ন্যান্সি-জায়েদের দূরত্ব ৫ কিলোমিটার!

0
37

ঢাকা , ০২ জানুয়ারি , (ডেইলি টাইমস২৪):

নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি হলেও তাকে বাংলাদেশের মানুষ চেনে ন্যান্সি নামেই। দেশের একজন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী। তার কণ্ঠের ভক্ত এদেশের অগণিত দর্শক শ্রোতা।

সম্প্রতি ন্যান্সি স্বামীর সঙ্গে না থাকার বিষয়টি নিয়ে মিডিয়ায় বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করে। এ নিয়ে এখনো চলছে আলোচনা।

ন্যান্সি গত ৩১ ডিসেম্বর যুগান্তরকে জানান স্বামীর সঙ্গে না থাকার বিষয়টি। এরপর থেকেই বিষয়টি নিয়ে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি হয়।

ন্যান্সি জানান, গত দুই মাস ধরে আমার স্বামী নাজিমুজ্জামান জায়েদের সঙ্গে থাকছি না। অস্ট্রেলিয়ায় একটি অনুষ্ঠান শেষে দেশে ফেরার পর থেকে আমরা আলাদা থাকি। সে থাকে তার বাড়িতে আর আমি আমার বাড়িতে থাকি।

তবে কী কারণে তারা একসঙ্গে থাকছেন না এ বিষয়ে ন্যান্সি কিছুই বলেননি।

দুই মেয়ে রোদেলা ও নায়লা কার সঙ্গে থাকে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বড় মেয়ে রোদেলা আমার সঙ্গে থাকে আর ছোট মেয়ে নায়লা জায়েদের সঙ্গে থাকে।

ন্যান্সি বলেন, ১৫ বছর আগে আমাদের মধ্যে যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক ছিল এখনো সেই সম্পর্ক আছে। আমাদের মধ্যে কথা-বার্তা সবই হচ্ছে তবে আমরা আলাদা থাকছি। আমার বিশ্বাস, দুজনে সারাজীবন এমনই থাকব, ডিভোর্স হবে না কখনও।

ছোট মেয়ে নায়লাকে নিয়ে জায়েদ কোথায় থাকছে এমন প্রশ্নের জবাবে ন্যান্সি বলেন, সে তার নিজ বাড়িতেই থাকে। আমার বাসা থেকে তার বাসার দূরত্ব মাত্র ৫ কিলোমিটার, যা মাত্র ১৫ মিনিটের রাস্তা।

ন্যান্সি বলেন, আমরা মানসিকভাবে দূরে সরে গেছি গেল দুই তিন বছর ধরে। মনে হচ্ছিল আমরা বুঝি ৬০ বছর বয়সী দম্পতি। দুজনেই সামাজিক-পারিবারিক নানাবিধ কাজে এতই ব্যস্ত, নিজেরা নিজেদের জন্য সময় বের করতে পারছিলাম না। অথচ বাস্তবে আমার বয়স ৩০ আর সংসারের বয়স মাত্র ৬ বছর। তো এসব ভেবেচিন্তে মাস দুয়েক আগে আমরা দুজনেই আলাদা থাকার সিদ্ধান্ত নিই। দুজনেই ভালো আছি, সম্ভবত।

দুই মাস ধরে কেন ন্যান্সির সঙ্গে থাকছেন না এমন প্রশ্নের জবাবে জায়েদ বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছুই বলতে চাই না। আপনারা এ বিষয়টি যার কাছ থেকে শুনেছেন তার কাছেই উত্তর চান।

এর আগে গত ১৩ ডিসেম্বর ন্যান্সির জন্মদিনে জমি উপহার দিয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেন জায়েদ।

এদিন জায়েদের কাছ থেকে ৫ শতাংশ জমি উপহার পান ন্যান্সি।

স্বামীর কাছ থেকে মূল্যবান এই উপহার পেয়ে উচ্ছ্বসিত ন্যান্সি যুগান্তরকে বলেন, কিছুই বলতে পারব না, এমন উপহারে বোবা হয়ে গেছি।

অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে ন্যান্সি বলেন, আমি কখনো ভাবতেই পারিনি এভাবে সারপ্রাইজ হব। আমার কোনো প্রিপারেশন ছিল না, আমি জানতাম না কোনো কিছুই, হঠাৎ করেই বেলা সাড়ে ১১টায় জায়েদ আমাকে এমন উপহার দিয়ে চমকে দিয়েছে।

জনপ্রিয় এ কণ্ঠশিল্পী বলেন, পাঁচ বছরের সংসারজীবনে এটিই আমার জীবনের সেরা উপহার। স্বামীর কাছ থেকে এমন উপহার পাওয়া যে কোনো নারীর জন্যই আনন্দের।

উপহার প্রসঙ্গে ন্যান্সি আরও বলেন, ওই ৫ শতক জমি ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এলাকায়। আমার স্বামীর (জায়েদ) প্রথম কেনা জমি। সেই জমিটি সে আমাকে দানপত্র করে দেয়। এমন উপহার পেয়ে আমি ভাষা হারিয়ে ফেলেছি।

স্বামী হিসেবে জায়েদ কেমন স্বভাবের এমন প্রশ্নের জবাবে ন্যান্সি বলেন, জায়েদ খুব নরম-সরম মানুষ, ঠাণ্ডা মেজাজের।