জেলার সংবাদ

ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার ২য় শ্রেণির ছাত্রী

ঢাকা, ২৪ জুলাই, (ডেইলি টাইমস ২৪):

নরসিংদীর বেলাবতে ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া এক শিশু (৮)।

রোববার বেলা সাড়ে ১২টায় উপজেলার চরবেলাব গ্রামের এই ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অবস্থায় শিশুটিকে প্রথমে বেলাব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নির্যাতিত শিশুটি স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী। তার বাবা একজন প্রবাসী।

নরসিংদী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সৈয়দ আমিরুল হক শামীম বলেন, নির্যাতনের ঘটনায় শিশুটি খুবই আতংকিত। সে এখন মানুষ দেখলেই ভয় পায়। তার ইনজুরি গুরুতর। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। অস্ত্রোপাচার করা হয়েছে।

বিকালে বেলাব থানার ওসি কায়ুম আলী সরদার শিশুটিকে দেখতে নরসিংদী সদর হাসপাতালে যান।

এ সময় ওসিকে ওই শিশু জানায়, সে দুপুরে স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে মায়ের হাতে বই দিয়েই মাঠে ঘুড়ি উড়াতে যায়। এ সময় একই গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে সাদ্দাম হোসেন বাবু (২২) তাকে পাটক্ষেতে নিয়ে পাশবিক নির্যাতন চালায়।

শিশুটির মা জানান, পাটক্ষেত থেকে মেয়ের কান্না শুনে মাঠের লোকজন ছুটে যায়। তারা রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বেলাব উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে নরসিংদী সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করে।

শিশুটির মা কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘মেয়ে আমার মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছে। তার কান্না আমি সইতে পারছি না। যার জন্য আজ আমার মেয়ের যন্ত্রণা আমি তার বিচার চাই।’

শিশুটির চাচা জানায়, ধর্ষক সাদ্দাম হোসেন বাবু ঢাকার একটি রেস্টুরেন্টে কাজ করতো। ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে আর ঢাকা যায়নি।

এদিকে খবর পেয়ে নরসিংদী সদর হাসাপাতালে নির্যাতিত শিশুটিকে দেখতে যান জেলা মহিলা পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

জেলা মহিলা পরিষদের সভাপতি আশালতা সাহা বলেন, ‘শিশুটিকে দেখে আমরা বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। মানুষ কীভাবে এমন পাষণ্ড হয়? আমরা ধর্ষককে দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানাচ্ছি।’

বেলাব থানার ওসি কায়ুম আলী সরদার বলেন, এ বিষয় প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button