জাতীয়

মহেশখালিতে এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে চুক্তি সই

ঢাকা, ১৯ জুলাই, (ডেইলি টাইমস ২৪):

উদ্যোগের সাত বছর পর চট্টগ্রামের মহেশখালীতে দেশের প্রথম ভাসমান লিকুইফাইড ন্যাচারাল গ্যাস (এলএনজি) টার্মিনাল নির্মাণ এবং এর ব্যবহারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের এক্সিলারেন্ট এনার্জি লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি সই হয়েছে।

সোমবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যায় পেট্রোবাংলা ভবনে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের উপসচিব জনেন্দ্র নাথ সরকার ও পেট্রোবাংলার পক্ষ থেকে পেট্রোবাংলার সচিব সৈয়দ আশফাকুজ্জামান এবং এক্সিলারেন্ট এনার্জি লিমিটেডের প্রধান উন্নয়ন কর্মকর্তা ডেনিয়াল বুস্ট দুটি চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেছেন, ‘শিল্প প্রতিষ্ঠানের চাহিদা পূরণে এই এলএনজি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। অর্থনৈতিক চাকা সচল রাখতে জ্বালানি সরবরাহ অব্যাহত রাখতে হবে।’

তিনি নতুন নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে জ্বালানি সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের আরও আন্তরিক হতে অনুরোধ জানান।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ‘গ্যাসের বিকল্প হিসেবে এলএনজি আমদানি করা হচ্ছে। আমাদের অর্থনীতির সক্ষমতা বৃদ্ধির কারণে এলএনজি’র মূল্য অ্যাবজর্ব করা সমস্যা হবে না। প্রতিযোগিতার এ বিশ্বে অন্যান্য দেশ এলএনজি ব্যবহার করতে পারলে আমরাও পারব।’

তিনি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের প্রয়োজনীয় কাজ সম্পন্ন করতে অনুরোধ জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এলএনজি যথাসময়ে আনতে পারলে গ্যাসের উপর চাপ কমবে, যদিও তা যথেষ্ট নয়। আমাদের ক্রমবর্ধমান প্রতিষ্ঠানের গতি স্বাভাবিক রাখতে ৩ হাজার ৫০০ এমএমসিএসডি অতিরিক্ত গ্যাস বা এলএনজি প্রয়োজন। ১০৮টি নতুন কুপ ড্রিলিং করা হচ্ছে, এতেও আমরা ভাল ফল আশা করছি।’

চুক্তি স্বাক্ষরের পর পরই টার্মিনাল নির্মাণকাজ শুরু করবে। আগামী ২০১৮ সালের শুরুতে নবনির্মিত এলএনজি টার্মিনাল হতে গ্যাস সরবরাহ শুরু করা যাবে। এ টার্মিনাল প্রায় ১ লাখ ৩৮ হাজার ঘনমিটার এলএনজি ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন এবং এখান থেকে দৈনিক প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ঘনফুট হারে গ্যাস সরবরাহ করা যাবে।

এলএনজি আমদানির জন্য প্রাথমিকভাবে প্রতি এমএমবিটিইউ এর মূল্য ১৪ মার্কিন ডলার ধারণা করা হলেও বর্তমানে  মূল্যে এলএনজি আমদানি করতে বছরে ১.৫৬ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে। এলএনজি আমদানি ব্যয় (৮ মার্কিন ডলার/ এমএমবিটিইউ) হবে বছরে প্রায় ১.৪৮ বিলিয়ন ডলার এবং ভাসমান টার্মিনাল ব্যবহারের জন্য বছরে প্রায় ৯০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে। ৩ শতাংশ এআইটি ও ১৫ শতাংশ ভ্যাট বাবদ বছরে প্রায় ২ হাজার ২৫৪ কোটি টাকা পরিশোধ করতে হবে।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব নাজিমুদ্দীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে  চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অন্যদ্যের মধ্যে বাংলাদেশে নিযুক্ত আমেরিকার রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট ও পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ইশতিয়াক আহমেদ বক্তব্য রাখেন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button