নামাজে মনোযোগ বাড়াবেন যেভাবে

0
12

ঢাকা , ০৫ মার্চ , (ডেইলি টাইমস ২৪):

আল্লাহ তাআলার সঙ্গে বান্দার সেতুবন্দের অন্যতম মাধ্যম হলো নামাজ। নামাজের মাধ্যমেই মানুষ আল্লাহর সঙ্গে কথা বলে। আল্লাহ তাআলা বান্দার প্রতিটি কথার উত্তর দেন। অর্থাৎ মানুষ যখন নামাজে সুরা ফাতিহা তেলাওয়াত করেন; তখন আল্লাহ তাআলা বান্দার সে কথাগুলোর উত্তর দিয়ে থাকেন।

আর এ কারণেই নামাজকে আল্লাহর সঙ্গে সেতুবন্ধনের অন্যতম মাধ্যম বলা হয়ে থাকে। যখনই আল্লাহর সঙ্গে বান্দার বন্ধন তৈরি হয় তখনই মানুষ পরিপূর্ণ মুমিনের খ্যাতি লাভ করে।

আল্লাহর সঙ্গে বান্দার এ সম্পর্ক বৃদ্ধিতে নামাজে মনোযোগ বৃদ্ধির বিকল্প নেই। নামাজে মনোযোগ বৃদ্ধিতে রয়েছে কয়েকটি সুস্পষ্ট করণীয়। আর তাহলো-

>> নামাজে একনিষ্ঠ থাকা
নামাজে দাঁড়ানোর সময় পরিপূর্ণ ইহসান অবলম্বন করা। মনে এ বিশ্বাস অর্জন করা জরুরি যে, আল্লাহ তাআলা সম্মুখে উপস্থিত। আর তাঁকে না দেখলেও তিনি নামাজি ব্যক্তিকে দেখছেন। তাঁর ইবাদতের সব কিছু পর্যবেক্ষণ করছেন।

>> নামাজের আমলগুলো বুঝে করা
নামাজের বাহিরে এবং ভেতরে যত করণীয় রয়েছে তার সবগুলো বুঝে বুঝে আদায় করা। সুরা, কেরাত, তাসবিহ, তাকবির, তাশাহহুদ, দরূদ ও দোয়া-কালাম সব কিছু অর্থ বুঝে বুঝে পড়ার চেষ্টা করা।

>> নামাজে ধীরস্থির হওয়া
নামাজ আদায়ের আগে নিজের মনকে পরিশুদ্ধ করে দুনিয়ার সব কথা ও কাজ থেকে বিরত থাকার মানসিকতা তৈরি করা। আরকান ও আহকামের বাইরে নামাজে আর কোনো আমল না করা। ধীরস্থিরভাবে নামাজের রুকু, তাসহিব, তাকবির, তাশাহহুদসহ ওঠা-বসায় তাড়াহুড়ো না করা।

উল্লেখিত নিয়মে নামাজ আদায়ই হলো প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামাজ আদায়ের পদ্ধতি। এ কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘নামাজ পড় সেভাবে; যেভাবে আমাকে পড়তে দেখছ।’

হাদিসে বর্ণিত নিয়মে প্রিয়নবির শেখানো পদ্ধতি নামাজ পড়লেই মানুষ দুনিয়ার অশ্লীল ও বেহুদা কথা ও কাজ থেকে মুক্ত থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন স্বয়ং আল্লাহ তাআলা। তিনি বলেন, ‘নিশ্চয় নামাজ অশ্লীল ও ফাহেশা কাজ থেকে বিরত রাখে।’

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কুরআন-সুন্নাহ মোতাবেক নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।