ধর্ম ও জীবন

জেনে নিন একশতটি কবীরা গুনাহ !

ইসলামিক ডেস্ক, ১৯জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪): পবিত্র কোরান শরিফে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন – তোমরা যদি সেই মহা পাপ সমূহ থেকে বিরত থাকতে পারো, যাহা হইতে তোমাদেরকে নিষেধ করা হয়েছে, তাহলেই আমি তোমাদের অপরাধ ক্ষমা করবো এবং তোমাদেরকে সন্মানপ্রদ গন্তব্যস্থানে প্রবিষ্ট করবো। (সূরা নিসা-আয়াত৩১)

যে সকল কাজ আল্লাহ ও তার রসুল (সঃ) কতৃক হারাম হওয়ার অকাট্য দলীল পাওয়া যায় সে গুলিই কবিরা গুনাহ৷

 

আসুন জেনে নেই ১০০ টি কবীরা গুনাহ সমূহঃ

১/ আল্লাহর সাথে শিরক করা

২/ নামায পরিত্যাগ করা

৩/  পিতা-মাতার অবাধ্য হওয়া

৪/ অন্যায়ভাবে মানুষ হত্যা করা

৫/পিতা-মাতাকে অভিসম্পাত করা

৬/যাদু-টোনা করা

৭/এতীমের সম্পদ আত্মসাৎ করা

৮/ জিহাদের ময়দান থেকে থেকে পলায়ন

৯/ সতী-সাধ্বী মু‘মিন নারীর প্রতি অপবাদ

১০/রোযা না রাখা

১১/ যাকাত আদায় না করা

১২/ক্ষমতা থাকা সত্যেও হজ্জ আদায় না করা

১৩/যাদুর বৈধতায় বিশ্বাস করা

১৪/প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়া

১৫/অহংকার করা

১৬/চুগলখোরি করা (ঝগড়া লাগানোর উদ্দেশ্যে একজনের কথা আরেকজনের নিকট লাগোনো)

