জেলার সংবাদ

জলঢাকায় নারী নির্যাতন

ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি , (ডেইলি টাইমস ২৪):

নীলফামারীর জলঢাকায় এক নির্যাতিত গৃহবধূকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেছেন  পৌর মেয়র। নির্যাতিত ওই গৃহবধূ হাসপাতালের বিছানায় কাতরাচ্ছেন। ঘটনাটি জলঢাকা পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের তিন কদম এলাকায়। আজ শুক্রবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূর নাম কল্পনা বেগম (২২)। তিনি  উপজেলার শৌলমারী সিংড়িয়া মাঝাপাড়া এলাকার আফিজার রহমানের মেয়ে।

কল্পনা বেগম বলেন, “উভয় পরিবারের আলোচনায় গত চৈত্র মাসে পৌরসভার তিন কদম এলাকার মমিমুর রহমানের ছেলে নুর ইসলামের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য দফায় দফায় আমার ওপর চলতে থাকে নির্যাতন। আমার দিনমজুর বাবা আমার সুখের আশায় নগদ টাকা, টেলিভিশন এবং সাইকেল কিনে দেন। কিন্তু, সে জুয়া খেলে সব শেষ করে। চার দিন আগে সে আমাকে আবারো বাবার নিকট থেকে সাইকেল কিনতে টাকা আনতে বলে। আমি না  বললে চলে নির্যাতন। রাত হতে আর কিছুই বলতে পারি না। জ্ঞান ফিরলে দেখি হাসপাতালে। ”

কল্পনা বেগমের বাবা আফিজার রহমান বলেন, “দফায় দফায় জামাইয়ের চাহিদা মেটাতে ব্যর্থ হওয়ায় আমার মেয়ের ওপর নেমে আসে অমানবিক নির্যাতন। আমি এর বিচার চাই। ” জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, “তার (কল্পনা বেগম) শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ” ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জলঢাকা পৌরসভা মেয়র ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী কমেট বলেন, “ঘটনা শুনে সেখানে যাই। নির্যাতিত  মেয়েটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। ”

 

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button