সরকারের ছকে কাজ করছে সিইসি: বিএনপি

0
26

ঢাকা , ডিসেম্বর , (ডেইলি টাইমস২৪):

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা আওয়ামী লীগের ছক অনুসারে বিএনপিকে পরাজিত করতে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বুধবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে সরকারের মনোবাঞ্ছা বাস্তবায়ন করার পর এখন মাঠের নিয়ন্ত্রণ যাতে ক্ষমতাসীন দলের হাতেই থাকে। সেজন্য নির্বাচন কমিশন কখনো প্রকাশে আবার কখনো পর্দার অন্তরালে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে।’

‘নির্বাচন নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের ছকের মধ্য থেকেই কাজ করছেন কে এম নূরুল হুদা কমিশন। ইসি নোটিশ দিচ্ছে নির্বাচনের আগে প্রার্থীদের পক্ষ থেকে পোলিং এজেন্টদের তালিকা তাদেরকে দিতে হবে। সেই তালিকা ধরে নতুন করে ধরপাকড় শুরু করার নীলনক্সা এটা’, বলেন বিএনপির এই নেতা।

রিজভী বলেন, ‘গাজীপুর, রাজশাহী ও খুলনা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমরা এমন পরিস্থিতি দেখেছি। এর মধ্যে ক্ষমতাসীন এমপির দাপট তো থাকবেই। এখন পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের প্রতিটি পদক্ষেপে ক্ষমতাসীন দল জোরাল সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বা সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরি করা হচ্ছে না। শুধু তাই নয়, জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা প্রশাসনে রদবদলের দাবি করে এলেও মনে হয় আসাহাব কাহাবের মতো ইসি দীর্ঘকাল ঘুমিয়ে থাকবে।’

তিনি বলেন, ‘জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে, নির্বাচন কমিশন খোলস ভেঙে তাদের আওয়ামী চেহারাটা ততটাই উন্মোচিত হয়ে পড়ছে। নির্বাচনের আগেই সম্ভবত ক্ষমতাসীন দলের ‘বিজয়’ নিশ্চিত করতে নানা রকম কলাকৌশল ফন্দি-ফিকির করছে কমিশন। এর একটি ড্রেস রিহার্সেল হয়ে গেল মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের সময় বিপুলসংখ্যক প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলের মধ্য দিয়ে।’

‘বিএনপির প্রার্থী, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র কেবল যাচাই-বাছাই হয়েছে এবং বাতিল করা হয়েছে গণহারে। আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই করা হয়নি। বিষয়টি এমন ছিল যে, বিএনপি হলেই অবৈধ আর আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেই বৈধ’, বলেন বিএনপির এই নেতা।

রিজভী বলেন, ‘সাড়ে পাঁচ হাজার টাকার জন্য রেজা কিবরিয়ার মনোনয়ন বাতিল করা হলেও এক কোটি টাকার ঋণখেলাপি হয়েও বৈধতা পেল আওয়ামী লীগ জোটের বিকল্প ধারার যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরী। ব্যাংকের লোক গিয়ে আপত্তি জানালেও রিটানিং কর্মকর্তা তা আমলে নেননি। বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামালের আয়কর রিটার্নের নানাবিধ অসঙ্গতি থাকার পরও তার মনোনয়নপত্র বৈধ করেছে রিটার্নিং অফিসার। এ কে এম শাহজাহান কামালের আর্থিক বিবরণী দাখিলকৃত হলফনামার সাথে কোনো মিল নেই। তারপরও তার মনোনয়নপত্র বৈধ করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি মামলায় বিচারিক আদালতের দেওয়া ১৩ বছরের সাজার তথ্য গোপন করেও মনোনয়নপত্রের বৈধতা পেয়েছেন বরিশাল-৪ আসনে মহাজোট প্রার্থী। পত্র-পত্রিকায় এসেছে ম খা আলমগীর তার হলফনামায় স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের কোনো হিসাবই দেননি। অনেক ছক পূরণ করেননি। এছাড়া তিনি ২০০৭ সালে ১৩ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত। তারপরও তার মনোনয়নপত্র বৈধ করা হয়েছে। হাজী সেলিম, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার কথাতো আগেই বলেছি।’

নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলালুদ্দীনের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘তার সঙ্গে সার্বক্ষণিক একজন নিরাপত্তারক্ষী নিয়োজিত থাকলেও ভরসা পাচ্ছেন না। তিনি ব্যক্তিগত নিরাপত্তা আরও বাড়াতে চান। সেই লক্ষ্যে এবার একজন নিরাপত্তারক্ষী চেয়ে পুলিশের কাছে আবেদন করেছেন। হেলালুদ্দীন সাহেব এসির মধ্যে নিরাপত্তা বেস্টনির মধ্যে থেকে বাড়তি নিরাপত্তা দাবি করছেন ভাল কথা, কিন্তু জনগণের নিরাপত্তার কথা কী একবার বিবেচনা করছেন? কোনো ভোটাররা এখনও নিরাপদ নয়। ভোটাধিকার প্রয়োগে ভোটাররা শঙ্কিত ও অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে।’

এ সময় সারা দেশে বিএনপির নেতা-কর্মীদের হামলা-মামলা ও গ্রেপ্তারের চিত্র তুলে ধরেন তিনি।