জাতীয়

সকল বোর্ডে পাসের হার ও জিপিএ-৫

২০১৭ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১০ বোর্ডে গড় পাসের হার ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ। আর আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ৮১ দশমিক ২১ শতাংশ।

৪ মে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে এ ফল তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে রাজশাহীতে গড় পাসের হার সবচেয়ে বেশি। আর পাসের হার সবচেয়ে কম কুমিল্লা বোর্ডে।

এবারের ফলে দেখা যায়, ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা এগিয়ে। এবার ছেলেদের পাসের হার ৭৯.৯৩ শতাংশ এবং মেয়েদের পাসের হার ৮০. ৭৮ শতাংশ। অর্থ্যাৎ পাসের হারে ছেলেদের চেয়ে মেয়েরা দশমিক ৮৫ শতাংশ এগিয়ে।

রাজশাহী: রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তরুণ কুমার সরকার জানান, এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ৯০ দশমিক ৭০ শতাংশ। আর জিপিএ ৫ পেয়েছেন ১৭ হাজার ৩৪৯ জন।

চট্টগ্রাম: মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড চট্টগ্রামের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক মাহবুব হাসান জানান, চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এবার পাস করেছে ৮৩ দশমিক ৯৯ শতাংশ শিক্ষার্থী। এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে আট হাজার ৩৪৪ জন।

সিলেট: সিলেট শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. শামসুল ইসলাম জানান, চলতি বছর সিলেট শিক্ষা বোর্ডে এসএসসিতে পাসের হার ৮০ দশমিক ২৬ শতাংশ। তাদের মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ২ হাজার ৬৬৩ জন।

বরিশাল: বরিশাল বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মো. আনোয়ারুল হক জানান, চলতি বছর এ বোর্ডে পাসের হার ৭৭ দশমিক ২৪ শতাংশ। এবারে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ হাজার ২৮৮ জন।

এ ছাড়া ঢাকা বোর্ডে পাসের হার ৮৬ দশমিক ৩৯ শতাংশ। দিনাজপুর বোর্ডে পাসের হার ৮৩ দশমিক ৯৮ শতাংশ, যশোর বোর্ডে পাসের হার ৮০ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ, মাদ্রাসায় ৭৬ দশমিক ২০ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে ৭৮ দশমিক ৬৯ ভাগ।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের অধীনে বিদেশের ৮টি কেন্দ্রে মোট ৪৩৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এদের মধ্যে পাস করেছে ৪১২ জন। এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১২ জন।

প্রসঙ্গত, গত ২ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে এসএসসি ও সমমানের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় ২ মার্চ পর্যন্ত। এছাড়া ব্যবহারিক পরীক্ষা ৪ মার্চ শুরু হয়ে শেষ হয় ১১ মার্চ।

এ বছর ১০টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের ৩ হাজার ২৩৬টি কেন্দ্রে ২৮ হাজার ৩৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১৭ লাখ ৮৬ হাজার ৬১৩ জন।

গত বছরের চেয়ে এবার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এক লাখ ৩৫ হাজার ৯০ জন বেশি। মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছাত্র ৯ লাখ ১০ হাজার ৫০১ জন ও ছাত্রী ৮ লাখ ৭৬ হাজার ১১২ জন। নিয়মিত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১৬ লাখ ৭ হাজার ১২৪ জন।

এছাড়া অনিয়মিত পরীক্ষার্থী ১ লাখ ৭৬ হাজার ১৯৮ জন এবং বিশেষ পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৪৫ হাজার ২৯৮ জন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button