আইন ও আদালত

কামাল মজুমদারের প্রচারকেন্দ্রে হামলায় সাতজন কারাগারে

ঢাকা , ডিসেম্বর , (ডেইলি টাইমস২৪):

ঢাকা-১৫ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী কামাল মজুমদারের প্রচারকেন্দ্র হামলার ঘটনায় কাফরুল থানায় করা মামলায় সাতজনের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় কাফরুল থানা এলাকায় আওয়ামী লীগের নির্বাচন অফিসে হামলার অভিযোগে করা মামলায় তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা ওই থানার উপ-পরিদর্শক ওয়াহিদুল ইসলাম।

অপরদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা জামিন আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শহিদুল ইসলাম জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

কারাগারে যাওয়া আসামিরা হলেন- মো. আব্দুল হালিম, আব্দুল আহাদ, হাসান আব্দুল্লাহ সাকিব, সেলিম মিয়া, হাসান ফকির, আসাদুজ্জামান ওরফে সুমন ওরফে আসাদুল ইসলাম ও সেলিম হাওলাদার।

এর আগে বুধবার রাতে রাজধানীর কাফরুল থানাধীন (ঢাকা-১৫) ৯৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা।

স্থানীয়রা জানান, ঢাকা-১৫ আসনের ৯৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে রাত ৯টার দিকে প্রচারণার কাজে ব্যস্ত ছিলেন কর্মীরা। এ সময় অতর্কিতভাবে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। পরে নেতাকর্মীরা সরে গেলে বেশ কয়েকজন অফিসটিতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।

অপরদিকে এর আগের দিন মঙ্গলবার মিরপুরের ৬০ ফুট সড়ক সংলগ্ন মোল্লাপাড়ার প্রচারকেন্দ্রে হামলার ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, ৬০ ফুট সড়ক সংলগ্ন মোল্লাপাড়ার প্রচারকেন্দ্রে কয়েকটি গুলি ছোড়া হয় ও ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। এই হামলায় একজন গুরুতর আহত হলেও কেউ গুলিবিদ্ধ হয়নি। দুর্বৃত্তরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি, টেলিভিশন এবং চেয়ার ভাঙচুরের পর ককটেল বিস্ফোরণ করে পালিয়ে যায়। হামলার সময় প্রচারকেন্দ্রটিতে কর্মী সমর্থক কম ছিল। হামলায় ডি ওয়ার্ডের শ্রমিক নেতা হারুন উর রশিদ আহত হয়েছেন। তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে পার্শ্ববর্তী একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

আহত হারুন বাদী হয়ে মিরপুর মডেল থানায় মামলা করেন। পরের দিন বুধবার বিএনপি জামায়াতের ১০ জনের একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

রিমান্ডে যাওয়া আসামিরা হলেন- আনোয়ার হোসেন (শিবিরকর্মী), আহসান উল্লাহ (জামায়াতকর্মী), গোলাম রব্বানী (শিবিরকর্মী), রওনক হোসেন, মিজানুর রহমান, মো. হাসান, জহিরুল ইসলাম, মাওলানা আমির হামজা, ফিরোজ আহম্মেদ ও ইছাহাক।

কামাল আহমেদ মজুমদারের বিরুদ্ধে এই আসনে লড়ছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button