জেলার সংবাদ

নিজাম শিপিং লাইন্সের নির্মাণাধীন তিনতলা লঞ্চে আগুন

ঢাকা, ০৭ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার দপদপিয়ার পুরণো ফেরিঘাট এলাকায় নিজাম শিপিং লাইন্সের নির্মাণাধীন তিনতলা একটি লঞ্চ (ওয়াটার বাস) আগুনে পুড়ে পাঁচ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে।

তবে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ বলছে এটি কোন দুর্ঘটনা নয়, নাশকতা। ঈর্ষান্নিত হয়ে কেউ লঞ্চটিতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে বলে তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় নিজাম শিপিং লাইন্সের প্রকৌশলী কামরুল হাসান জানিয়েছেন।জানা যায়, দিনের বেলায় নদী পথে চলাচলের জন্য নিজাম শিপিং লাইন্সের এডভেন্সার ৫ ও ৬ নামে দুটি লঞ্চের (ওয়াটার বাস) নির্মাণ কাজ চলছিল। এডভেন্সার ৫ নামের লঞ্চটি শতভাগ নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। এডভেন্সার ৬ লঞ্চটিরও ৯০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। ঈদের আগেই লঞ্চ দুটি বরিশাল-ঢাকা নৌপথে চলাচল শুরু করার কথা ছিল।

মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে কাজ শেষে শ্রমিকরা নামাজ পড়তে যায়। কিছুক্ষণ পরেই বিকট শব্দে প্রকম্পিত হয় দপদপিয়া এলাকা। মুহূর্তের মধ্যে আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে। এলাকাবাসী ও ফায়ার সার্ভিস খবর পেয়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ঘটনাস্থলে ছুটে এসে দুই ঘণ্টার প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়। ততক্ষণে পুড়ে যায় এডভেন্সার ৬ নামের তিন তলা বিশিষ্ট লঞ্চটি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, প্রকট শব্দ ও আগুন জলতে দেখে স্থানীয়রা নদী থেকে পানি ঢেলে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায়। কিক্ষুক্ষণের মধ্যে বরিশাল ও নলছিটি থেকে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। পুরো এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এলাকাবাসীর সহযোগিতায় একটি লঞ্চ আগুনের হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে।

নিমাজ শিপিং লাইন্সের প্রকৌশলী কামরুল হাসান জানান, তাদের শ্রমিকরা নামাজে যাওয়ার পরপরই কেউ নাশকতার উদ্দেশ্যে লঞ্চে আগুন ধরিয়ে দেয়। কারণ লঞ্চ দুটি ঈদের আগেই উদ্বোধনের কথা ছিল। বড় ধরণের ক্ষতি করার জন্যই আগুন লাগানো হয়েছে। আগুনে লঞ্চের পুরো ডেকোরেশন পুড়ে যায়। এতে প্রায় পাঁচ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

উল্লেখ্য, ব্যবসায়ী মো. নিজাম উদ্দিন মৃধা ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার দপদপিয়া পুরনো ফেরিঘাট এলাকায় নিজাম শিপিং লাইন্স নামে একটি জাহাজ তৈরির কারখানা গড়ে তোলেন। দীর্ঘদিন ধরে তার এই শিল্পকারখানায় দুটি লঞ্চ নির্মাণের কাজ চলছিল। একটি সম্পূর্ণ লঞ্চ নির্মাণ হয়েছে। অপরটিও ১০-১২ দিনের মধ্যেই নির্মাণ সম্পন্ন হতো। এরই মধ্যে দুর্ঘটনায় একটি লঞ্চলের পুরো ডেকোরেশন পুড়ে যায়। তবে অপর লঞ্চটি অক্ষত অবস্থায় রয়েছে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button