প্রবাসের খবর

সমৃদ্ধি ও উন্নয়নে দূষণমুক্ত মহাসাগরের বিকল্প নেই’

ঢাকা, ০৯ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

দারিদ্র্য বিমোচন, সমৃদ্ধি ও উন্নয়ন এবং সর্বোপরি জীবনের জন্য দূষণমুক্ত মহাসাগরের কোন বিকল্প নেই।আমাদের সমুদ্র, মহাসমুদ্র ও সামুদ্রিক সম্পদ সংরক্ষণ এবং এর টেকসই ব্যবহারের বিষয়গুলো শুধু কথার মধ্যে না রেখে একে কাজে পরিণত করার এখনই সময়।
বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ওশান কনফারেন্সের সাধারণ সভায় এলডিসি গ্রুপের পক্ষে বক্তব্য প্রদানকালে এ কথা বলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিট এর সচিব রিয়ার এডমিরাল (অবসরপ্রাপ্ত) মো. খুরশিদ আলম। তিনি ছয় সদস্যের বাংলাদেশ ডেলিগেশনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।
রিয়ার এডমিরাল (অবসরপ্রাপ্ত) মো. খুরশিদ আলম বলেন, সমুদ্রের অব্যাহত দূষণ, সমুদ্র সম্পদের অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহার এবং সামুদ্রিক উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে এলডিসির দেশসমূহ সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। কিন্তু এতে এ সকল দেশসমূহের ভূমিকা খুবই নগন্য। এ প্রেক্ষিতে তিনি সমুদ্র দূষণ মোকাবেলায় সকল পর্যায়ে সচেতনতা বৃদ্ধি, বিজ্ঞানের ব্যবহার, যথাযথ আর্থিক নীতি প্রণয়ন, নেতিবাচক মৎস্য ভতুর্কি বন্ধ এবং অবৈধ মাছ ধরার প্রতি নিষেধাজ্ঞাসহ ৭টি সুনির্দিষ্ট বিষয় তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।
বিদ্যমান বিভিন্ন চুক্তি ও কাঠামো অনুযায়ী এলডিসির জন্য সামুদ্রিক ও অন্যান্য প্রযুক্তি হস্তান্তর সক্ষমতা বৃদ্ধি, সকল স্তরে কার্যকর অংশীদারিত্ব এবং টেকসই তহবিল গঠনে জি-৭ সহ উন্নত দেশগুলোকে কার্যকর প্রদক্ষেপ নিতে তিনি আহ্বান জানান।
৫ জুন মাস থেকে শুরু হওয়া সপ্তাহব্যাপী এই ওশান কনফারেন্সে ১৪ জন সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানসহ জাতিসংঘ সদস্য রাষ্ট্রসমূহের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিগণ অংশ নিয়েছেন। এলডিসির দেশসমূহের পক্ষে বক্তব্য প্রদান ছাড়াও বাংলাদেশ ৭টি বিষয়ভিত্তিক আলোচনা পর্বে অংশগ্রহণ ও ২টি সাইড-ইভেন্টের আয়োজন করে। প্লাস্টিক ব্যাগের ব্যবহার, মৎস্য ও অন্যান্য সামুদ্রিক প্রজাতি, বনায়ন এবং ম্যানগ্রোভ বনের প্রতিবেশগত টেকসই উন্নয়ন বিষয়ে বাংলাদেশ এ সম্মেলনে প্রতিশ্রুতি প্রদান করে।
জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ ও সাধারণ পরিষদের প্রেসিডেন্ট পিটার থমসন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। ৯ জুন  ‘কল-ফর-অ্যাকশন’ গ্রহণের মাধ্যমে এ সম্মেলন শেষ হবে।
Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button