ফ্যাশন

পোশাকের ক্যানভাসে চেনা মুখ

ঢাকা , ০৫ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

প্রিয় কোনও চলচ্চিত্র থেকেউঠে আসা প্রিয় চরিত্র, কোনও প্রিয় কবির লেখা পংক্তি, কিংবা ছোটবেলায় পড়া প্রিয় গোয়েন্দা বইয়ের প্রচ্ছদ- এসব যদি পরনের পোশাকে ফুটে ওঠে তবে কেমন হয়? পোশাকে এসব প্রিয় ছবিগুলো খুঁজে পেতে এতোদিন যেতে হতো শাহবাগের আজিজ মার্কেটে। দেশীয় মাত্র কয়েকটা ফ্যাশন হাউসই এ ধরণের কাজ করতো, আর সেখানেও ছিল সীমাবদ্ধতা কারণ কেবল টি-শার্টেই চোখে পড়তো এই বিষয়গুলো। তবে গত কয়েক বছরে ফ্যাশনধারার পরিবর্তন আর অনলাইনে ফ্যশনপ্রেমীদের আনাগোনা বাড়ার সাথে সাথে পোশাকে বিশেষ চরিত্রের আগমন বেড়েছে বেশ। আর এখন কেবল টি-শার্টেই নয় বরং শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ওড়না, শাল- এসব পোশাকেও ফুটে উঠছে প্রিয় চরিত্রগুলো।

অনিন্দিতার শাড়ি

অনলাইন পেইজ অনিন্দিতা কাজ করছে পোশাকে চরিত্র নিয়ে। বিশ্বকাপ ফুটবল জ্বরে যখন ভুগছে বাঙালি তখন আগুনে একটু ঘি ঢালতেই যেন ‘অনিন্দিতা’ এনেছে আর্জেন্টিনার মেসি আর ব্রাজিলের নেইমারের ছবি সম্বলিত স্ক্রিন প্রিন্ট শাড়ি! অনেকেই ছবির নিচে মন্তব্য করছেন যে এই শাড়ি পরেই প্রিয় দলের খেলা দেখবেন, সমর্থন করবেন। মেসি আর নেইমার ছাড়াও অনিন্দিতায় নতুন যোগ হয়েছে বাংলাদেশের অন্যতম ব্যান্ড শিল্পী জেমসের গাওয়া গান ‘ও বিজলী চলে যেও না’ আর সঙ্গে জেমসের পোর্ট্রেট সম্বলিত শাড়ি। অনিন্দিতার শাড়ির তালিকায় আছে ‘হ্যারি পটার’ আর ‘জোকার’-এর মতো চরিত্রগুলো সম্বলিত শাড়িও।

অনিন্দিতার শাড়ি

অনিন্দিতা মৃধা এবং মুনতাসির সাকিব এই দু’জন মিলে খুব বেশিদিন হয়নি ‘অনিন্দিতা’ নামে তাদের এই অনলাইন ফ্যাশন প্ল্যাটফর্মটি খুলেছেন। তবে ইতিমধ্যেই পেয়েছেন বেশ সাড়া আর তাদের মতে বিশেষ চরিত্র পোশাকে ফুটিয়ে তোলা এর বেশ বড় একটা কারণ। কাস্টমাররা এই শাড়িগুলো শুরু থেকেই পছন্দ করছেন। শাড়ি ছাড়াও ওড়না এবং ব্লাউজেও পাওয়া যাচ্ছে এবং ভবিষ্যতে শীতকালে শালে চোখে পড়বে এই বিশেষ চরিত্রগুলো। সুতি, হাফ সিল্ক এবং খাদি কাপড়ে পাওয়া যাবে এই পোশাকগুলো ‘অনিন্দিতা’র ফেসবুক পেজে। আর ঈদের আগে অর্ডার করা যাবে ১১ জুন পর্যন্ত।

