অর্থ ও বাণিজ্য

লাখ টাকার মালিকও সম্পদশালী

ঢাকা, ০৩ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

ব্যাংকিং লেনদেনে আবগারি শুল্ক বাড়ানোয় তীব্র সমালোচনার মুখে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, যারা এক লাখ টাকার বেশি ব্যাংকে রাখতে পারেন, তারা আমাদের দেশের তুলনায় সম্পদশালী। তারা বাড়তি ভারটা বহন করতে পারবেন, এতে সমস্যা হবে না। ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকরে পণ্যমূল্য বাড়বে এমন সমালোচনাও তিনি মানতে নারাজ। অর্থমন্ত্রী দাবি করেন, প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাট হার বাড়ানো হয়নি, আওতা বাড়ানো হয়েছে। ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকর করা হলেও জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না। কারণ অনেক পণ্যে ভ্যাট ছাড় দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রস্তাবিত বাজেটকে নিজের জীবনের শ্রেষ্ঠতম বাজেট হিসেবে অভিহিত করে অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ‘মনে হয়েছে, এবার জীবনের শ্রেষ্ঠতম বাজেট দিয়েছি। এজন্য অনেক কষ্টও করেছি। বাজেট ‘উচ্চাভিলাষী’ স্বীকার করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বক্তৃতাতেই বলেছি যে প্রত্যেকটা বাজেটই উচ্চাভিলাষী। আগেরবারের চেয়ে পরেরবার কম হয়েছে, এমন একটি বাজেটও নেই। এ কাজটা আমরা সার্থকভাবে করেছি। এভাবেই দেশটাকে উন্নততর জায়গায় নিয়ে যাচ্ছি।’

বাজেট ঘোষণার দিন গ্যাসের মূল্য বেড়েছে। ক্ষুদ্র আমনতকারীদের আবগারি শুল্ক বাড়ানো হয়েছে। এরপর এ বাজেট শ্রেষ্ঠ হবে কিনা জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, গ্যাসের দাম কিছুই বাড়ানো হয়নি বাজেটে। আমি শুধু সতর্ক করেছি, আমদানি করা গ্যাসের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়লে গ্যাসের দাম বাড়বে। তবে তিনি জানান, জ্বালানি তেলের মূল্য কমানোর বিষয়টি বিবেচনাধীন আছে। গ্যাসের দাম ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক মূল্যের সঙ্গে সমন্বয় করে বাড়ানো হবে।

সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেন- কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু ও পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা মসিউর রহমান, মুখ্যসচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম, অর্থ মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন ও ইআরডি সচিব কাজী শফিকুল আজম, এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান, পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. জিয়াউল ইসলাম সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে বৃহস্পতিবার বাজেট বক্তৃতার পর ব্যাংক লেনদেনে আবগারি শুল্ক আরোপের ভিন্ন হার উল্লেখ করে এনবিআর এক প্রজ্ঞাপন জারি করলে সংশয় সৃষ্টি হয়। সংবাদ সম্মেলনে এনবিআর চেয়ারম্যান বিষয়টির ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, এক্ষেত্রে অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবিত বাজেটে আবগারি শুল্ক আরোপের হার চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে। এ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, বড়লোকের ক্ষেত্রে আমাদের করটা ছিল, কিন্তু যারা মিড লেভেলে ছিল তারা এর অন্তর্ভুক্ত ছিল না। তারমতে, এক লাখ টাকার নিচে যারা আছেন, তাদের ভার থেকে মুক্ত করাই যথেষ্ট।

অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে টার্নওভার সীমা নিচের দিকে ৩০ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩৬ লাখ টাকা এবং উপরের সীমা ৮০ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে দেড় কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ভ্যাটের আওতার বাইরে চলে যাবেন।

