প্রবাসের খবর

‘ভুয়া পিতা’ বানাচ্ছেন গর্ভবতী নারীরা

বিভিন্ন দেশের গর্ভবতী নারীরা জার্মানের নাগরিকত্ব পাবার উদ্দেশ্যে একটি অভিনব পদ্ধতির উদ্ভাবন করেছেন! তারা তাদের অনাগত সন্তানের ‘ভুয়া পিতা’ বানাচ্ছেন জার্মান পুরুষদের। যারা পিতা হচ্ছেন, তারা উক্ত গর্ভবতী নারীদের কাছ থেকে পাচ্ছেন মোটা অংকের অর্থ। জার্মান সম্প্রচার মাধ্যম আরবিবি তাদের এক অনুসন্ধানে দেখেছে যে, কেবল বার্লিনেই এমন ঘটনা ঘটেছে ৭০০ এর অধিক। এছাড়াও লোকচক্ষুর আড়ালেও ঘটেছে এমন অনেক ঘটনা, রয়েছে অনেক কেইসও। ভিয়েতনাম, আফ্রিকা ও পূর্ব ইউরোপের বহু অভিবাসী নারী আছেন যারা জার্মানিতে আশ্রয় প্রার্থনা করে আবেদন করেছেন। ভুয়া পিতা বানানোর এই প্রবণতা মোকাবিলা করার জন্য ইতোমধ্যে নতুন একটি আইনের খসড়াও অনুমোদন দেয়া হয়েছে জার্মানে। আরবিবি’র প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হচ্ছে।

গর্ভবতী নারীরা ভুয়া পিতা বানানোর জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় করছেন। একবার যদি সন্তানের নাম রেজিস্টার হয়ে যায় তাহলে অনাগত সন্তান হবে জার্মান নাগরিক এবং সেই সাথে শিশুর মাও জার্মানির নাগরিকত্ব পেয়ে যাবেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তা মি: স্ক্রোডার বলছেন ‘অভিবাসন বিষয়ক কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে আমরা অনেক এমন ঘটনার প্রমাণ পাচ্ছি যে ‘ভুয়া পিতা’ হয়ে অনেক টাকা উপার্জন করে নিচ্ছে। এটা আসলে এক ধরনের অপরাধ, কোনোভাবে এটা সমর্থন করা যায় না’।

জার্মানের অনেক পুরুষ এটিকে ব্যবসা হিসেবে নিচ্ছেন। এক ব্যক্তি রয়েছেন যিনি নিজেকে ১০ সন্তানের বাবা বলে দাবি করছেন!

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button