কইন্যার শাড়ি

চার্লি চ্যাপলিন এবং মেরিলিন মনরো নিয়ে কাজ করছে অনলাইন পেইজ ‘কইন্যা।’ শাড়ি ও ওয়ান পিস কামিজে ফুটে উঠেছে সুতি, আর হাফ সিল্কের উপর স্ক্রিন প্রিন্টে করা এই বিশেষ চরিত্র দু’টো ইতিমধ্যেই কইন্যার ক্রেতাদের পছন্দের শীর্ষে বলে জানালেন আল মাহমুদ বাঁধন, কইন্যার স্বত্বাধিকারীদের একজন। গত ২ জুন শেষ হওয়া ‘রাঙতা’ মেলাতে কইন্যার স্টলেও ছিল এই শাড়ি নিয়ে ক্রেতাদের বিশেষ আগ্রহ। বেশ কয়েকটি রঙে পাওয়া যাচ্ছে এই শাড়ি এবং ওয়ান পিসগুলো।

কইন্যার শাড়ি

ফ্যাশন ব্লগার নিলয় ফারহানার বেশ প্রিয় এই শাড়িগুলো। যেকোনো আয়োজনেই তিনি শাড়ি পরেন এবং এ ধরনের বিশেষ চরিত্রের শাড়িগুলো তার বিশেষ পছন্দ সবসময়েই। ‘প্রিয় কোনও চরিত্র পোশাকে ফুটে ওঠা মানে সেই চরিত্রের আদর্শ নিজের মধ্যে ধারণ করে তাকে সম্মান জানানো। আমার কাছে এটা ট্রেন্ড আর ট্র্যাডিশনের একটা সমন্বয়’- বলছিলেন নিলয় ফারহানা।

গ্রাম্পি ফিশ এর টি শার্ট

ঈদের সময়ে ঢাকাবাসীর খুব মজা। ঢাকা ফাঁকা হয়ে যায় বেশ কয়েকদিনের জন্য, ঈদের ছুটিতে ঘুরে বেড়াতে বেশ আরাম হয়। তবে ঢাকা ছেড়ে যারা যায় তাদের আনন্দটা বোধহয় এর দ্বিগুণ। টিকিটের জন্য দিনের পর দিন লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার অশান্তি প্রিয়জনের কাছে নিজের ভূমিতে ফিরে যাওয়ার সুখের কাছে বরাবরই ম্লান। আর এটাই ‘গ্রাম্পি ফিশ’-এর এবারের ঈদের থিম। ‘বাংলাদেশ-ব ১৬-১২’৭১’, ‘ঢাকা মেট্রো-ঢ যাদুর-শহর’, ‘চট্ট মেট্রো-চ ক্যানে-চলর’, ‘নোয়াখালী-ন বিভাগ-চাই’, ‘বরিশাল-ব বোজ্জো-মনু’, ‘সিলেট-স কিতা-গো’- দেশের বিভাগগুলোকে উল্লেখ করে এই ডিজাইনগুলো নিয়ে এবারের ‘গ্রাম্পি ফিশ’-এর ঈদ আয়োজন।

গ্রাম্পি ফিশ এর টি শার্ট

সামিয়া বিনতে আলমগীর আর নবনীতা রায়ের যৌথ উদ্যোগে ২০১৫ সালে ‘গ্রাম্পি ফিশ’-এর পথচলা শুরু। ‘বই, মুভি বা টিভি সিরিজ প্রেমীদের জন্যই আমাদের এই উদ্যোগ। আর আমরা সবসময় এমন কিছু বানাতে চেয়েছি যেটা ছেলেমেয়ে সবার জন্যই পরিধানযোগ্য। ভবিষ্যতে ফতুয়া বানানোর পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের।’

মেক্সিকান চিত্রশিল্পী ফ্রিদা কাহ্‌লো, বেকার স্ট্রিটের বাসিন্দা সেই বিখ্যাত গোয়েন্দা শার্লক, সত্যজিতের অমর সৃষ্টি ফেলুদা, ভ্যান গগের স্টারি নাইট, সঙ্গীত বোদ্ধাদের সবসময়কার পছন্দের পিংক ফ্লয়েড- শিল্পপ্রেমিক কিংবা সংস্কৃতিমনা মানুষদের মধ্যে এমন কম মানুষই আছেন যারা এই নামগুলোর সঙ্গে পরিচিত নন। এই নামগুলো প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে, সব বয়সী মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছে বিশ্বজুড়ে। চরিত্রগুলো নিজ নামেই উজ্জ্বল। শাড়ি, ওড়না, ওয়ান পিস কিংবা টু পিসে ফোয়ারা ফেরদৌসের ‘পটের বিবি’তে পাওয়া যাচ্ছে এই বিশেষ চরিত্র সম্বলিত পোশাকগুলো। ফোয়ারা বললেন, ‘সবসময় দেখতাম আমার প্রিয় চরিত্রগুলো কেবল টি-শার্ট বা নোট বইয়ে আসছে ঘুরে ফিরে। কিন্তু আমার কাজ তো মূলত শাড়ি নিয়ে তাই কাজে লেগে গেলাম কী করে পোশাকে সেটা ফুটিয়ে তোলা যায়। এভাবেই একে একে প্রিয় সবকিছুর নাম আমার শাড়ির সাথে যুক্ত করি। এমন কিছু কাজ করি যা আমি নিজে পরতে চেয়েছি সবসময় বা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি।’ ঈদের পর পূজায় ‘পটের বিবি’ কাজ করবে রাশি নিয়ে।