বাজেটে বেসরকারি বিনিয়োগের কোনো দিকনির্দেশনা নেই প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রাইভেট খাতে বিনিয়োগের ওপর শুরু থেকে চাপ দিয়ে আসছি। কারণ অর্থনীতির ৮০ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করছে বেসরকারি খাত। সরকারের হাতে রয়েছে ২০ ভাগ। দেশের উন্নয়নের জন্য দরকার বেসরকারি খাতের উন্নয়ন। তবে ২০১৪-১৫ অর্থবছর পর্যন্ত অবস্থা ভালো ছিল না। রাজনৈতিক অস্থিরতা, জ্বালাও-পোড়াওয়ের কারণে খারাপ ছিল। ২০১৫ সাল থেকে অবস্থা ভালো হচ্ছে। এর সুফল এ বছর পাচ্ছি। আগামীতে বেসরকারি বিনিয়োগ আরও বাড়বে বলে আশা করছি। এজন্য প্রস্তাবিত বাজেটে বেসরকারি বিনিয়োগের লক্ষ্য ২২ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৩ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে সমর্থন দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, এবারের বাজেটে ১ হাজার ৪৩টি আইটেমে ভ্যাট দেয়া লাগবে না। আগের আইনে ৫৩৬টি আইটেম ছিল। এর মধ্যে নিত্যপণ্য আছে। এ কারণে দিন শেষে ভ্যাট দ্রব্যমূল্যের ওপর প্রভাব ফেলবে না। তাছাড়া এবার ভ্যাটের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯১ হাজার ২৫৪ কোটি টাকা। চলতি বাজেটে লক্ষ্য ছিল ৭৩ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা। অর্থাৎ ১৭ হাজার ৭০১ কোটি টাকা নতুন আইন থেকে আদায়ের চেষ্টা চালাচ্ছি। কারণ আগে ৮ লাখ নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান থাকলে ভ্যাট দিত ৩২ হাজার প্রতিষ্ঠান। এটাকে ৬০ হাজার করতে চাচ্ছি। এতে অর্থনীতিতে বিপর্যয় হবে না। জিনিসপত্রের দাম বাড়ারও কারণ নেই।

বাজেট বক্তৃতায় শিক্ষার সমতার কথা বলা হলেও ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষার ওপর ভ্যাট আরোপ সমতার মধ্যে পড়ে কিনা জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ইংলিশ মিডিয়ামে আগেও কর ছিল। এখনও থাকবে। এটা শিক্ষার সমতার ওপর প্রভাব ফেলবে না।

ব্যাংকিং খাতের কোনো সংস্কারের বিষয় বাজেটে নেই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে আমার খুব কষ্ট হয়। ব্যাংকিং খাতে চুরি-চামারি সব দেশেই আছে। কম আর বেশি। অন্য দেশেও হয়। তবে বেসরকারি এক-দুটো ব্যাংকে সমস্যা আছে। বাংলাদেশ ব্যাংক তা দেখছে।

গ্যাসের দাম আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাবেন, কিন্তু জ্বালানি তেলের দাম আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিচ্ছেন না কেন প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেন, জ্বালানি তেলের মূল্যের বিষয়টি বিবেচনাধীন আছে। এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করব না।

ব্যক্তি শ্রেণীর করদাতাদের করমুক্ত আয়ের সীমা না বাড়ানোর যুক্তি দিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন দেশে কত টাকার ওপর আয় হলে কর দিতে হবে সেটা ৩০-৪০ বছর পর্যন্ত নির্দিষ্ট থাকে। যদি কোনো করদাতার আয় আড়াই শতাংশ অতিক্রম করে তাহলে সে আজীবনের জন্যই করদাতা। শুধু করের স্তর (১০, ১৫, ২০, ২৫ ও ৩০ শতাংশ) অনুযায়ী ট্যাক্স দিতে হবে। আগামী বাজেটে করমুক্ত আয়সীমা ৩ লাখ টাকা করা হলেও তাকে রিটার্ন জমা দিতে হবে। এটা ভালো অভ্যাস। এটি আরও শক্তভাবে কায়েম করাই লক্ষ্য।

কালো টাকা প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী, গত ২ বছর কালো টাকা নিয়ে বিশেষ কিছু করা হয়নি। যথাযথ নিয়মে জরিমানা দিয়ে কালো টাকা সাদা করার বৈধ যে বিধান ছিল সেটি এখনও আছে। ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।

বাজেট বাস্তবায়নে গুণগতমান নিয়ে প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রী বলেন, ৯১ হাজার কোটি টাকা থেকে ৩ লাখ ১৭ হাজার কোটি টাকা বাজেট বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এরপরও বাস্তবায়ন সক্ষমতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন থাকতে পারে না। আমি এর প্রশংসা করছি। আপনারাও আশা করি প্রশংসা করবেন।

