আন্তর্জাতিক

বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর কাছ থেকে ৩ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার

ঢাকা, জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪):

বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর পরিচয়ে স্বর্ণ পাচারকারীকে গ্রেফতার করেছে কলকাতার শুল্কগোয়েন্দারা। তার কাছ থেকে তিন কেজি স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছে।

জানা গেছে, হাসান নামের এক ব্যক্তি ‘বৌদ্ধ সন্ন্যাসী’ পরিচয়ে মাথা থেকে পা পর্যন্ত ঢেকে এবং মুখে কাপড় বেধে চলাচল করতেন। সাধারণ লোকজনের সাথে কথা বলছিলেন না তিনি। তাকে ঘিরে আরো চার ‘সন্ন্যাসী’ একই পোশাকে চলাচল করতেন। অন্যরা অবশ্য কথা বলছিলেন। তারাই লোকজনকে বলেন, তিনি ‘মৌনী সন্ন্যাসী’ এবং তাদের দলের প্রধান।

মঙ্গলবার ভোরে ব্যাঙ্কক থেকে কলকাতায় ইন্ডিগোর বিমান নামার সময়  পাঁচ সন্ন্যাসী বিমানবন্দরের বাইরে যেতে ছিলেন। এসময় শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তাগণ সন্ন্যাসীদের প্রধানের সাথে  কথা বলার চেষ্টা করেন। কিন্তু তখনই হাঁ হাঁ করে ওঠেন বাকি চার জন। তারা জানান, প্রবীণ বৌদ্ধ সন্ন্যাসী ধ্যানে রয়েছেন। কাজেই এখন তাকে কোনো ভাবে বিরক্ত করা যাবে না।

প্রধান সন্ন্যাসীর ডান হাতে তখন জপের থলি। তর্জনী থেকে হাত সেই থলির ভিতরে ঢোকানো ছিল। কিন্তু শুল্ক গোয়েন্দাগণ কিছুতেই সন্তুষ্ট হতে পারছিলেন না। একে তো যত সব সোনা পাচার হচ্ছে সবই ব্যাঙ্কক থেকে। তার উপরে আবার প্রবীণ সন্ন্যাসীর ধারে কাছেও ঘেষতে দিচ্ছেন না অন্য চার জন সন্ন্যাসী। ফলে তাদের সন্দেহ ক্রমেই ঘনীভূত হতে থাকে। সাধারণত পাসপোর্ট পরীক্ষা করে না শুল্ক দপ্তর। তা করার কথা অভিবাসন দপ্তরের। কিন্তু ওই প্রবীণ সন্ন্যাসীর পাসপোর্ট চেয়ে নেন শুল্ক অফিসারেরা। আর তা দেখেই চোখ ছানাবড়া অফিসারদের। পাসপোর্টে বৌদ্ধ সন্ন্যাসীর নাম লেখা হাসান গনি। বাড়ি চেন্নাই। বাকি চার জনের পাসপোর্ট থেকেও বেরিয়ে পড়ে মুসলিম নাম। দেখা যায়, তারাও চেন্নাইয়েরই বাসিন্দা। শুরুহয় তল্লশি। দলের প্রধান মৌনী সন্ন্যাসীর কাছে থাকা চামড়া দিয়ে তৈরি জপের থলি থেকেই বেরিয়ে পড়ে সোনা। বিস্কুট ছাড়াও মেলে ২২ ক্যারেটের হার। প্রায় তিন কিলোগ্রাম ওই সোনার দাম ৭০ লক্ষ রুপির কাছাকাছি বলে জানিয়েছে শুল্ক দপ্তর।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সন্ন্যাসীর ছদ্মবেশে এলে শুল্ক দফতর ‘বিরক্ত’ করবে না বলে তাদের ধারণা ছিল। তারা ভেবেছিলেন, জপের থলির সঙ্গে ধর্মীয় ভাবাবেগ জড়িয়ে থাকে। সেখানে তল্লাশি করতে সাহস পাবেন না শুল্ক অফিসারেরা। তার উপরে যার কাছে সোনা ছিল, তিনি যদি ধর্মের দোহাই দিয়ে মৌনী সেজে থাকেন, তা হলে আর তাকে জিজ্ঞাসাবাদও করা যাবে না। সব পরিকল্পনা অবশ্য বানচাল হয়ে যায়। হাসান গনিকে গ্রেফতার করে বারাসত আদালতে তোলা হয়েছিল। আপাতত তাকে জেলে রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। অন্য চার জনের কাছ থেকে কিছু না পাওয়ায় তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা, জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪),বা/খ:

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button