আজি এ বসন্তে

ঢাকা , ১৩ ফেব্রুয়ারী , (ডেইলি টাইমস ২৪):

সেজেগুজে হইহই করতে করতে বেরিয়ে পড়ার জো নেই শবনম ফারিয়ার। বিশেষ দিনেও রয়েছে শুটিং। তাই বলে কি বসন্তবরণ হবে না? বসন্ত দিনে একরঙা সুতি শাড়িতে স্বচ্ছন্দ এই অভিনেত্রীর এবারও ব্যতিক্রম হচ্ছে না। তিনি বললেন, ‘লালচে হলুদাভ শাড়ি পরব, সঙ্গে থাকবে ব্লকপ্রিন্ট ও এমব্রয়ডারির কয়েক রঙা ব্লাউজ। তিন–চারটা মালা একসঙ্গে করে পরব। সঙ্গে অবশ্যই ফুল।’

ব্যস্ততার কারণে মাসুমা রহমান নাবিলার এখনো ঠিক করা হয়ে ওঠেনি কোন শাড়ি বা কোন গয়না পরা হবে। পয়লা বসন্তে নিজেকে স্বাভাবিক–সহজাত সাজে রাখতে চান আয়নাবাজির অভিনেত্রী। জানালেন, হলুদ শাড়ি তো থাকবেই। বেলি ফুল খুব পছন্দ করি। খোঁপা করলে চুলে বা হাতে বেলি ফুল জড়াবই। ঝুমকো কানের দুল, টিপ, চুড়ি, টেনে কাজল আর লিপস্টিকে একটু হালকা করেই সাজবেন তিনি।

নাবিলার মতো না হলেও এর মধ্যে অনেকেই ঠিক করে ফেলেছেন আজ কোন শাড়িটা পরে বেরোবেন, সাজবেনই বা কী করে। তারপরও জেনে নিন পারসোনার রূপবিশেষজ্ঞ নুজহাত খানের দেওয়া সাজের পরামর্শ।

গয়নার মধ্যে তাজা ফুল, সাজে আনবে ভিন্ন মাত্রা। শাড়ি: কে ক্র্যাফট, গয়না: সিক্স ইয়ার্ডস স্টোরি

গয়নার মধ্যে তাজা ফুল, সাজে আনবে ভিন্ন মাত্রা। শাড়ি: কে ক্র্যাফট, গয়না: সিক্স ইয়ার্ডস স্টোরিসারা দিনের জন্য যেহেতু বেরোবেন, তাই হালকা মেকআপই ভালো বলে মনে করেন নুজহাত। মেকআপে তৈলাক্ত ভাব রাখা যাবে না। একটু পাউডারি মেকআপ করাই ভালো। শিমারও ব্যবহার করতে পারেন, তবে কম। ব্লাশন দিতে পারেন পিচ রঙের। আইশ্যাডো না দিয়ে বরং কাজল বা আইলাইনারে ঝুঁকুন। গোলাপি, কমলা বা লাল রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। কপালে দিন হাতে আঁকা বা সাধারণ টিপ।

 সারা দিনের জন্য বেরোচ্ছেন, তাই সঙ্গে পাউডার, লিপস্টিক আর কাজল রাখুন মনে করে। এমন দিনে সারা দিন ঠিক থাকবে, সেভাবে চুল বাঁধাই ভালো। চুলে বেণি করতে পারেন, বাস্কেট ব্রিচ করতে পারেন, পেছনের চুল খোলা রেখে সামনে ফ্রেঞ্চ সেট করার পরামর্শও দেন তিনি।

রেড বিউটি স্যালনের রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন বলেন, ‘বসন্তের বাতাস মন ফুরফুরে করে দেয়। তাই সাজেও প্রফুল্ল ভাব থাকা দরকার। বসন্তে আমরা ফুলের ব্যবহার করি সবচেয়ে বেশি। ফুলের রঙগুলো উঠে আসতে পারে সাজে। এদিন নিজেদের রঙিন করে সাজাতে পারি। সাজে সতেজ ভাবের সঙ্গে থাকল কালার টোন।’ চোখে যেকোনো ধরনের রং ব্যবহার করা যেতে পারে, সেটা হতে পারে বেগুনি, সবুজ বা হলুদ। ঠোঁটের লিপস্টিক না হয় কমলা, লাল বা হালকা বেগুনি হোক। ব্লাশনে কমলা ও গোলাপি রং লাগান। হাইলাইটারও ব্যবহার করতে পারেন—এমন পরামর্শ দিলেন আফরোজা।

