খেলাধুলা

দুধর্ষ পেস জুটি হবে মুস্তাফিজ-তাসকিন: ওয়ালশ

ঢাকা, ০৭ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

কোর্টনি ওয়ালশ কেবল একটা নাম নয়; যেন এক ক্রিকেট রূপকথার চরিত্র। এই ক্যারিবীয় কিংবদন্তি এখন বাংলাদেশের বোলিং কোচ।

এই মুহূর্তে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলতে ইংল্যান্ডে আছে টিম টাইগার। এখনো জয়ের দেখা না পেয়ে বাজে অবস্থায় আছে মাশরাফি বাহিনী। এই পরিস্থিতিতে আইসিসির সঙ্গে খোলামেলা আলাপে যোগ দিলেন বোলিং কোচ। দীর্ঘ আলাপচারিতায় বললেন বাংলাদেশের পেস ভবিষ্যত নিয়ে। সেই সাক্ষাতকারের চুম্বক অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:পেস বোলিংয়ের একজন আইকন হিসেবে বাংলাদেশের তরুণ পেসারদের মাঝে আপনি কেমন বোধ করছেন?

ওরা ভীষণ ভালো। আমাকে পেয়ে যে ওরা ভীষণ খুশি হয়েছে তা এমনিতেই বোঝা যায়। কোচিং স্টাফসহ সবাই আমাকে স্বাগত জানিয়েছে। ওরা সবাই ভীষণ হেল্পফুল। আমার কাজ এ কারণেই অনেক সহজ হয়ে গেছে। বাংলাদেশের এই দলটিতে বেশ কয়েকজন প্রতিভাবান ক্রিকেটার আছে। আমি ওদের সঙ্গ খুব উপভোগ করছি।

আপনি কীভাবে ওদের সামলান? কঠোরভাবে নাকি মজার মাধ্যমে?

দায়িত্ব পালনে আমি অবশ্যই খুব কঠোর। পাশাপাশি আমি ওদের সঙ্গে মজা করতে পছন্দ করি। যাতে তরুণদের একটু রিলাক্স করে সেরাটা বের করে আনা যায়। আমি ওদের সাথে খুব মনখুলে কথা বলি। অনুশীলন শেষে যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকে তাহলে সবাইকে বলি- এটা একটা ভালো দিন ছিল। আর আমার পছন্দমতো কাজ না হলে সরাসরি বলি- আজ খুব খারাপ একটা দিন গেছে।

আপনি হিথ স্ট্রিকের কাছ থেকে দায়িত্ব নিয়েছিলেন, যিনি বাংলাদেশের পেস বোলিং উন্নয়নে দারুণ কাজ করেছেন। এই মুহূর্তে আপনার কাছে বড় চ্যালেঞ্জ কোনটা?

হিথ স্ট্রিক বাংলাদেশের পেসারদের জন্য সত্যিই অসাধারণ অবদান রেখেছেন। তিনি যেসব ট্রেন্ড শুরু করেছিলেন আমি সেগুলো অব্যাহত রেখেছি এবং উন্নতি ঘটানোর চেষ্টা করছি। আমি পেসারদের সেরাটা বের করে আনতে চাই; কারণ দিনশেষে কথা একটাই- ম্যাচ জয়। আমাদের পুরো কোচিং স্টাফ মিলে ক্রিকেটারদের জয়ের ক্ষুধা আরও বাড়িয়ে দেওয়ার কাজ করে যাচ্ছি। এখানে আমার শুরুতে ভাষাগত সমস্যা হচ্ছিল। কোনো ট্রান্সলেটরও ছিলেন না। তবে বেশ কয়েকজন এই সমস্যার সমাধানে আমাকে অনেক সহযোগিতা করছেন।

ওয়ালশ-অ্যাম্ব্রোস জুটির মত বাংলাদেশে কোনো পেস জুটি গড়ার পরিকল্পনা আছে?

অবশ্যই। আমি সবসময় ওদের এটা বলে থাকি যে- পেসাররা শিকার ধরে জুটির মাধ্যমে। একসময় ক্রিকেট বিশ্ব শাসন করতেন ওয়ার্ন-ম্যাকগ্রা, হোল্ডিং-রবার্টস, মার্শাল-গার্নার, লিলি-থমসন, আকরাম-ওয়াকার জুটিরা। আমি ওদের সবসময় এই কিংবদন্তিদের থেকে প্রেরণা দেই। আমরা যদি অন্ততঃ একটি জুটি পেয়ে যাই তবে বাংলাদেশের ক্রিকেট অনেক শক্তিশালী হবে।

বাংলাদেশে এমন কোনো জুটিকে আপনি পছন্দ করেছেন?

এখানেও সম্ভাবনাময় কয়েকজন পেসার আছে। দুই তরুণ মুস্তাফিজুর রহমান এবং তাসকিন আহমেদ। শফিউল-রুবেলও আছে। সম্প্রতি টি-টোয়েন্টি থেকে অবসর নেওয়া অধিনায়ক মাশরাফি এখনও পর্যন্ত অসাধারণ একজন পেসার। এদের সঙ্গে আরেক তরুণ স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ আছে। তাসকিনের সঙ্গে মুস্তাফিজ যদি ১০ বছর একসাথে কাজ করতে পারে, তবে একটি দুধর্ষ জুটি হবে।  মেহেদী যদি তার স্পিন আক্রমণ নিয়ে এই দুজনের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে; তবে বাংলাদেশের বোলিংয়ে জন্য তা অসাধারণ একটা ব্যাপার হবে! তারা সবাই জানে, ক্যারিয়ারকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে তাদের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে এবং নিজেদের খেলার উন্নতি ঘটাতে হবে।

বাংলাদেশের পরবর্তী টার্গেট কি একজন গতিতারকা খুঁজে বের করা?

হ্যাঁ। এটা কোনো ছোট কাজ নয়, কিন্তু আমাদের সেই সামর্থ আছে। তাসকিনের কথা আমি বলব, একজন গতিতারকা হয়ে ওঠার জন্য ওর মধ্যে সব সম্ভাবনা আছে। এজন্য ওর সামর্থ এবং দক্ষতা বাড়াতে ওকে নিয়ে আমরা কাজ করছি।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button