চালের দাম বৃদ্ধি প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, বছরের শুরুতে এমন অবস্থা ছিল না বাজারে। দাম বেড়েছে সম্প্রতি হাওর অঞ্চলে ভয়ঙ্কর দুর্যোগের কারণে। তবে চালের মজুদ আছে। দাম অবশ্য কমবে।

রেমিটেন্স কমা প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, সম্প্রতি বৈধ চ্যানেলে রেমিটেন্স প্রবাহ কমছে। কিন্তু প্রকৃত অর্থে রেমিটেন্স প্রবাহ কমেনি। ভিন্ন চ্যানেলে আসছে রেমিটেন্স। এটি বন্ধ করতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। প্রস্তাবিত বাজেটে বিদেশ থেকে রেমিটেন্স পাঠালে প্রণোদনার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। আশা করছি খুব শিগগিরই এ নেতিবাচক ভাব কেটে যাবে। তবে রেমিটেন্স প্রেরণে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে প্রণোদনা দেয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, এখানে সমস্যা আছে। মন্ত্রিপরিষদ সভায় অনেক সদস্য একথা বলেছিলেন। কিন্তু তা বাস্তবায়নে সমস্যা আছে।

আন্তর্জাতিক সিগারেট কোম্পানিকে আলাদাভাবে শনাক্ত করার জন্য প্রস্তাবিত বাজেটে সিগারেটের দুটি স্তর করা হয়েছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী। কারণ বহুজাতিক সিগারেট কোম্পানি খুব বেশি করে বাজার দখল করতে না পারে সেদিকে নজর দেয়া হবে।

আগামী ২ মাসের মধ্যে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানো হবে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এখন থেকে প্রতি বছর একবার সঞ্চয়পত্রের সুদের হার সমন্বয় করা হবে। আগে কয়েক বছরেও তা করা হতো না। কারণ সঞ্চয়পত্রের সুদের হার একটু বেশি দেয়া হতো। কিন্তু বাস্তবে বাজার থেকে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার অস্বাভাবিক বেশি হলে তা খারাপ। এজন্য সমন্বয় করা হবে।

জনগণের করের টাকায় ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি পূরণে দুই হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে এটি বন্ধ করার কোনো পরিকল্পনা আছে কিনা জানতে চাইলে উত্তরে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, সরকারি ব্যাংকগুলো সেবাধর্মী অনেক কাজ করছে। যেখানে তাদের কোনো ব্যবসা থাকছে না। বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর তুলনায় সুদ কম নিচ্ছে। বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করছে মানুষকে। এ ভর্তুকি দিতে গিয়ে তাদের মূলধন ঘাটতি হচ্ছে। এ জন্য তাদের মূলধন দেয়া হচ্ছে। তবে আগের তুলনায় মূলধন ঘাটতি দেয়ার পরিমাণ অনেক কমেছে।

বিনিয়োগ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, বিদেশ থেকে বিনিয়োগ এখনও আসছে। আমার একটি প্রকল্পে ১ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ এসেছে। বিদেশে বিনিয়োগের জন্য আমরা রাস্তা খুলে দিয়েছি। কারণ মানুষের টাকা জোর করে ধরে রাখা যাবে না। বাংলাদেশের কিছু বিনিয়োগ আফ্রিকায় গেছে। তৈরি পোশাক শিল্পে বিনিয়োগ হচ্ছে। মূল্যস্ফীতি প্রসঙ্গে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ক্ষমতা গ্রহণের শুরুতে মূল্যস্ফীতি ৭ দশমিক ৩ শতাংশ ছিল। এখন ৫ দশমিক ৩৮ শতাংশে আছে। বাজারে জিনিসপত্রের দাম বাড়ার কারণ নেই। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে সম্প্রতি চালের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে এর উত্তর দিতে গিয়ে কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, হাওরের বন্যার কারণে ধান উৎপাদনে ক্ষতি হয়েছে। পানির নিচে চলে গেছে ধান। ব্লাস্ট নামে একটি রোগও ধানে দেখা দিয়েছে। তবে ফসলের ক্ষতি হলেও মোট উৎপাদনের দিক থেকে খুব কম। কিন্তু কিছু ব্যবসায়ীরা এ সুযোগ দাম বাড়াচ্ছে। বাজারে দাম অবশ্য কিছুটা বেড়েছে। তবে হাওর অঞ্চলে ওএমএসসহ নানা কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button