শিক্ষা

লিপু হত্যার বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আল্টিমেটাম

ঢাকা, ২৩ অক্টোবর, (ডেইলি টাইমস ২৪):

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী মোতালেব হোসেন লিপু হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীর। আগামি সাতদিনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি না পেলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা করেবে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় বিভাগের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে তারা। এ সময় মানববন্ধনে নবাব আব্দুল লতিফ ও মতিহার হলের শিক্ষার্থীরা একই দাবিতে আলাদা ব্যানার নিয়ে যোগ দেন।

শিক্ষার্থী রফিকুল ইসলামের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্যদেন, বিভাগের সভাপতি সহযোগী অধ্যাপক ড. প্রদীপ কুমার পাণ্ডে, সেলিম রেজা নিউটন, নবাব আব্দুল লতিফ হলের প্রাধ্যক্ষ বিপুল কুমার বিশ্বাস প্রমুখ।

মানববন্ধনে ড. প্রদীপ কুমার পাণ্ডে বলেন, ‘বৃহস্পতিবার থেকে আজ সোমবার প্রসাশনের কোনো রকম কোনো অগ্রগতি দেখতে পাই নি। একটু আগে প্রফেসর রেজাউল করিম হত্যার ছয়মাস পূর্তিতে বিচার দাবিতে র‌্যালি দেখলাম। প্রত্যেকটা মৃত্যু একটা করে র‌্যালি, মানববন্ধন পরবর্তীতে আবার সাবই নিজ নিজ কর্ম-ব্যস্ততা।’

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে আরও বলেন, ‘আমি জানি না বাংলাদেশের পুলিশ কি এতই অযোগ্য, যারা এত বড় বড় জঙ্গি ধরে ফেলছে। তারা এই নিরাপত্তা বেষ্টনির মধ্যে, যেখানে হলে দিনরাত চব্বিশ ঘণ্টা পুলিশ থাকে। তার মধ্যে থেকে একজন শিক্ষার্থীকে কীভাবে হলের ড্রেনের মধ্যে পড়ে থাকতে হলো। একজনকে আটক করেছে কিন্তু গ্রেফতার দেখানো হয়নি, কেন?’ ‘আগামী ৩১ অক্টোবরের মধ্যে যদি দৃশ্যমান কোনও অগ্রগতি দেখতে না পাই, পরবর্তীতে আরও বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করব’ বলে মানববন্ধন থেকে হুঁশিয়ারি দেন পাণ্ডে।

বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সেলিম রেজা নিউটন বলেন, “এ হত্যাগুলো প্রণালীগত হত্যাকাণ্ড। এখন ‘এক্স’ তো তখন ‘ওয়াই’ মারা যাবে। তাই আমাদের সিস্টেমটা নিয়ে ভাবতে হবে যে, বাংলাদেশ এ পথেই কি চলবে; যেভাবে বহুকাল ধরে চলে আসছে। নাকি আমরা একটু ভাবতে শিখব, কাঠামোগত সংস্কার আমাদের জন্য প্রয়োজন কিনা, সেটা বিশ্ববিদ্যালয়, রাষ্ট্র সকলকেই। আমাদের ভাবতে হবে, ক্যাম্পাস-রাষ্ট্র পরিচালনা পদ্ধতিতে মৌলিক কোনও সংস্কারের প্রয়োজন আছে কিনা।”

এর আগে বিভাগের সামনে থেকে একটি শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে পুনরায় সেখানে আসে। পরে সেখানে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২০ অক্টোবর নবাব আব্দুল লতিফ হলের ডাইনিং-এর পাশের ড্রেন থেকে লিপুর লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি লতিফ হলের ২৫৩ নম্বর কক্ষে থাকতেন। আলামত দেখে প্রাথমিকভাবে পুলিশ হত্যাকাণ্ড বলে ধারণা করে। ওইদিন লিপুর চাচা মো. বশীর উদ্দিন বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় লিপুর রুমমটে মনিরুল ইসলামকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button