খেলাধুলা

সীমিত ওভারের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট কোচ

ঢাকা , ১০ আগস্ট , (ডেইলি টাইমস ২৪)

এটা স্টিভ রোডসের জাতীয় দলের সাথে ‘মধু চন্দ্রিমা’ ছিল বলা যায়।

 

শুরুটা খুবই তেতো হয়েছে। দলের সাথে যোগ দিয়েই দেখেছেন দুই টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে বাজেভাবে পরাজয়। এরপর অবশ্য দারুণভাবে ফিরে এসেছে বাংলাদেশ দল। নতুন কোচকে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে জয় উপহার দিয়েছে। শুরুর সেই হতাশা ভুলে দল যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে, তাতে বাংলাদেশের এই নবাগত কোচ রোডস তাই দারুণ উচ্ছ্বসিত।

 

শুরুর সিরিজের পরের দুই সিরিজে দলের প্রত্যাবর্তন নিয়ে দেশে পৌঁছানোর পর স্টিভ রোডস বলছিলেন, ‘টেস্ট সিরিজটা আমাদের জন্য সহজ ছিল না। আমরা টেস্টের পারফরম্যান্সে যথেষ্ট ধাক্কা খেয়েছি। তবে খুবই গর্ববোধ করছি দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পেরে। ওয়ানডে সিরিজ জয় করার প্রত্যাশা আমাদের ছিল, আমরা সেটা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি। টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয় করা অবাক করার মত ছিল। আমরা আসলেই দারুণ খেলেছি শেষ দুই ম্যাচে। খুবই খুশি দুটি সিরিজ জয় করতে পেরেছি। লিটন দাসের ওপর খুবই সন্তুষ্ট, সে শেষ ম্যাচে দারুণ খেলেছে।’

 

টেস্টে পরাজয়ের পর ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ানোর সময় মনে হয়েছিল, এখানে মাশরাফির অধিনায়কত্বের বড় একটা ভূমিকা আছে। কোচ রোডস অবশ্য দুই অধিনায়কের মধ্যে বিশেষ কোনো পার্থক্য দেখছেন না, ‘আমি সেভাবে দেখছি না। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে দুই অধিনায়কই তাদের বোলারদের দারুণভাবে ব্যবহার করেছে। মাশরাফি ও সাকিব, দু’জনই বোলারদের ভালো পারফরম্যান্সটা বের করে নিয়েছে। আমাদের কিছু যোগ্যতাসম্পন্ন স্পিন বোলার রয়েছে এবং ভালো পেস বোলিংও ছিল; যা আমাদের উইন্ডিজ থেকে ভালো ফলাফল করতে সাহায্য করেছে। আমাদের যথেষ্ট বোলার রয়েছে। তবে টেস্ট ম্যাচের জন্য আমাদের কয়েকজন দ্রুত ও দীর্ঘদেহী বোলার খুঁজে বের করতে হবে, যারা উইকেটে জোরে আঘাত করে সুবিধা আদায় করে নিতে পারবে; যেমনটা উইন্ডিজ বোলাররা করে দেখিয়েছে।’

 

তবে সীমিত ওভারের সাফল্যে কোচ ভুলে যাচ্ছেন না টেস্টে দুর্দশার কথা। সেটাও মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘দেখুন, টেস্ট ম্যাচে আমাদের ব্যাটিং সামর্থ্য কিছুটা খোলাসা হয়েছে। আমাদের এখানে উন্নতি করার জায়গা আছে। আমাদের যোগ্য প্লেয়ার রয়েছে কিন্তু আমাদের কন্ডিশনের সাথে দ্রুত মানিয়ে নিতে হবে ও প্রতিপক্ষ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা রাখতে হবে; বিশেষ করে যখন আমরা দেশের বাইরে খেলব।’

 

টেস্টে কেনো দল এতো খারাপ করলো, সে নিয়ে কিছু পর্যবেক্ষণও আছে কোচের। তিনি বলছিলেন, ‘প্রথম টেস্টে টস হারাটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়ায়। উইকেটে একই সাথে সিম, সুইং ও বাউন্স করেছে। তাদের ডিউক ক্রিকেট বল ও গ্যাব্রিয়েল, রোচ, হোল্ডার ও কামিন্সদের নিয়ে গড়া উইন্ডিজ বোলিং লাইন আপের বিপক্ষে বেশিরভাগ ব্যাটিং লাইন আপকে এমন কন্ডিশনে ধুঁকতে হতো।’

 

তবে সবমিলিয়ে কোচ রোডস মনে করেন সীমিত ওভারের দুটি সিরিজে সাফল্যের কারণে তারা যে আত্মবিশ্বাস পাবেন, সেটা সামনে কাজে লাগাতে পারবেন, ‘আমি মনেকরি এটা (ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি জয়) অবশ্যই আমাদের আত্মবিশ্বাস দিবে। জয়ের চেয়ে ভালো কিছু হতে পারে না। এর আগেও ওয়ানডেতে আমরা ভালো খেলেছি। সুতরাং আমরা ইতিবাচক মনোভাব নিয়েই এশিয়া কাপে যাবো। তবে আমরা খুব বেশি চিন্তা করতে চাই না। আমরা খুব সহজেই ওয়ানডে সিরিজ ৩-০ তে জিততে পারতাম, সেই দিক থেকে খুবই সন্তুষ্ট।’

আরো সংবাদ...