উজ্জ্বল বসন্তে উচ্ছল সাজ। পোশাক: বিবিয়ানা

উজ্জ্বল বসন্তে উচ্ছল সাজ। পোশাক: বিবিয়ানাচোখ জোড়া আরেকটু ফুটিয়ে তুলতে লাইনার, কাজল না পরে ভালো করে মাশকারা লাগানো যেতে পারে। আফরোজা পারভীন বলেন, শাড়ির সঙ্গে টিপ পরতে পারেন। অন্য কিছু না পরাই ভালো। বসন্তে খোলা চুলও ভালো লাগে। খোলা চুল কোঁকড়া করতে পারেন, ব্লো ড্রাই করে নিতে পারেন। কোঁকড়া করে লুজবান করতে পারেন। তারপর সেখানে ছোট ছোট ফুল লাগানো যায়।

সিক্স ইয়ার্ড স্টোরির ডিজাইনার লরা খান শোনালেন ভিন্ন রকম গয়নার গল্প। বসন্তের ভিড়ে সবার চুলে, হাতে ও গলায় থাকবে ফুলের মালা। এর মধ্যে নিজেকে একটু আলাদাভাবেও সাজানো যায়। লরা খান বলেন, ফুল আর গয়না মিশিয়ে পরাটাও এখন একটা ধারা হয়ে উঠছে। ভারী গয়নায় খুব কম ফুল বসিয়ে নিজের জন্য বানিয়ে নিতে পারেন আলাদা গয়না। গলার মালায় বেশি কিছু না লাগিয়ে শুধু কানের দুলেও লাগাতে পারেন ফুল। হাতের বালার মতো করে চুড়ি বানিয়েও পরা যায়। তিন লহরের মালা পরলে একটা লহরে থাকতে পারে শুধু ফুল। চাইলে এসব গয়না নিজেরাই বানিয়ে নিতে পারেন। সুতা বা ক্লিপ দিয়ে গয়নার সঙ্গে আটকে নিন ফুল। পুরোনো ধাঁচের সোনালি গয়নার সঙ্গে সাদা ফুল ব্যবহার করা যায়। অন্যগুলোর সঙ্গে লাল ফুল রাখুন।

চুলে ফুল, ছড়িয়ে দিচ্ছে বসন্তের বার্তা। পোশাক: কে ক্র্যাফট

চুলে ফুল, ছড়িয়ে দিচ্ছে বসন্তের বার্তা। পোশাক: কে ক্র্যাফটআজ না হয় কর্মক্ষেত্রের সাজেও থাকুক বসন্তের ছোঁয়া। নিজের পছন্দমতো বেছে নিতে পারেন ভারী বা হালকা গয়না। দুই ধরনের গয়নাই পাবেন বাজারে। কমলা শাড়ির সঙ্গে পুরোনো ধাঁচের সোনা রঙা গয়নাগুলো খুবই যায়।

ডিজাইনার মাহিন খান ফুল ফোটার দিনে দিতে চান বিশেষ রং। তাই তিনি বললেন, এদিন গোলাপি, বাঙ্গি, কমলা বা ফুলের মিষ্টি কোনো রঙের সঙ্গে মিলিয়ে পরতে পারেন কামিজ। সবুজ, নীল বাদ দিয়ে ল্যাভেন্ডার, কচু ফুলের রং, শাপলার গোলাপি, গাঁদা ফুলের রঙের পোশাক বেছে নিতে পারেন নিজের জন্য। আবার অনেকে এই দিনে ফিউশন কাপড় পরবে। কামিজের সঙ্গে হয়তো প্যান্ট। খাটো কামিজের সঙ্গে সালোয়ার। তবে দেশি ভাবটা রাখা উচিত। ছোট পাড়ের হোক বা একরঙা শাড়ি, কামিজের সঙ্গে পাতিওয়ালা সালোয়ার হোক বা থিম প্যান্ট, মিলিয়ে গয়না আর ফুল পরলেই মনে হবে বসন্ত এসে গেছে।