রাজনীতি

আওয়ামী লীগ দুর্নীতির কথা স্বীকার করে নিয়েছে: ফখরুল

ঢাকা,০৪ মে, (ডেইলি টাইমস ২৪):

 

বৃহস্পতিবার দেশ থেকে ৭৬ হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগ সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের মাধ্যমে বুঝা যায়, তারা দুর্নীতি করেছেন বলে নিজেরা স্বীকার করে নিয়েছেন। তারা পালিয়ে যাবেন, টাকা পয়সা নিয়েই পালিয়ে যাবেন সেটাও তারা স্বীকার করে নিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সরকার পুরোপুরিভাবে একটা দুর্নীতিবাজ সরকার এবং করাপশন (দুর্নীতি) এদের প্রধান উদ্দেশ্য বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ফখরুল।

এর আগে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ শাখা বিএনপির নতুন কমিটির নেতৃবৃন্দের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে দেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া নিয়ে জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্ক্তব্যের সমালোচনা করেন।

বুধবার সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম সংসদ নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে সফলভাবে যে নির্বাচনটা হয়েছে, যে গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে। সংসদে এখন আর খিস্তিখেউড় হয় না। নোংরা কথা হয় না। সুস্থ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া চলছে- এটাই প্রমাণিত হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যকে ‘সত্যের অপলাপ’ আখ্যা দেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, বুধবার অ্যামিনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের রিপোর্টে বলা হয়েছে গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বাংলাদেশের অবস্থান আফগানিস্তানের চেয়েও দুই ধাপ নিচে।

এর আগে আমেরিকান স্টেট ডিপার্টমেন্ট ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের রিপোর্টে বাংলাদেশে গণতন্ত্র বলতে কিছু নেই বলে উল্লেখ করা হয়েছে বলেও দাবি করেন ফখরুল।

দেশের গণতান্ত্রিক অবস্থার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা সারা দেশে রাজনৈতিক কর্মী সভা করছি। তবে বেশিরভাগ জায়গায় পুলিশি বাধার সম্মুখিন হচ্ছি। নাটোরে একেবারেই সভা করতে দেয়া হয়নি।

বুধবার বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসে সাংবাদিকদের দেয়া বক্তব্যের বরাতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকারি ঘরানার লোকজনের কাছ থেকে শুনলাম গণমাধ্যমের ওপর পুরোপুরিভাবে সরকারের নিয়ন্ত্রণ চলছে।

নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের প্রস্তাবনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যথাসময়ে আপনাদের তা জানানো হবে।

ফখরুল জানান, আগামী ৭ ও ৮ মে নগর বিএনপির কর্মিসভা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে দক্ষিণের সভা ৭ মে দুপুর ২টায় মহানগর নাট্যমঞ্চে এবং উত্তরের সভা ৮ মে কাকরাইলের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে।

দুটি সভা ঢাকা মহানগর পুলিশের অনুমতি পেলেই অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে  বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান, মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল,বিএনপি নেতা তাবিথ আউয়াল, কাজী আবুল বাশার, আহসানউল্লাহ হাসান, শামসুল হুদা, আবদুল মজিদ, মুন্সি বজলুল বাসিত আনজু, রবিউল ইসলাম রবি, হাবিবুর রশীদ হাবিব, রাজীয়া আলীম, পেয়ারা মোস্তফা, নুর আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা দলের আবুল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button