আন্তর্জাতিক

রাজনৈতিক আশ্রয় : বিএনপি-জামায়াত পরিচয়ে যুক্তরাষ্ট্রে আবেদন করছে আ.লীগ নেতাকর্মীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক,( ডেইলি টাইমস্২৪):  বাংলাদেশে রাজনৈতিক কারণে জীবন বিপন্ন হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমাতে বাধ্য হয়েছেন এমন যুক্তি দেখিয়ে সেদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের আবেদন বাড়ছেই। আবেদনকারীদের মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের অনেকেও রয়েছেন বলে জানা গেছে। তারা জামায়াতে ইসলামী অথবা বিএনপির সমর্থক বলে যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করছেন। তারা ভুয়া কাগজপত্র বানিয়ে নিজেদের নির্যাতিত বিরোধীদলীয় রাজনীতিক বলে প্রমাণের চেষ্টা করছেন। দেশে ফিরে এলে তাদের গুম বা জেল জরিমানার মুখোমুখি হতে হবে বলে তারা তথ্য দিচ্ছেন। এ ঘটনা বিরূপ প্রভাব ফেলেছে এ দেশের ইমিগ্রেশন বিভাগের ওপর।

এছাড়া রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিতদের অনেকের স্বজনেরাও রাজনৈতিক কারণে নিগৃহীত হওয়ার নথিপত্র সাবমিট করেছেন রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনার আবেদনে।

এ ধরনের ঘটনা বাড়ার কারণে যুক্তরাষ্ট্রেরন ইমিগ্রেশন বিভাগের কর্মকর্তা এবং কোর্টের বিচারকেরাও সহজে কারোর আবেদন মঞ্জুর করছেন না। এসাইলাম প্রার্থনার আবেদনপত্র প্রস্তুত, সাবমিট এবং পরে ইন্টারভিউর সময়ে দোভাষী হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী এবং ইমিগ্রেশন কোর্টে বাংলাদেশীদের পক্ষাবলম্বনকারী অ্যাটর্নিদের কাছে থেকে এসব তথ্য জানা গেছে। তারা জানান, কয়েক মাস আগেও বাংলাদেশের সাংবাদিকদের আবেদন খুব দ্রুত মঞ্জুর হলেও এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে বলেও জানা গেছে।

এ দিকে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট শিগগিরই অবৈধ ইমিগ্র্যান্ট-সংক্রান্ত দু’টি প্রধান ইস্যুর প্রশ্নে সিদ্ধান্ত নেবে। তবে যেসব বিষয় প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে, সে সবের মধ্যে রয়েছে যাতে যেসব ইমিগ্রান্ট আমেরিকায় অবৈধভাবে বাস করছেন, তারা যাতে গোপনীয়তা ভেঙে বেড়িয়ে আসতে পারেন। তাদের পরিবারের ভরণপোষণে আরো অর্থ উপার্জন করতে পারেন এবং তাদের যাতে রাজনৈতিক ক্ষমতা অর্জিত হয় এবং তারা সরকারে প্রতিনিধিত্ব পেতে পারেন। দু’টি মামলার একটি হচ্ছে ওবামা প্রশাসনের নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে তাদের ডিপোর্টেশন বিলম্বিতকরণ এবং প্রায় চার-পাঁচ মিলিয়ন অবৈধকে ওয়ার্ক পারমিট দেয়া। যদি নি¤œ আদালত বিষয় দু’টি বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা অব্যাহত রাখেন তাহলে তা নিষ্পত্তির জন্য সুপ্রিম কোর্টে যেতে পারে। অপরটি হচ্ছে ভোটার রিডিস্ট্রিটিং রুল পরিবর্তন। যাতে অবৈধ ইমিগ্র্যান্টদের আদমশুমারি থেকে বাদ দেয়া যেতে পারে।

এর আগে এক পরিসংখ্যানে জানা যায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ প্রবেশের দায়ে ছয় মাসে এক হাজার ৬৬৮ বাংলাদেশী গ্রেফতার হয়েছেন। তাদের বয়স ২২ থেকে ৩২ বছরের মধ্যে। দালালকে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা করে দিয়ে ভারত, ব্রাজিল, গুয়াতেমালা, মেক্সিকো, বলিভিয়া, পানামা সিটি হয়ে দুর্গম সীমান্তপথ পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের সময় তারা আটক হন।

[icon name=”*”]

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button