স্বাস্থ্য

সাইনাসের সমস্যায় লক্ষণ কী?

ডা. জাহির আল আমিন।

জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪):  সাইনাসের সমস্যা হলে দেহে জ্বর ভাব এবং  দুর্বল অনুভূত হয়। তবে একটু সচেতন হলে রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। আজ ১২ জুলাই এনটিভির স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানের ২০৯৪তম পর্বে এ বিষয়ে কথা বলেছেন বারডেম হাসপাতালের নাক কান গলা এবং হেড নেক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. জাহির আল আমিন।

প্রশ্ন : সাইনাস জিনিসটি কী এবং এর কাজ কী?

উত্তর: সাইনাসের আসলে কোনো কাজ নেই। কেন যে এটা মানুষের শরীরে আছে সেটা আমরা জানি না। গবেষকরা অনেক মাথা ঘামিয়েও এর কোনো সমাধানে আসতে পারেননি। তবে এটা হলো আমাদের নাকের চার দিকে কিছু বায়ু প্রকোষ্ঠ থাকে যেগুলোর মধ্যে একটা ঝিল্লি থাকে। যেই ঝিল্লি নাকের সঙ্গে সংযুক্ত। তাই নাকের কোনো সমস্যা হলে এটা অনেক ক্ষেত্রে সাইনাসের দিকে চলে যায়।

তাই দেখা যায়, নাকে যাদের সমস্যা রয়েছে তাদের কিছু কিছু ক্ষেত্রে সাইনাসের সমস্যা হয়। নাকের এবং সাইনাসের সমস্যাকে সাধারণত আমরা আলাদা করতে পারি না। সাইনাসগুলোর কাজের ক্ষেত্রে অনেকে বলে, এটা মাথাকে হালকা করে। অনেকে বলে, এটা তাপ প্রতিরোধে কাজ করে।

এর সমস্যা খুব প্রচলিত এবং কষ্টদায়ক। আমাদের ঢাকা শহরে এখন যে রকম দূষণ, এর থেকে এই সমস্যা অনেকটাই হয়।

ডা. জাহির আল আমিন।

আমরা যে রোগীগুলো পাই, এর মধ্যে ৩০ থেকে ৪০ ভাগ নাক সম্পর্কিত সমস্যা নিয়ে আসে। যাদের নাকে সমস্যা থাকে তাদের অনেকেই দেখা যায় রোগটা সাইনাসের দিকে চলে যায়।

প্রশ্ন : কী ধরনের লক্ষণ প্রকাশ পায় এ রোগে?

উত্তর : নাকের সমস্যা ছাড়া সাইনাসের সমস্যা সাধারণত হয় না। আর নাকে যেসব সমস্যা থাকে। ঠিকমতো শ্বাস নিতে পারে না। হাঁচি হয়, কাশি হয়। গলার মধ্যে ঢোক গিলতে সমস্যা হয়। নাক দিয়ে রক্তপাত হয়। এগুলো হলো নাকের সমস্যা। এরপরে যখন সাইনাসে চলে যায় তখন মাথায় ব্যথা হয়।

প্রশ্ন : আপনি কি বলতে চাচ্ছেন নাকের সমস্যা যদি সমাধান করা না হয়, সেটি ধীরে ধীরে সাইনাসের সমস্যার দিকে যায়…

উত্তর : নাকে যে ব্লকেজ থাকে, সেটা পরবর্তী সময়ে সাইনাসের দিকে যায়। নাক থেকে কানে চলে যেতে পারে। নাক থেকে গলাতে চলে যেতে পারে। নাকে সমস্যা থাকলে অনেক সময় দেখা যায় শ্বাসকষ্ট হয়তো ভালো হয় না। এরপর যখন সাইনাসের সমস্যা হবে, রোগী অভিযোগ করবে মাথা ব্যথা নিয়ে। সাইনাসের কারণে কপালে, গালের দিকে, চোখের গোড়ায় ব্যথা হতে পারে। সর্দির সমস্যা তো থাকেই।

মাথাব্যথা সাধারণত তিনটা বা চারটা কারণে হয়। মস্তিষ্কের সমস্যায়, দুশ্চিন্তার কারণে, অনেকের চোখের জন্য মাথা ব্যথা করে, আর নাকের সমস্যার কারণে মাথাব্যথা হয়।

আগে দেখতে হবে মাথাব্যথার শুরুটা কোথা থেকে হলো। এ ছাড়া সাইনাসের ব্যথার সাথে জ্বর থাকে। হয় বেশি জ্বর থাকে বা রাতে গা গরম গরম থাকে। চোখের সমস্যা হলে সাধারণত জ্বর থাকে না। মস্তিষ্কের সমস্যাতেও সাধারণত জ্বর থাকে না।

প্রশ্ন : সাইনাসের সমস্যায় চিকিৎসা কি হয়?

