লাইফস্টাইল

চোখের রঙ দেখে জানা যায় ব্যক্তিত্ব- বলেন বিজ্ঞানীরা

ঢাকা, ০৪ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

চোখ হচ্ছে মনের জানালা – এই প্রবাদটি সবাই শুনেছেন নিশ্চয়ই। এই প্রবাদটিকে সত্যি বলে প্রমাণ করার উপায় খুঁজে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

আমাদের শরীরের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হচ্ছে চোখ এবং চোখ দেখেই একজন মানুষ সম্পর্কে অনেক কিছু বলে দেয়া যায়। সুইডেন এর অরিব্রো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের করা গবেষণা মতে, চোখের আইরিসের ধরণ দেখে বোঝা যায় আপনি উষ্ণ হৃদয়ের এবং বিশ্বাসী কিনা অথবা বাতিকগ্রস্থ এবং আবেগপ্রবণ কিনা। গবেষকেরা ৪২৮ জনের চোখ ও তাদের ব্যক্তিত্ব পর্যবেক্ষণ করে দেখেন। তারা দেখেন যে, আমাদের চোখের বর্ণ একই রকম জিন দিয়ে প্রভাবিত হয় যা দ্বারা আমাদের মস্তিষ্কের ফ্রন্টাল লোব গঠিত।

অরিব্রো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিহেভিয়ারাল সায়েন্টিস্ট এবং গবেষণার প্রধান লেখক ম্যাট লারসন বলেন, আমাদের গবেষণার ফলাফলে এটাই ধারণা করা হয় যে, ভিন্ন ভিন্ন আইরিসের ব্যক্তিদের ভিন্ন ব্যক্তিত্ব প্রকাশিত হতে দেখা যায়।

এডিনবার্গ বিশ্ব বিদ্যালয়ের ড. এন্থনি ফেলন এর পরিচালনায় করা গবেষণাতেও চোখের রঙ এবং ব্যক্তিত্বের মধ্যে সম্পর্ক দেখানো হয়। লিভারপুল জন মোরেস বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমলিকিউলার সায়েন্স এর সিনিয়র লেকচারার ড. জেরি লউহেলেইনেন বলেন, ‘আমরা এখন জেনেছি যে চোখের বর্ণ মানুষের জিনের ১২ থেকে ১৩ টি স্বতন্ত্র রূপের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়’। আপনার চোখ আপনার সম্পর্কে কী বলে তা জেনে নিই চলুন।

১। গাড় বাদামী চোখ

এই চোখের মানুষদের মধ্যে প্রাকৃতিকভাবেই নেতার বৈশিষ্ট্য থাকে। গাড় বাদামী রঙের চোখকে অনেক সময় কালো চোখ বলে ভুল করা হয়। ডেইলি মেইল এ প্রকাশিত কারেন্ট সাইকোলজির একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, গাড় চোখের মানুষেরা সাধারণত অমায়িক হয়। শরীরে মেলানিনের পরিমাণ বেশি হয়ে থাকলে চোখ গাড় হয়।

২। বাদামী চোখ

প্রাগ এর চার্লস বিশ্ববিদ্যালয়ের মতে, বাদামী চোখের মানুষরা বিশ্বস্ত, সম্মানিত ও নির্ভরযোগ্য হন এবং তারা ভদ্র কিন্তু বেশি বিনয়ী নন। ক্রনোবায়োলজি ইন্টারন্যাশনালে প্রকাশিত গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, বাদামী চোখের মানুষদের ঘুম কম হয় এবং তারা সকালে উঠতে পারেন না।

৩। নীল চোখ

অভ্যন্তরীণ ও শারীরিক শক্তি এই উভয় ধরনের শক্তিই আপনার আছে। কিন্তু অনেকেই এটা দেখেন না এবং আপনাকে ভুলভাবে বিচার করেন। লোকজন আপনাকে লাজুক, অবিশ্বাসী বা দুর্বল মনে করে যা আসলে সত্যি নয়। ডেইলি মেইল এর প্রতিবেদনে বলা হয় যে, ২০০৬ সালে জার্মানির মনোবিজ্ঞানী জানিয়েছেন যে, নীল চোখের শিশুরা নতুন বিষয়ের প্রতি সাবধান থাকে এবং তাদের সঙ্গীদের সাথে কম খোলামেলা ছিল তারা। মেডিকেল ডেইলি এর প্রতিবেদনে বলা হয় যে, নীল চোখের মানুষদের অনেকেই প্রতিযোগী ও অহংকারী ভাবে। ইউনিভার্সিটি অফ পিটসবারগ স্কুল অফ মেডিসিন এর একটি পরীক্ষামূলক গবেষণায় আবিষ্কার হয় যে, হালকা চোখের নারীরা গাড় চোখের নারীদের চেয়ে বেশি ব্যথা সহ্য করতে পারে শিশুর জন্মদানের সময়।

৪। ধূসর চোখ

গাড় ধূসর চোখের মানুষরা খুব ভালোভাবে ভারসাম্য রক্ষা করতে পারে। ভিন্ন ধরনের মানুষের সাথে ভিন্ন আচরণ করতে পারেন আপনি। এটা ভালোও হতে পারে আবার খারাপও হতে পারে, আপনি আপনার আবেগকে কতোটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তার উপর নির্ভর করে এটি।

৫। হেজেল চোখ

দ্যা আই ডক্টর গাইড এর মতে, হেজেল চোখের মানুষদের চোখের রঙ সবুজ থেকে বাদামীতে পরিবর্তিত হয় অথবা এদের আইরিসে এই দুটি বর্ণই থাকে। ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে ভিন্ন হয় এই চোখের বর্ণ। এদের সামঞ্জস্যপূর্ণ ব্যক্তিত্ব থাকে। সাউথ অস্ট্রেলিয়া ইউনিভার্সিটির ড. ম্যাথু লিচ এর মতে হেজেল চোখের মানুষদের পরিপাকের সমস্যা হতে দেখা যায় বেশি।

৬। সবুজ চোখ

সবুজ চোখের মানুষরা রহস্যময় ও মোহনীয় হয়।  তারা কর্তৃত্বপরায়ণ হন। অপথ্যালমোলজিস্ট সার্জন ডা. হামাদি কেলেল চোখের বর্ণ নিয়ে প্রচুর গবেষণা করেন, তিনি বলেন, তারা রহস্যময় ও স্বয়ংসম্পূর্ণ হন। তারা অনিশ্চিত কিন্তু হঠাৎ করে রাগেন না, তারা সৃজনশীল এবং প্রচুর চাপের মাঝেও ভালো ফলাফল দিতে পারেন।

৭। কালো চোখ

কালো চোখের মানুষেরা রাতের মতোই রহস্যময় হন। তারা বিশ্বাসী হন এবং আপনার গোপন তথ্য কখনো কাউকে বলবেন না। তারা খুব দায়িত্ববান হন। তারা পরিশ্রমী ও আশাবাদী হন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button