জাতীয়

সাংবাদিক বাদশাকে বাঁচান

ডেইলি টাইমস ২৪:

দৈনিক দিনকালের সিনিয়র সহ-সম্পাদক মোস্তাক এলাহী বাদশাকে (৪৪) বাঁচাতে এগিয়ে আসুন। মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাকে রাজধানীর মহাখালী মেট্রোপলিটন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার রাতে নিজ বাড়িতে বাদশার পড়ে গেলে তার মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ হয়। এরপর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সেখানে তিনি অচেতন অবস্থায় রয়েছেন।

তাকে সুস্থ করে তুলতে ইতোমধ্যে তার পরিবারের অনেক টাকা খরচ হয়েছে। এ অবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য আরো টাকার প্রয়োজন।

এদিকে সোমবার রাত ১০টা থেকে ১টা পর্যন্ত তার মাথায় একটি মেজর অপারেশন করেন হাসপাতালের চিকিৎসকরা। এরপর থেকে এখনো পর্যন্ত তার জ্ঞান ফিরেনি। আগামীকাল বুধবার সকাল ১০টার দিকে তার জ্ঞান ফিরতে পারে বলে জানিয়েছেন সাংবাদিক বাদশার ছোট ভাই সাংবাদিক তৌহিদুল ইমলাম লিটন। তিনি দৈনিক যায়যায় দিন ও বৈশাখী টেলিভিশনের লালমনিরহাট প্রতিনিধি।

লিটন জানান, রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাসায় বাদশা ভাইয়ের উচ্চ রক্তচাপ থাকায় তিনি মাটিতে পড়ে যান। এসময় তার মাথার একটি ভেইন ছিড়ে যায়। এরপর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সোমবার তার মাথায় একটি মেজর অপারেশন করা হয়েছে। কিন্তু এখনো তার জ্ঞান ফিরেনি। ডাক্তার বলেছে বুধবার সকাল ১০টা দিকে জ্ঞান ফিরতে পারে।

তিনি আরো বলেন, তাকে সুস্থ করতে অনেক টাকার প্রয়োজন। এই মুহূর্তে হাসপাতালে ভাইয়ের সঙ্গে ভাবী অবস্থান করছেন।
তিনি তার বড় ভাই বাদশাকে সহযোগিতা করতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানান।
মোস্তাক এলাহী বাদশা দুই কন্যা সন্তানের জনক। বড় মেয়ে তাইবা আশরাফীর বয়স সাড়ে ৮ বছর। সে শহীদ আনোয়ার গার্লস স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। ছোট মেয়ের নাম আসিফা (৪)। তিনি মহাখালীর ওয়ারলেস গেট এলাকায় থাকেন। তার বাড়ি লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলায়।

তিনি ওই উপজেলার বিশিষ্ট সমাজ সেবক মরহুম ইব্রাহীম সরকারের ছেলে। বাদশা ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিল ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্য।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button