আইন ও আদালত

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেফতার ১৩

ঢাকা , ১০ জানুয়ারি , (ডেইলি টাইমস২৪):

চাকরির লোভ দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে প্রতারক চক্রের ১৩ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার (৯ জানুয়ারি) তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) দুপুরে সিআইডির কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তদন্তকারী সংস্থার বিশেষ পুলিশ সুপার মো. এনামুল কবির বলেন, ‘এই চক্রের সদস্যরা এমএলএম পদ্ধতির মতোই কাজ করতো। চাকরিপ্রার্থী এনে দিলে কমিশন পেতো তারা। চাকরিপ্রত্যাশীদের চাকরির লোভ দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতো। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের পর আমরা তদন্ত করি। ১৮ জনের নামে ৯ জানুয়ারি ভাটারা থানায় আমরা একটি মামলাও করেছি।’

গ্রেফতার ১৩ জন হলেন- আশরাফুল ইসলাম (২৭), আল আমিন মন্ডল রতন (৩০), উজ্জল হোসেন (২৩), শিমুল মোল্লা (১৯), জহিরুল ইসলাম ওরফে পাপ্পু মিয়া (২০), আব্দুল মোমিন (২৪), শাহীন আলম (২৪), নুর আলম সিদ্দিকী (২৫), মাজেদুল ইসলাম (২৫), ইমরুল হাসান (২৩), মনিরুজ্জামান (২৪), রিঙ্কু কুমার দাস (৩০) ও অভিজিত পান্ডে (২৪)।

এনামুল কবির বলেন, ‘গত অক্টোবরে গাজীপুরে লাইফওয়ে নামে একটি প্রতিষ্ঠান চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণার দায়ে ১৭ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এরপর কয়েকজন ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে রাজধানীর বারিধারার ভাটারা নতুন বাজার অভিযান চালানো হয়। সেখানকার প্রাইম অর্কেড বিল্ডিংয়ের পঞ্চম তলা থেকে এক্সিলেন্ট ট্রেড মার্কেটিং লিমিটিড নামে একটি কোম্পানির অফিস থেকে ১৩জন প্রতারককে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে কোম্পানির প্যাডে ১১৫টি অঙ্গীকারনামা, কোম্পানির নামে পূরণ করা ৪২টি আবেদনপত্র ও এগ্রিমেন্ট ফরম এবং পূরণ করা ৩০টি ট্রেডিং কার্ড জব্দ করা হয়।’

এনামুল কবির বলেন, ‘এর পেছনে আরও কোনও চক্র জড়িত আছে কিনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় ১৮ জনের নামে মামলা হলেও বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। এই চক্রের মূল হোতাকে শনাক্ত করা হয়েছে। তার নাম-পরিচয় সবকিছু জানা গেছে। তাকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।’

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button