খেলাধুলা

ঘরের মাঠে বাড়ির ছেলে উঠবে জ্বলে

স্পোর্টস ডেস্ক,১৪ জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪):  ঘুরে ফিরে আবারও চট্টগ্রামে বাংলাদেশের ক্রিকেট। ২০১৪ সালের ২৩ নভেম্বরের পর বুধবার আবারও চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের মাঠে নামবে বাংলাদেশ। এবার প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা। এ মাঠে শেষবার জিম্বাবুয়েকে নিজেদের সামনে দাঁড়াতেই দেয়নি বাংলাদেশ। সেদিন ৬৮ রানে জয় পেয়েছিল টাইগাররা। চট্টগ্রামে শেষ জয়ের আত্মবিশ্বাস আর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঢাকায় পাওয়া জয় নিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী এখন টাইগার শিবির। এ জন্য আনন্দ আর উৎসবের রঙে ছেয়ে গেছে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম।

কিন্তু সেই উৎসবের ক্যানভাস এখন খানিকটা বিবর্ণ! কারণ, চট্টলার ক্যানভাসে হাজার রঙের ছড়াছড়ি থাকলেও নেই বহুচেনা আর পছন্দের প্রিয়মুখ তামিম ইকবালের কোনো ছবি। যার রঙে বাংলাদেশ রঙিন হয়েছে বহুবার। তামিম এনে দিয়েছেন বাঁধভাঙা উৎসবের আমেজ। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে তামিম নেই তার আপন ছন্দে! বন্দরনগরীতে তাই উৎসবের আমেজ কিছুটা বিবর্ণ হলেও উৎসাহ আর উদ্দীপনার অভাব নেই।
বিশ্বকাপের পর পাকিস্তান সিরিজে টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি এবং পরেরটিতে হাফসেঞ্চুরি স্বাদ নেন তামিম। এরপর ভারতের বিপক্ষে আরেকটি হাফসেঞ্চুরি। পাকিস্তান ও ভারতের বিপক্ষে চার ইনিংসে তামিমের ব্যাট থেকে এসেছে ১৩২,১১৬,৬৪ এবং ৬০ রান। এরপর ভারতের বিপক্ষে শেষ দুই ম্যাচ ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজের দুই ম্যাচ; এই শেষ চার ইনিংসে তামিমের রান মাত্র ১৩,৫,০ এবং ৫। হঠাৎই যেনো নিজেকে হারিয়ে বসেছেন তিনি। এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই টি-টোয়েন্টিতে তার রান মাত্র ৫ ও ১৩। সব মিলিয়ে রঙিন জার্সিতে শেষ ছয় ইনিংসে তামিমের রান মাত্র ৪১। যা তামিমের নামের সঙ্গে বড়ই বেমানান!
তবে তামিমের এই সময়টাকে অফফর্ম বলতে রাজী নন তার বড় ভাই নাফিস ইকবাল। রাইজিংবিডি’র এক প্রশ্নের জবাবে নাফিস বলেন,‘আমি ওর (তামিম) সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সকে কখনোই অফফর্ম বলবো না। কারণ কিছুদিন আগেই ও পরপর দুটি সেঞ্চুরি করল। আর দুটি ম্যাচে খারাপ করলো বলেই অফফর্ম হয়ে গেল?’ নাফিস আরো বলেন, ‘শচীন টেন্ডুলকার কতগুলো ম্যাচ খেলেছে? আর উনার কতগুলো সেঞ্চুরি আছে? প্রতি ম্যাচে কি সেঞ্চুরি করেছে? তাহলেতো যতগুলো ম্যাচ খেলেছে প্রতি ম্যাচ শেষেই ওনার নামের পাশে সেঞ্চুরি থাকত। বিরাট কোহলি কি আমাদের এখানে এসে বাজে খেলেনি? হাশিম আমলা কি প্রথম দুই ম্যাচে রান করেছে? ওনারা কি অফফর্মের ক্রিকেটার হয়ে গেলেন? ক্রিকেট খেলাটাই এরকম। কখনো রান পাওয়া যাবে, আবার কখনো পাওয়া যাবে না।’
এই ম্যাচের মাধ্যমে ঘরের মাঠে আবারও ফিরেছে ঘরের ছেলে। স্বাভাবিকভাবেই স্টেডিয়ামের বাইশ হাজার দর্শকের নয়নের মণি থাকবেন তামিম। ক্রিকেটপ্রেমিদের প্রতিটি চিৎকারের শুরুই হবে তামিমের নাম নিয়ে। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড তামিমের দখলে। ১২ ইনিংসে ৩৫.৫৪ গড়ে ৩৯১ রান করেছেন দেশ সেরা এই ওপেনার। সর্বোচ্চ ৯৫। সেই তামিম কি চট্টগ্রামে আবারও জ্বলে উঠবেন না? প্রশ্নের উত্তরটা নাফিস ইকবাল দিলেন এভাবে,‘তামিমের জন্যে মাঠ কোনো বিষয় না। পৃথিবীর সব মাঠে ভালো খেলার সামর্থ্য ও যোগ্যতা ওর আছে। তামিম এখন বেশ পজিটিভ আছে। ওর স্বাভাবিক খেলাটাই খেলছে। আউট হয়ে গেলেও খেলার ধরনের কোনো পরিবর্তন আনছে না। এভাবে খেলতে থাকলেই বড় স্কোর করবে। আশা করছি চট্টগ্রামে ওর যে রেকর্ড আছে সেটা আরও সমৃদ্ধ করতে পারবে সে।’

-আ/বি , ডেইলি টাইমস ২৪

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button