জাতীয়

আগা খান স্থাপত্য পুরস্কার পেলেন দুই বাংলাদেশি

ঢাকা, ০৪ অক্টোবর, (ডেইলি টাইমস ২৪):

ঢাকার বায়তুর রউফ মসজিদ এবং গাইবান্ধার ফ্রেন্ডশিপ সেন্টারের নকশার জন্য আগা খান স্থাপত্য পুরস্কার পাচ্ছেন বাংলাদেশের দুই স্থপতি। এরা হলেন,স্থপতি মেরিনা তাবাচ্ছুম ও কাশেফ মাহবুব চৌধুরী। সোমবার আগা খান ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

মেরিনা তাবাচ্ছুমের করা বায়তুর রউফ মসজিদের নকশায় রয়েছে সুলতানি স্থাপত্যের অনুপ্রেরণা। আর ফ্রেন্ডশিপ সেন্টারের নকশায় স্থপতি কাশেফ মাহবুব চৌধুরী এনেছেন মহাস্থানগড়ের আবহ।

গত মে মাসে বিশ্বের ৩৪৮টি স্থাপত্যকর্ম থেকে জুরিদের বাছাই করা ১৯টি স্থাপনার সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলেন এই দুই বাংলাদেশি স্থপতি। চূড়ান্ত বিচার শেষেগত গত সোমবার আবুধাবিতে এবারের ছয় বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। এর মধ্যে রয়েছেনমেরিনা তাবাচ্ছুম ও কাশেফ মাহবুব চৌধুরী।

বিদেশিদের নকশায় গড়া বাংলাদেশের তিনটি স্থাপত্যকর্ম এর আগে ত্রি-বার্ষিক এ পুরস্কার পেলেও মেরিনা ও কাশেফ প্রথম বাংলাদেশি, যারা আগা খান স্থাপত্য পুরস্কার পেলেন।

মেরিনা তাবাচ্ছুম ও কাশেফ মাহবুব চৌধুরী উভয়েই বুয়েট থেকে স্থাপত্যপবিদ্যা য় ১৯৯৫ সালে লেখাপড়া শেষে গড়ে তোলেন আর্কিটেক্ট ফার্ম আরবানা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের স্বাধীনতাস্তম্ভ ও স্বাধীনতা জাদুঘরের নকশাও তারা করেছেন যৌথভাবে। ১৯৯৭ সালে বিয়ে করে সংসার শুরু করলেও ২০০৫ সালে তাদের সম্পর্কের ইতি ঘটে।

২০০৫ সালে বিচ্ছেদের পর আরবানা থেকেও আলাদা হয়ে যান মেরিনা। গড়ে তোলেন নিজের প্রতিষ্ঠান ‘মেরিনা তাবাচ্ছুম আর্কিটেক্টস’।

বাংলাদেশের অন্যসব মসজিদের মত মেরিনার নকশায় তৈরি বায়তুর রউফ মসজিদে গম্বুজ বা মিনার নেই। আটটি পিলারের ওপর নির্মিত এই মসজিদে আলো-বাতসের জন্য যে ব্যাবস্থা তিনি রেখেছেন, আগা খান পুরস্কারের জুরি বোর্ড তার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।

অপরদিকে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার মদনেরপাড়া গ্রামে কাশেফ মাহবুবের নকশায় নির্মিত ফ্রেন্ডশিপ সেন্টার মূলত একটি এনজিওর ট্রেনিং সেন্টার। স্থানীয়ভাবে হাতে তৈরি ইট, কাঠ আর পাথরের মিশেল সবকিছু ছাপিয়ে নজর কেড়েছে এ ভবনের ঘাসে ছাওয়া সবুজ ছাদ।

আগা খান ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্ক তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, আগামী নভেম্বরে আবু ধাবির ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট আল জাহিলি ফোর্টে এবারের বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে। পুরস্কার বাবদ তারা পাবেন ১০ লাখ মার্কিন ডলার।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button