উত্তেজনাপূর্ণ ফ্রান্স-বেলজিয়াম সেমিফাইনালের প্রথমার্ধ গোলশূন্য

0
10

ঢাকা , ১১ জুলাই , (ডেইলি টাইমস ২৪):

বিশ্বকাপে কখনোই ফাইনাল খেলা হয়নি বেলজিয়ামের। অন্যদিকে একবারের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ২০০৬ বিশ্বকাপের ফাইনালেও খেলেছিল। সবাই যেমন আশা করেছিল ঠিক তেমন খেলাই উপহার দিল বেলজিয়াম-ফ্রান্স। উত্তেজনাপূর্ণ সেমিফাইনালে আক্রমণ পাল্টা আক্রমণের পরও গোলশূন্য থাকে ম্যাচের প্রথমার্ধ।

ম্যাচের শুরুতেই দুদলের কোচ একটি করে পরিবর্তন এনে একাদশ সাজান। শুরু থেকেই আক্রমণ-পালটা আক্রমণে জমে ওঠে ম্যাচ। তবে ম্যাচে প্রথম ২০ মিনিট ছিল বেলজিয়ামের দখলে।

ম্যাচের ১৫তম মিনিটে প্রথম আক্রমণটি করে বেলজিয়াম। ডি বক্সের বাইরে থেকে হ্যাজার্ডের শট গোলবারের উপর দিয়ে চলে যায়। ১৮ মিনিটে গোলের সুযোগ পেয়েছিল ফ্রান্সও। কিন্তু ডি বক্সের বাইরে থেকে মাতুইদির আচমকা নেয়া জোরালো ভলি সোজা কুর্তোয়ার তালুবন্দী হয়।

১৯ মিনিটে ফ্রেঞ্চ ডিফেন্সের বা পাশ থেকে হ্যাজার্ডের নেয়া বাকানো শট মাথা ছুঁয়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন ভারানে। তার মাথায় না স্পর্শ করলে নির্ঘাত এগিয়ে যেতে পারতো বেলজিয়াম। ২১ মিনিটে আবারো গোলের সুযোগ পায় বেলজিয়াম।

চ্যাডলির কর্নার থেকে অ্যাল্ডারওয়ের্ল্ডের নেয়া শট ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন লরিস। ২৫ মিনিটের পর কিছুটা ঝিমিয়ে পড়ে বেলজিয়াম। এই সুযোগে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার চেষ্টা করে তরুণ ফ্রান্স দল।

৩১ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে গ্রিজম্যানের দুর্বল শট গোলের নিশানা খুঁজে পায়নি। ৩৪ মিনিটে ম্যাচের সবচেয়ে সহজ সুযোগটি পেয়েছিল ফ্রান্স। ডান পাশ থেকে এমবাপের শট গোলমুখে কুর্তোয়াকে একা পেয়ে বাইরে শট নেন ফ্রেঞ্চ স্ট্রাইকার জিরু।

৩৯ মিনিটে ফ্রান্সের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ান বেলজিয়ামের আগের ম্যাচের নায়ক কুর্তোয়া। পাভার্টের শট ডান পায়ের বদৌলতে রুখে দেন কুর্তোয়া। ম্যাচের প্রথমার্ধে আর কোনো সুযোগ তৈরি না হলে গোলশূন্য থেকেই প্রথমার্ধে যায় দুদল।