উত্তর : নাকের সমস্যার একটি বড় কারণ দূষণ। ধুলাবালুর কারণে সমস্যা হয়। বাইরের ধুলাবালুকে আমরা হয়তো কিছু করতে পারি না। তবে বাসার যেটা সেটা পরিষ্কার করতে হবে। বাসার ময়লাটাকে আমরা হয়তো এড়িয়ে যাই। দেখবেন কার্পেট রেখে দিয়েছে। সোফার মধ্যে হয়তো ধুলা জমে রয়েছে। ধুলার মধ্যে মাইট থাকে। এগুলো থেকে যে লালা, বর্জ্য বের হয় এর কারণে সমস্যা তৈরি করে। এগুলো এলার্জেন।

অনেক রোগীকে দেখবেন সকালে ঘুম থেকে উঠে মাথা ধরে থাকে বা হাঁচি হয়। এর কারণ লেপ তোশক কম্বলের মাইট থাকা।

কার্পেট, সোফা যতটা সম্ভব এড়িয়ে যাওয়া উচিত। এ ছাড়া লেপ তোশককে যদি রোদে দেওয়া হয়, তবে ভালো হয়। মাইটকে মারা সম্ভব নয়। এগুলো দূর করতে নিজেদের সচেতন থাকতে হবে।

প্রশ্ন : সাইনাসের সমস্যা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকলে জটিলতা কতটুকু হতে পারে?

উত্তর : জ্বর জ্বর থাকবে। একধরনের দুর্বলতা থাকবে। সাইনাসের আশপাশে চোখ, মস্তিষ্ক এগুলো আছে। সংক্রমণ হলে এসব জায়গায় চলে যেতে পারে। তবে এগুলো তেমন হয় না। সাইনাসে মাথা ভারী ভারী লাগে। শরীর দুর্বল লাগবে। কাজে মনোযোগ দিতে অসুবিধা হবে।

প্রশ্ন : সাধারণ ওষুধে কি সম্পূর্ণ সুস্থ হয়?

উত্তর : ধুলাবালু থেকে দূরে থাকতে হবে। নাকে কিছু ওষুধ ব্যবহার করা হয়। নাকে যে ফোলাটা হয়েছে, সেটা যদি কমিয়ে দিতে পারি। তাহলে পথটা খুলে যাবে। একবার যদি নাকের পথটা খুলে যায় তখন সাইনাসের পথটাও পরিষ্কার হয়ে যাবে। তাই আগে নাকের পথকে খুলতে হবে। এ জন্য মেডিসিন দেওয়া হয়। মেডিসিনেই সুস্থ হয়ে যায়।

প্রশ্ন : সার্জারি পর্যন্ত কি যাওয়ার দরকার পড়ে?

উত্তর : সার্জারি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দরকার হয় না। মাঝে মাঝে দরকার হয়। দরকার হলে করতে হবে। সার্জারি হলো শরীরকে ভালো করার জন্য। উন্নতি করার জন্য ঝুঁকি নিয়ে অস্ত্রোপচার করার কোনো মানে হয় না। আর সার্জারি এখন বেশ সহজ হয়ে গেছে, মৃত্যুর কোনো কারণই নেই।

প্রশ্ন : অনেকে নাকের সার্জারি করতে ভয় পান সৌন্দর্যের জন্য…

উত্তর : সৌন্দর্য নষ্ট হওয়ার কোনো কারণ নেই এসব সার্জারিতে। যদি বসেও যায় বা বোঁচা হয়ে যায় কোনো কারণে সঙ্গে সঙ্গে উঠিয়ে দেব। কাজেই রাইনোপ্লাস্টি সার্জারি করা হলে নাকের সৌন্দর্য নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা নেই।

 

-আ/বি , ডেইলি টাইমস ২৪

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button