পটের বিবির শাড়ি

পটের বিবির ফেলুদা শাড়িটি ডাঃ সঙ্গীতা হালদার রায়ের বিশেষ পছন্দের। বললেন ‘ফেলুদা ছিল আমার কৈশোরের নায়ক। কাজেই ফেলুদা যখন শাড়িতে এলো, খুব মনে হয়েছিলো একটা আঁচলে থাকুক আমার বই পড়ার রুচির ছাপ।’

পটের বিবির শাড়ি

অনলাইন শপ ‘শরদিন্দু’র শুরুটাই হয়েছিল চরিত্রনির্ভর পোশাক নকশার ভেতর দিয়ে। তাদের স্ক্রিন প্রিন্টে করা প্রথম নকশা ছিল ‘হ্যারি পটার’ জামা। কীভাবে চরিত্রনির্ভর পোশাক নকশার কথা মাথায় এলো এ প্রশ্নে ‘শরদিন্দু’র দুই স্বত্বাধিকারী হাবিবা আক্তার সুরভী এবং তানবীর হোসেন রিফাত বলেন, ‘কিশোর বয়স থেকেই পোশাক নকশাকারীদের উপর আমাদের কিছুটা ক্ষোভ ছিল। যেকোনো বিখ্যাত চরিত্র, থ্রিলার কিংবা টিভি শো থেকে অনুপ্রাণিত পোশাকগুলো শুধু ছেলেদের জন্যই তৈরি হতো। হ্যারি পটার, টিনটিন, পপাই- এই চরিত্রগুলোকে ছেলেদের টি-শার্টে দেখা যেত, বাঙালি মেয়েদের কামিজে বা শাড়িতে নয়। মূলত এই চিন্তা থেকেই শুরু হয় চরিত্র নির্ভর পোশাকের যাত্রা। হ্যারি পটার জামাটা আসা মাত্রই ব্যাপক সমাদৃত হলো। আমাদের আগ্রহ আর উৎসাহ বেড়ে গেল অনেকটা। এরই ধারাবাহিকতায় এলো চাচা চৌধুরী জামা। শরদিন্দুতে আমরা সবসময় একটা থিম ধরে কাজ করতে চাই। আমরা চাই পরনের পোশাকটি যেন হয় অর্থবোধক।’

শরদিন্দুর জামা শরদিন্দুর জামা

এই ঈদে শরদিন্দু কাজ করেছে বিখ্যাত নারী চরিত্রদের নিয়ে, ‘নারীর ক্ষমতায়ন’ এই থিম ধরে। প্রীতিলতা, বনলতা সেন, তারামন বিবি, সেতারা বিবি-এই চরিত্রগুলোর নামে নামকরণ করা হয়েছে পোশাকের। এই রকম এক চরিত্র মিশরের সেই বিখ্যাত রানী ক্লিওপেট্রাকেও নিয়ে আসা হয়েছে পোশাকে। শরদিন্দুর লক্ষ্য পোশাকটি পড়ার সময় এ যুগের নারীরা জানুক কালে কালে মহতী সব নারীদের কথা,অনুপ্রাণিত হোক তাদের আলোয়, এমনটাই আশা এর স্বত্বাধিকারীদের। ২২ রোজা পর্যন্ত শরদিন্দুর ফেসবুক পেজে অর্ডার করা যাবে পোশাক।

আরো সংবাদ...