খেলাধুলা

সিরিজ জেতা হলো না টাইগারদের

ঢাকা, ০১ এপ্রিল, (ডেইলি টাইমস ২৪):

প্রথম ম্যাচে দুর্দান্ত এক জয়। দ্বিতীয় ম্যাচ বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত। শ্রীলংকার বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ জয়ের দারুণ সুযোগ পায় টাইগাররা। কিন্তু ব্যাটিং ব্যর্থতায় তৃতীয় ম্যাচ হেরে সমতা দিয়ে সিরিজ শেষ করল সফরকারীরা।

শনিবার কলম্বোর সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠে লংকানদের কাছে ৭০ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে মাশরাফি বাহিনী।

লংকানদের করা ৯ উইকেটে ২৮০ রানের জবাবে ৪৪.৩ ওভারে ২১০ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশের ইনিংস।

ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১১ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে অনেকটা এলোমেলো হয়ে পড়ে টাইগার শিবির। ওপেনিংয়ে নামা তামিম ইকবাল প্রথম ওভারের শেষ বলে ক্যাচ আউট হন।

তামিমের দাবি ছিল বলটি প্যাড থেকে এসেছে। পরে থার্ড আম্পায়রকে ডাকা হলে তিনি আউটের সিদ্ধান্ত জানান।

পরে ৬ বলে চার রান করা নাখোশ তামিম মাথা নাড়তে নাড়তে মাঠ ছাড়েন। তামিম ছিলেন কুলাসেকারার প্রথম শিকার।

তামিমের পর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে দলকে এগিয়ে নিতে মাঠে নামেন সাব্বির রহমান। তবে ‘ভাগ্য দেবী’ মনে হয় পক্ষে ছিল না তার। সেই কুলাসেকারার ওভারেই অফস্ট্যাম্পের অনেক বাইরের একটি বল খেলতে গিয়ে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। তিন বল খেলে সাব্বিরের সংগ্রহ ছিল শূন্য।

এরপর চতুর্থ ওভারে লাকমালের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে শূন্য রানেই মাঠ ছাড়েন টাইগারদের অন্যতম নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম।

পঞ্চম উইকেট জুটিতে সৌম্য সরকার ও সাকিব আল হাসানের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে বাংলাদেশ। তবে দলীয় ৮৮ রানের মাথায় বিদায় নেন সৌম্য। ব্যক্তিগত ৩৮ রানে দিলরুয়ান পেরেরার বলে উইকেটের পেছনে ধরা পড়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

এরপর জুটি গড়ার চেষ্টা করেন সাকিব-মোসাদ্দেক। তবে ইনিংসের ২৩তম ওভারে সেকুজে প্রসন্নর বলে বোল্ড হন ৯ রান করা মোসাদ্দেক।

সাকিব আল হাসান দলীয় ১১৮ রানের মাথায় দিলরুয়ান পেরেরার বলে ব্যক্তিগত ৫৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। তার ইনিংসে ছিল ৭টি চারের মার।

এরপর লাকমলের বলে উইকেটের পেছনে ধরা পড়ে বিদায় নেন ৭ রান করা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। তার বিদায়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে টাইগাররা।

টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকে ফেরান লেগ স্পিনার সেকুজে প্রসন্ন। ক্রিজ ছাড়ার আগে তিনি সংগ্রহ করেন ১৬ রান।

দলের কঠিন মুহূর্তে অনবদ্য এক অর্ধশতক করার পর বিদায় নেন মেহেদি হাসান মিরাজ। তিনি ৫১ করে কুলাসেকেরার তৃতীয় শিকার হন। তবে এর আগে লংকানদের বিপক্ষে নবম উইকেটে রেকর্ড ৫৪ রানের জুটি গড়েন মিরাজ ও তাসকিন আহমেদ।

একই ওভারে কুলাসেকেরার চতুর্থ শিকার হয়ে তাসকিন মাঠ ছাড়লে ৪৪.৩ ওভারে ২১০ রানে শেষ হয় বাংলাদেশের ইনিংস। মাঠ ছাড়ার সময় তাসকিনের সংগ্রহ ছিল ১৪ রান।

লংকানদের হয়ে কুলাসেকেরা ৭.৩ ওভারে ৩৭ রান খরচে ৪টি উইকেট তুলে নেন। দিলরুয়ান পেরেরা, প্রসন্ন ও লাকমাল ২টি করে উইকেট নেন।

এর আগে শ্রীলংকা ৯ উইকেটে ২৮০ রান করে। দলের পক্ষে কুশাল মেন্ডিস সর্বোচ্চ ৫৪ আর থিসারা পেরেরা ঝড়ো গতির ৫২ রান (৪০ বল) করেন।

বাংলাদেশের পক্ষে ৬৫ রান খরচায় অধিনায়ক মাশরাফি ৩টি, ৫৫ রানে মোস্তাফিজুর রহমান ২টি এবং মিরাজ ও তাসকিন ১টি করে উইকেট নেন।

ম্যাচসেরা হন থিসারা পেরেরা আর সিরিজ সেরা হন কুশাল মেন্ডিস।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button