রাজনীতি

তাদের আবদার শুনবেন না, ইসিকে খালেদা

ঢাকা, ০৪ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

সরকারের ‘আবদারে’ কান না দিয়ে জনগণ ও রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের আয়োজন করতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

শনিবার রাজধানীর বসুন্ধরায় কনভেনশন সেন্টার ‘নবরাত্রি’তে বিএনপি নেতাদের সম্মানে দেওয়া এক ইফতার মাহফিলে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই কথা বলেন তিনি।

নির্বাচন কমিশনকে উদ্দেশ্য করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘এই সরকার যা কিছু আবদার করবে তা না শুনে জনগনের মতামত নেবেন, রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করবেন।’

বিএনপি দেশে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চায় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ বুঝতে পারবে তাদের পায়ের নিচে মাটি আছে কী না, জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক আছে কি না।’

নিরপেক্ষ নির্বাচন না হলে সেই নির্বাচনে জনগণ অংশগ্রহণ করবে না মন্তব্য করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘হাসিনার অধীনে জনগণ নির্বাচন মেনে নেবে না। এই সরকার গণবিরোধী। তাই তাদেরকে বিতারিত করা বিএনপির একার দায়িত্ব নয়। সবাইকে দায়িত্ব নিতে হবে। ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকারকে হটাতে হবে।’

আগামী অর্থ বছরের জন্য দেওয়া প্রস্তাবিত বাজেটের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘এই বাজেটে দুর্নীতির সুযোগ রয়েছে। জনগণের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। কারণ তারা (সরকার) জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়। সেজন্য জনগণের কষ্ট তাদের চোখে পড়ে না। তাই দেশে প্রয়োজন সত্যিকার অর্থেই একটি জনগণের সরকার, যারা জনকল্যাণে কাজ করবে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে।’

দেশের মানুষের জন্য কাজ করার লক্ষ্যে বিএনপি ভিশন দিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ভিশন বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশের সমস্যা থাকবে না। দ্রুত উন্নতি করতে পারবে। দুর্নীতি দূর হবে কিন্তু এখন দুর্নীতি চেপে বসেছে। সম্পদ পাচার হয়ে যাচ্ছে। এদের সঙ্গে সরকারের লোকেরা জড়িত। সেজন্য এদের ধরা হয় না। অথচ বিএনপির নেতা-কর্মীদের কেউ কিছু না করলেও তাদের মিথ্যা মামলায় কারাগারে নেওয়া হয়। দুদককে ব্যবহার করে মামলা দিয়ে জুলুম নির্যাতন করা হয়।

ইফতার মাহফিলে অংশ নেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী ক‌মি‌টির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, অধ্যাপক এম এ মান্নান, আব্দুল মান্নান, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, বেগম সেলিমা রহমান, মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, মেজর জেনারেল অব. রুহুল আলম চৌধুরী, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, শামসুজ্জামান দুদু, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কবির মুরাদ, আমান উল্লাহ আমান, ড. সুকোমল বড়ুয়া, আব্দুস সালাম, মিজানুর রহমান মিনু, হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব উন নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, বিলকিস জাহান শিরিন, শ্যামা ওবায়েদ, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানা উল্লাহ মিয়া, ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল হক, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু প্রমুখ।

এ ছাড়া শ্রমিকদল সভাপতি আনোয়ার হোসেইন, যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, ওলামা দলের সভাপতি মাওলা আব্দুল মালেক, ছাত্রদল সভাপতি রাজীব আহসান, সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান মিন্টুসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button