১৭/আত্মহত্যা করা

১৮/ আত্মীয়তা সম্পর্ক ছিন্ন করা

১৯/ অবৈধ পথে উপার্জিত অর্থ ভক্ষণ করা

২০/ উপকার করে খোটা দান করা

২১/ মদ বা নেশা দ্রব্য গ্রহণ করা

২২/ মদ প্রস্তুত ও প্রচারে অংশ গ্রহণ করা

২৩/ জুয়া খেলা

২৪/ তকদীর অস্বীকার করা

২৫/ অদৃশ্যের খবর জানার দাবী করা

২৬/ গণকের কাছে ধর্না দেয়া বা গণকের কাছে অদৃশ্যের খবর জানতে চাওয়

২৭/ পেশাব থেকে পবিত্র না থাকা

২৮/ রাসূল (সা:)এর নামে মিথ্যা হাদীস বর্ণনা করা

২৯/ মিথ্যা স্বপ্ন বর্ণনা করা

৩০/ মিথ্যা কথা বলা

৩১/ মিথ্যা কসম খাওয়া

৩২/ মিথ্যা কসমের মাধ্যমে পণ্য বিক্রয় করা

৩৩/ জিনা-ব্যভিচারে লিপ্ত হওয়া

৩৪/ সমকামিতায় লিপ্ত হওয়া

৩৫/ মানুষের গোপন কথা চুপিসারে শোনার চেষ্টা করা

৩৬/হিল্লা তথা চুক্তি ভিত্তিক বিয়ে করা।

৩৭/যার জন্যে হিলা করা হয়

৩৮/মানুষের বংশ মর্যাদায় আঘাত হানা

৩৯/ মৃতের উদ্দেশ্যে উচ্চস্বরে ক্রন্দন করা

৪০/ মুসলিম সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন থাকা

৪১/  মুসলিমকে গালি দেয়া অথবা তার সাথে লড়ায়ে লিপ্ত হওয়া

৪২/ খেলার ছলে কোন প্রাণীকে নিক্ষেপ যোগ্য অস্ত্রের লক্ষ্য বস্তু বানানো

৪৩/ কোন অপরাধীকে আশ্রয় দান করা

৪৪/আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নামে পশু জবেহ করা

৪৫/ ওজনে কম দেয়া

৪৬/ ঝগড়া-বিবাদে অশ্লীল ভাষা প্রয়োগ করা

৪৭/ ইসলামী আইনানুসারে বিচার বা শাসনকার্য পরিচালনা না করা

৪৮/ জমিনের সীমানা পরিবর্তন করা বা পরের জমি জবর দখল করা

৪৯/ গীবত তথা অসাক্ষাতে কারো দোষ চর্চা করা

৫০/ দাঁত চিকন করা

৫১/ সৌন্দর্যের উদ্দেশ্যে মুখ মণ্ডলের চুল তুলে ফেলা বা চুল উঠিয়ে ভ্রু চিকন করা

৫২/ অতিরিক্ত চুল সংযোগ করা

৫৩/  পুরুষের নারী বেশ ধারণ করা

৫৪/ নারীর পুরুষ বেশ ধারণ করা

৫৫/বিপরীত লিঙ্গের প্রতি কামনার দৃষ্টিতে তাকানো

৫৬/ কবরকে মসজিদ হিসেবে গ্রহণ করা

৫৭/ পথিককে নিজের কাছে অতিরিক্ত পানি থাকার পরেও না দেয়া

৫৮/ পুরুষের টাখনুর নিচে ঝুলিয়ে পোশাক পরিধান করা

৫৯/ মুসলিম শাসকের সাথে কৃত বাইআত বা আনুগত্যের শপথ ভঙ্গ করা

৬০/ ডাকাতি করা

৬১/ চুরি করা

৬২/সুদ লেন-দেন করা, সুদ লেখা বা তাতে সাক্ষী থাকা

৬৩/ ঘুষ লেন-দেন করা

৬৪/ গনিমত তথা জিহাদের মাধ্যমে কাফেরদের নিকট থেকে প্রাপ্ত সম্পদ বণ্টনের পূর্বে আত্মসাৎ করা

৬৫/ স্ত্রীর পায়ু পথে যৌন ক্রিয়া করা

৬৬/জুলুম-অত্যাচার করা

৬৭/ অস্ত্র দ্বারা ভয় দেখানো বা তা দ্বারা কাউকে ইঙ্গিত করা

৬৮/ প্রতারণা বা ঠগ বাজী করা

৬৯/ রিয়া বা লোক দেখানোর উদ্দেশ্যে সৎ আমল করা

৭০/ স্বর্ণ বা রৌপ্যের তৈরি পাত্র ব্যবহার করা

৭১/ পুরুষের রেশমি পোশাক এবং স্বর্ণ ও রৌপ্য পরিধান করা

৭২/ সাহাবীদের গালি দেয়া

৭৩/ নামাযরত অবস্থায় মুসল্লির সামনে দিয়ে গমন করা

৭৪/ মনিবের নিকট থেকে কৃতদাসের পলায়ন

৭৫/ ভ্রান্ত মতবাদ জাহেলী রীতিনীতি অথবা বিদআতের প্রতি আহবান করা

৭৬/ পবিত্র মক্কা ও মদীনায় কোন অপকর্ম বা দুষ্কৃতি করা

৭৭/ কোন দুষ্কৃতিকারীকে প্রশ্রয় দেয়া

৭৮/ আল্লাহর ব্যাপারে অনধিকার চর্চা করা

৭৯/ বিনা প্রয়োজনে তালাক চাওয়া

৮০/ যে নারীর প্রতি তার স্বামী অসন্তুষ্ট

৮১/ স্বামীর অবাধ্য হওয়া

৮২/ স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর অবদান অস্বীকার করা

৮৩/ স্বামী-স্ত্রীর মিলনের কথা জনসম্মুখে প্রকাশ করা

৮৪/ স্বামী-স্ত্রীর মাঝে বিবাদ সৃষ্টি করা

৮৫/ বেশী বেশী অভিশাপ দেয়া

৮৬/ বিশ্বাস ঘাতকতা করা

৮৭/ অঙ্গীকার পূরণ না করা

৮৮/ আমানতের খিয়ানত করা

৮৯/ প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়া

৯০/ ঋণ পরিশোধ না করা

৯১/ বদ মেজাজি ও এমন অহংকারী যে উপদেশ গ্রহণ করে না

৯২/ তাবিজ-কবজ, রিং, সুতা ইত্যাদি ঝুলানো

৯৩/ পরীক্ষায় নকল করা

৯৪/ ভেজাল পণ্য বিক্রয় করা

৯৫/ ইচ্ছাকৃত ভাবে জেনে শুনে অন্যায় বিচার করা

৯৬/ আল্লাহ বিধান ব্যতিরেকে বিচার-ফয়সালা করা

৯৭/ দুনিয়া কামানোর উদ্দেশ্যে দীনী ইলম অর্জন করা

৯৮/ কোন ইলম সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে জানা সত্যেও তা গোপন করা

৯৯/ নিজের পিতা ছাড়া অন্যকে পিতা বলে দাবী করা

১০০/ আল্লাহর রাস্তায় বাধা দেয়া ।

 

আসুন আমরা সবাই যাতে সকল প্রকার কবিরা গুনাহ থেকে হেফাজত থাকতে পারি এবং আমাদের জানা-অজানা সকল গুনাহ থেকে ক্ষমা পাওয়ার জন্য মহান আল্লাহ্‌ সুবহানাহু তায়ালার নিকট সর্বদায় তওবা করবো এই হোক আমাদের প্রত্যয়।

-কা/ফা/শা, ডেইলি টাইমস ২৪

 

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button