বিনোদন

টাকার অভাবে রাস্তায় রাত কাটাতেন অমিতাভ-মিঠুন

ঢাকা, ২৪ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

অভিনয়ের প্রয়োজনে নায়ক-নায়িকাদের বিভিন্ন চরিত্রে অংশ নিতে দেখা যায়। কখনও চোরের ভূমিকায়। আবার কখনও পুলিশের ভূমিকায়। কেউ আবার অভিনয় করেন হোটেল বয়ের চরিত্রে।

এসব নায়ক-নায়িকারা হঠাৎ করেই অভিনয় জীবনে আসেননি। চলচ্চিত্র জগতে তাদের প্রতিষ্ঠা পাওয়ার আগের জীবনটাও ছিল দুর্বিষহ।

অভিনয় দিয়ে বর্তমান সময়ে যারা নিজেদের নিযে গেছেন উচ্চাসনে তাদের অতীত জীবন সম্পর্কে জানলে অনেকেই অবাক হবেন। তবে মনে যদি দৃঢ় বল থাকে তাহলে কোনও বাধা চলার পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেতে পারে না। তারই উদাহরণ এসব নায়ক নায়িকারা।

বলিউডের এমন কিছু নায়ক-নায়িকাদের অতীত জীবন নিয়ে যুগান্তরের পাঠকদের জন্য আজকের এই আয়োজন

অমিতাভ বচ্চন: নব্বইয়ের দশক থেকে বলিউড শাসন করছেন অমিতাভ বচ্চন। কিন্তু প্রথম যখন এলাহাবাদ থেকে মুম্বাই এসেছিলেন তার কাছে বাড়ি ভাড়া করারও টাকা ছিল না। ফলে মেরিন ড্রাইভের বেঞ্চে শুয়েই কাটাতে হয়েছে বহু রাত।

শাহরুখ খান: ইন্ডাস্ট্রিতে আসার আগে বিভিন্ন রকম কাজ করতেন শাহরুখ খান। পয়সার জন্য টিকিট কাউন্টারে দাঁড়িয়ে ‘কভি হাঁ কভি না’ ছবির টিকিটও বিক্রি করেছেন তিনি।

অক্ষয় কুমার: শুনলে অবাক হবেন একসময় অক্ষয় কুমার ব্যাংককে ওয়েটারের কাজ করতেন। এমনকী শোওয়ার জায়গার অভাবে রেস্তোরাঁর রান্নাঘরের মেঝেতেই তাকে ঘুমতে হত।

রজনীকান্ত: রজনীকান্ত। এখন সাউথ ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির হায়েস্ট পেড অভিনেতা। কিন্তু একসময় অতিরিক্ত অর্থের জন্য বাস কন্ডাক্টর এবং কুলির কাজও করেছেন তিনি।

রাখি সাবন্ত: ছোট থেকে দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করেছেন বলিউডের ড্রামা কুইন রাখি সাবন্ত। ১০ বছর বয়স থেকে হোটেলে খাবার সার্ভ করে পয়সা রোজগার করতেন। পরে নাচকে পেশা হিসেবে নেন এবং বলিউডে সুযোগ পান। বদলে যায় তার জীবন।

মিঠুন চক্রবর্তী: টলিউড থেকে বলিউড গিয়েছিলেন হিরো হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে। কিন্তু পয়সার অভাবে প্রথম দিকে বেশ কিছুদিন মুম্বইয়ের রাস্তায় থাকতে হয়েছিল মিঠুন চক্রবর্তীকেও।

রাকেশ ওমপ্রকাশ: বলিউডের জনপ্রিয় পরিচালক রাকেশ ওমপ্রকাশ মেহেরা। কিন্তু ছবি পরিচালনায় আসার আগে কখনও চা, আবার কখনও বা ভ্যাকুয়ম ক্লিনার বিক্রি করে নিজের খরচ চালাতেন।

নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি: পয়সার অভাবে এক সময় সিকিউরিটি গার্ডের কাজ করতে বাধ্য হয়েছিলেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি।

বোমান ইরানি: ছোট থেকে মাকে বেকারি চালাতে সাহায্য করতেন বোমান ইরানি। পরে মুম্বাইয়ের তাজ হোটেলে ওয়েটারের কাজও করেছেন। বলিউডে অভিনয়ের সুযোগ পাওয়ার পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

মেহমুদ: মেহমুদ তার অভিনয় দক্ষতা দিয়ে দীর্ঘ সময় বলি পাড়ায় রাজত্ব করেছেন। কিন্তু বেঁচে থাকার জন্য একসময় ড্রাইভারের কাজ করতে বাধ্য হয়েছিলেন এই জাত শিল্পী।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button