জাতীয়

ভোটার তালিকায় ১২ ভাগ নারী ভোটার গায়েব:সুজন

ঢাকা, ২৫  জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪):

ভোটার তালিকা হালনাগাদ প্রক্রিয়ায় নির্বাচন কমিশনের কিছু ত্রুটি তুলে ধরে এ বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)।

আজ শনিবার থেকে তৃতীয়বারের মতো ভোটার তালিকা হালনাগাদ প্রক্রিয়া শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে  ‘ভোটার তালিকা হালনাগাদ, জেন্ডার গ্যাপ ও আরো কিছু প্রশ্ন’ শীর্ষক আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সুজনের সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ‘২০০৮ সালের হালনাগাদ ভোটার তালিকা অনুযায়ী পুরুষ ভোটারের চেয়ে নারী ভোটার ১৪ লাখ ১৩ হাজার ৬০০ জন বেশি ছিল। কিন্তু ২০১৩ সালের তালিকা অনুযায়ী পুরুষ ভোটারের চেয়ে নারী ভোটার ২ লাখ ৯১ হাজার ৩৯৯ জন ছিল কম। ২০১৫ সালের খসড়া হালনাগাদ হওয়া তালিকায় নারী ভোটারের সংখ্যা পুরুষ ভোটারের তুলনায় ৭ লাখ ৪ হাজার ৬৩২ জন কম।’

তিনি বলেন, ‘কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সারসংক্ষেপ থেকে দেখা যায়, সর্বশেষ চূড়ান্ত তালিকা অনুযায়ী ২০১৪ সাল পর্যন্ত নুতুন ভোটারের মধ্যে নারী ভোটারের সংখ্যা পুরুষ ভোটার থেকে ৫ লাখ ৬৩ হাজার ৩৬২ জন কম এবং জেন্ডার গ্যাপ ১২ শতাংশ।’

বাংলাদেশের জনসংখ্যায় নারী-পুরুষের যে বিভাজন তার সঙ্গে নতুন ভোটার তালিকায় জেন্ডার গ্যাপের কোনো মিল নেই। নারী পুরুষের মধ্যে ১২ শতাংশ জেন্ডার গ্যাপের যৌক্তিকতা প্রশ্নবিদ্ধ বলেও জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে নারী নেত্রী সালমা খান বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শ্রীলঙ্কার পরই বাংলাদেশের নারীদের আয়ুষ্কাল বেশি। তাহলে ভোটার তালিকায় ঐ নারীগুলো গেলো কোথায়?’

জেন্ডার গ্যাপের প্রধান কারণ বাড়ি বাড়ি গিয়ে তালিকা হালনাগাদ না করা মন্তব্য করে তিনি আরো বলেন, ‘এভাবে নারী ভোটার কমে এলে অনেক নারী ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হবে এবং উন্নয়নে নারী বান্ধব প্রকল্পও কমে আসবে।’

বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ‘ভোটার তালিকা আইন ২০০৯ এর ধারা ৭ (১) (খ) অনুযায়ী শুধুমাত্র ১৮ বছর বয়স্ক নাগরিকরাই ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন এবার ১৫-১৭ বছর বয়স্কদের নিবন্ধন করছে। কী উদ্দেশ্যে এটা করা হচ্ছে তা বোধগম্য নয়।’

১৫-১৭ বছর বয়সী নাগরিকদের নিবন্ধন করা হলে এরা যে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবে না বা দুই বার ভোটার হবে না তার নিশ্চয়তা নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘১৮ বছরের আগে ভোটার হওয়ার আইনগত ভিত্তি নেই। তারা কি ভোটার হচ্ছে নাকি শুধু পরিচয়পত্রের জন্য নিবন্ধিত হচ্ছে?’

আইনের ১১ (১) ধারা অনুসারে প্রতি বছরের ২ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনার বাধ্যবাধকতা রয়েছে উল্লেখ করে বদিউল আলম বলেন, ‘কিন্তু কমিশন জুলাই থেকে এ কার্যক্রম শুরু করছে। এ ধরনেরর বিলম্ব আইনের সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে দেশের কোনো কোনো জেলায় বন্যার পূর্বাভাস পাওয়া গেছে। বন্যার কারণে যদি কেউ নিজ বাড়ি-ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নেয়, তাহলে তাদের মধ্যে অনেকে বাদ পড়ে যাবে।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে ‘গোঁজামিল কমিশন’ মন্তব্য করে বিশিষ্ট কলামিস্ট ও সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, ‘গত কয়েকটা নির্বাচনে এই কমিশন সঠিকভাবে দায়িত্ব পারন করেনি। এর পর থেকে এই কমিশনের আওতায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কিনা সন্দেহ আছে।’

ছাত্রলীগ-যুবলীগের হাতে নির্বাচনের দায়িত্ব দিলেও এ নির্বাচন কমিশনের চেয়ে ভালো নির্বাচন হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে ভোটার তালিকা পুননিরীক্ষাসহ নির্বাচন কমিশন পুর্নগঠন করতে হবে বলেও মনে করেন আবুল মকসুদ।

এ কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু ভোটার তালিকা পাওয়া সম্ভব কিনা সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমরা একটা সুষ্ঠু ভোটার তালিকা চাই, কিভাবে করবে সেই দায়-দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের।’

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন- সুজন সভাপতি সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, নারীনেত্রী নাসিম ফেরদৌস প্রমুখ।

 

ঢাকা, ২৫  জুলাই(ডেইলি টাইমস ২৪),বা/খ:

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button