প্রায় দেড় লাখ মন পাট মজুত ছিল বলে জানান মিল কর্তৃপক্ষ।

এ প্রসঙ্গে ওই মিলের পরিচালক মুক্তার কাজী বলেন, “আমরা মিলের অফিসের মধ্যে বসেছিলাম। হঠাৎ শ্রমিকরা ফেক্টরি থেকে দৌড়ে বের হয়ে আসছে দেখে আমরা বাইরে যাই। শ্রমিকদের আগুন আগুন চিৎকার শুনি এবং ধোয়ার কুণ্ডুলি দেখতে পাই। সঙ্গে সঙ্গে মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিসকে ফোন করি। ফায়ার সার্ভিস আসতে আসতে দুইটি পাটের গুদামসহ ফেক্টরির দুইটি ইউনিটে আগুন ভয়াবহ রূপ নেয়। কি পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা এখনই নিরূপণ করা সম্ভব নয়।”

এ ব্যাপারে মাদারীপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ম্যানেজার নিত্যগোপাল সরকার বলেন, ‘আগুনের ভয়াবহতা এতই বেশী যে আমরা এক দিক দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি অন্য দিক দিয়ে জ্বলে ওঠে। আমরা অন্যান্য ফায়ার স্টেশনকে সংবাদ দিয়েছি। এরই মধ্যে টেকেরহাটের দুইটি ইউনিট আমাদের সাথে যোগ দিয়েছে। কিছুক্ষণের মধ্যে গৌরনদীর ইউনিট চলে আসবে। আমরা সাধ্যমত চেষ্টা করে যাচ্ছি।’