আইন ও আদালত

নিখোঁজ তিনযুবকের পরিবারও নিখোঁজ

ঢাকা, ১৩ জুলাই, (ডেইলি টাইমস ২৪): গুলশানের জঙ্গি হামলার পর আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নিখোঁজ যে ১০ যুবকের তালিকা দেওয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে ঢাকার তিনজনের পরিবারের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

নিখোঁজ ইব্রাহিম হাসান খান ও জুনায়েদ খানের বাসা বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায়। আর আশরাফ মোহাম্মদ ইসলাম পান্থপথের একটি ফ্ল্যাটে পরিবারের সঙ্গে থাকতেন।

মঙ্গলবার এই দুই বাসায় গিয়ে পরিবারগুলোর কাউকে পাওয়া যায়নি। ভবনের নিরাপত্তাকর্মী ও প্রতিবেশীরা বলছেন, তারা বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন। তারা কোথায় আছেন সে বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছ থেকে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

আশরাফের বাসা পান্থপথের একটি বহুতল ভবনের এক ফ্ল্যাটে। বিকালে ওই ভবনে গিয়ে খোঁজ করলে জানা যায়, কেউ বাসায় নেই।

ওই ভবনের এক নিরাপত্তারক্ষী বলেন, আশরাফ প্রায় এক বছর এ বাড়িতে আসেন না। তবে তার বাবা-মা ও বোন থাকতেন। ঈদের আগে তারাও দেশের বাইরে চলে গেছেন।

এই ভবনের ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিজু আহমেদ বলেন, নিখোঁজ ১০ যুবকের মধ্যে আশরাফ আছেন বলে তিনি জেনেছেন। তবে তাকে তিনি চেনেন না। আশরাফের বাবা একজন আইনজীবী এবং ফ্ল্যাট মালিকদের সভায় তিনি আসেন। এর বেশি তাদের সাথে আর কোনো সম্পর্ক নেই।

আশরাফের পরিবারের সদস্যদের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে কলাবাগান থানার ওসি মো. ইকবাল বলেন, এ বিষয়ে তার কিছু জানা নেই।

অন্যদিকে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার বাসিন্দা দুই ভাই ইব্রাহিম ও জুনায়েদের পরিবার বছরখানেক ধরে বিদেশে বলে ওই ভবনের ফ্ল্যাট মালিক সমিতির সহ-সভাপতি শাহাদত হোসেন বাচ্চু জানান।

তিনি মঙ্গলবার বলেন, ইব্রাহিম ও জুনায়েদের বাবা মুনির হাসান খান সৌদি আরবে থাকতেন। প্রায় এক বছর ধরে মনির হাসান খানের পরিবার দেশের বাইরে রয়েছেন। একবার মনির সাহেবের সঙ্গে তার দুই ছেলেকে দেখেছিলাম।

তাদের শারীরিক বর্ণনায় তিনি বলেন, তিনি (মনির) দেখতে বেশ লম্বা, মুখে দাঁড়ি আছে। ছেলেরাও তার মতই লম্বা ও সুস্বাস্থ্যের অধিকারী। তারা বেশিদিন ঢাকায় থাকতেন না।

ওই ভবনের কেয়ারটেকার আবদুর রহমান জানান, মনির হোসেনের মেয়ের জামাতা পরিচয়ে এক ব্যক্তি গত এপ্রিলে ফ্ল্যাটের সার্ভিস চার্জের টাকা দিয়ে গেছেন। মে ও জুন মাসের সার্ভিস চার্জের টাকা এখনও দেওয়া হয়নি।

মো. তসলিম নামে সেখানকার এক নিরাপত্তারক্ষী বলেন, ওই ফ্ল্যাটের লোকজন প্রায় এক বছর হবে বাসায় নেই। আগে সেখানে একজন মহিলা তার ছেলেকে নিয়ে থাকতেন। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে অস্ট্রেলিয়া থাকে বলে শুনেছি। তার ছেলে-মেয়েরা বাসায় থাকলে তেমন কারো সঙ্গে মিশত না।

গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় ১৭ বিদেশিসহ অন্তত ২২ জন নিহত হন। ওই হামলায় অংশ নেওয়া পাঁচ জঙ্গি কয়েক মাস ধরে নিখোঁজ ছিলেন বলে তাদের পরিবারের ভাষ্য।

এরপর বেশ কিছুদিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন এমন ১০ যুবকের নাম ও ছবি প্রকাশ করেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা। তাদের মধ্যে লক্ষ্মীপুরের এ টি এম তাজউদ্দিন কাউসার অস্ট্রেলিয়ায় থাকতেন বলে তার পরিবার জানিয়েছে।

আর ধর্মান্তরিত মুসলিম মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ ওজাকি জাপান প্রবাসী ছিলেন বলে তার পরিচিতরা জানিয়েছেন।

তারা বলছেন, সিলেট ক্যাডেট কলেজের সাবেক ছাত্র সজিত দেবনাথ ২০০১ সালে জাপান যাওয়ার পর সেখানে স্থায়ী হন এবং সেখানেই তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে ওই নাম নেন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button