আন্তর্জাতিক

নব্বয়ের পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের যেসব প্রদেশে বেড়েছে অপরাধের মাত্রা

ঢাকা, ০৪ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিশেষ করে ১৯৯০ সালের পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি প্রদেশে অপরাধ প্রবণতা বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি প্রকাশিত স্টেট ফায়ার আর্ম ল প্রজেক্টের তথ্যানুযায়ী, গত ২৫ বছরে বন্দুক হামলায় হত্যার ঘটনা সামগ্রিকভাবে কমলেও ১০টি রাজ্যের হত্যাকাণ্ড অপরাধের মাপদণ্ডে যুক্তরাষ্ট্রকে এগিয়ে রেখেছে। নিউ জার্সি, অহিও, পেনিসেলভেনিয়া এবং উইসকনসিসের মতো রাজ্যগুলোও রয়েছে এ তালিকায়। এ ছাড়া ২০টি রাজ্যে ১৯৯১ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত বন্দুক দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনাও বেড়েছে উল্লেখযোগ্যভাবে।

বোস্টন ইউনিভার্সিটির স্কুল অব পাবলিক হেলথ ডিপার্টমেন্টের করা ওই প্রজেক্টে বিভিন্ন প্রদেশে বন্দুকের ব্যববহার নিয়ন্ত্রণে প্রণীত আইন অপরাধ কমানোর ক্ষেত্রে কতটা কার্যকর তা মিলিয়ে দেখা হয়েছে। তবে আইনের কঠোরতাই যে হত্যার পরিমাণ কমাতে সহায়তা করছে, এমন সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারেননি গবেষকরা।

গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন, ক্যালিফোর্নিয়াতে বন্দুক ব্যবহার নিয়ে আইন রয়েছে ১০৪টি, যা প্রদেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। অন্যদিকে আলাস্কা, ইদাহো এবং মন্টানাতে রয়েছে সবচেয়ে কম আইন এবং এ সংখ্যা মাত্র চার। তবে রাজ্যগুলোতে গড় আইন রয়েছে ২৭টি করে।

১৯৯১ সালের পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যের বন্দুক হামলার হার। ছবি: সংগৃহীত

ম্যাসাচুয়েটস, কানেক্টিকাট, ক্যালিফোর্নিয়া এবং রোডি আইল্যান্ডের মতো প্রদেশগুলোতে বন্দুকের ওপর রয়েছে কঠোর আইন এবং এখানে বন্দুক দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনাও সবচেয়ে কম। অন্যদিকে, ১৯৯১ সালের পর থেকে আলাস্কায় বন্দুক দিয়ে আত্মহত্যার পরিমাণ বেড়েছে শতকরা ১০০ ভাগ। আর এখানে আইনও নমনীয়। মন্টানা, পশ্চিম ভার্জিনিয়া এবং ইয়মিংয়ের মতো প্রদেশগুলোতেও লক্ষ্য করা গেছে এই প্রবণতা।

তবে যখনই আইন এবং হত্যাকাণ্ডের মধ্যে সম্পর্ক খোঁজা হয়েছে তখন চিত্রটা অনেকাংশেই অপরিষ্কার রয়ে গেছে। যেমন বন্দুক ব্যবহার নিয়ে সবচেয়ে কঠিন আইন ক্যালিফোর্নিয়ায় এবং এখানে গত ২৫ বছরে হত্যকাণ্ডের ঘটনা কমেছে ৬০ শতাংশ। একই চিত্র নিউ ইয়র্ক, রোডি আইল্যান্ড ও ইলিনয়ের মতো প্রদেশগুলোতে। তবে এমনও রাজ্য রয়েছে যেগুলোতে বন্দুক নিয়ন্ত্রণে আইনের সংখ্যা যেমন কম, তেমনি হত্যাকাণ্ডের ঘটনাও কম। যেমন টেক্সাসে আপনি কলেজের জীববিজ্ঞান ক্লাসেও বন্দুক নিয়ে যেতে পারবেন কিন্তু সেখানেই বন্দুক ব্যবহার করে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা কমেছে শতকরা ৬১ ভাগ।

সুতরাং দেখা যাচ্ছে বন্দুক ব্যবহারে কঠোর আইন প্রণয়ন না করা সত্ত্বেও কিছু রাজ্যে হত্যাকণ্ডের ঘটনা অনেক কম। তবে মানুষের মধ্যে হতাশা, সামাজিক অসুস্থতা, বসবাসের স্থানের সুযোগ-সুবিধা এবং শিক্ষার মতো বিষয়গুলো অপরাধ ঘটানোর ক্ষেত্রে নিয়ামক হিসেবে কাজ করে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button