ধর্ম ও জীবন

নওমুসলিমদের যেভাবে সাহায্য করা উচিত

ঢাকা , ০৪ মার্চ , (ডেইলি টাইমস ২৪):

আমাদের আশেপাশের হোক কিংবা না হোক। কেউ একজন মুসলিম হয়েছেন আমাদের উচিত তাকে সাহয্য করা। তবে এই সাহায্য করার ক্ষেত্রে সবাইকে বিভিন্ন দিক বিবেচনা করা উচিত। হয়ত সবাই তাকে একটি বিষয়ে সাহয্য করল তাহলে হয়ত প্রকৃতপক্ষে সাহায্য করা হবে না। কেননা মূলত প্রত্যেকটা মানুষই হচ্ছে আলাদা আলাদা আর সবারই উচিত যে নতুন মুসলিম হয়েছেন তাকে ভিন্ন ভিন্নভাবে সাহায্য করা। তাহলে হয়ত তার নানা ধরনের চাহিদা পূর্ণ হবে। পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, কীভাবে তাদেরকে ইসলামের পথে আহ্বান করতে হবে। আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, হে নবী! প্রজ্ঞা ও বুদ্ধিমত্তা এবং সদুপদেশ সহকারে তোমার রবের পথের দিকে দাওয়াত দাও এবং লোকদের সাথে বিতর্ক করো সর্বোত্তম পদ্ধতিতে। তোমার রবই বেশি ভালো জানেন কে তার পথচ্যুত হয়ে আছে এবং সে আছে সঠিক পথে। (সূরা- নাহর, আয়াত- ১২৫)

১. অনেক প্রতিষ্ঠান অনলাইন এবং অফলাইনে বিনামূল্যে কুরআন এবং বিনামূল্যে নতুন মুসলিমদের গাইড বই প্রদান করে। একজন নওমুসলিমকে এই সকল বিষয় চিনিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন।

২. একজন নওমুসলিকে শিক্ষা দিন যে, কীভাবে নামাজ পড়তে হয় এবং তাকে নামাজের অনুশীলন করতেও সাহায্য করুন।

৩. আপনি একজন নব মুসলিমের বন্ধু হতে চেষ্টা করুন। যাতে করে তার প্রত্যেক ছোট ছোট একজন ভালো সঙ্গী হোন এবং যখনই আপনাকে প্রয়োজন হয় তখন উপলব্ধি করার চেষ্টা করুন।

৪. অনেক বোন আছেন যারা মুসলিম হওয়ার পরে হিজাব পরিধান করতে চান আপনি তাদেরকে সাহায্য করুন। তার সাথে ইসলামী পোশাক ক্রয় করার জন্য মার্কেটে যান। পারলে নিজের পোশাক তাদের মাঝে ভাগাভাগি করুন। পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, তোমরা নেকি অর্জন করতে পারো না যতক্ষণ না তোমাদের প্রিয় বস্তুগুলো (আল্লাহর পথে) ব্যয় করো। আর তোমরা যা ব্যয় করবে আল্লাহ তা থেকে বেখবর থাকবেন না। (সূরা- ইমরান, আয়াত-৯২)

৫. তাদেরকে সঠিক মুসলিম হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করুন । পবিত্র কুরআনে মহান আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, যারা বড় বড় গোনাহ এবং প্রকাশ্য ও সর্বজনবিদিত অশ্লীল কাজ থেকে বিরত থাকে -তবে ছোটখাট ক্রুটি -বিচ্যুতি হওয়া ভিন্ন কথা -নিশ্চয়ই তোমার রবের ক্ষমাশীলতা অনেক ব্যাপক। যখন তিনি মাটি থেকে তোমাদেরকে সৃষ্টি করেছেন। এবং যখন তোমরা মাতৃগর্ভে ভ্রুণ আকারে ছিলে তখন থেকে তিনি তোমাদের জানেন। অতএব তোমরা নিজেদের পবিত্রতার দাবি করো না। সত্যিকার মুত্তাকীকে তা তিনিই ভালো জানেন। (সূরা- নাজম, আয়াত ৩২)

আল্লাহপাক আরও বলেছেন, মুমিন পুরুষ ও মুমিন নারী, এরা সবাই পরস্পরের বন্ধু ও সহযোগী। এরা ভালো কাজের হুকুম দেয় এবং খারাপ কাজ থেকে বিরত রাখে, নামাজ কায়েম করে, যাকাত দেয় এবং আল্লাহ ও তার রসূলের আনুগত্য করে। এরা এমন লোক যাদের ওপর আল্লাহর রহমত নাযিল হবেই। অবশ্যই আল্লাহ সবার ওপর পরাক্রমশালি এবং জ্ঞানী ও বিজ্ঞ। (সূরা- তাওবা, আয়াত ৭১)

আরো সংবাদ...