অর্থ ও বাণিজ্য

ইউরোপের ২৮টি দেশে হুমকিতে বাংলাদেশি রফতানি পণ্য

ঢাকা, ১০ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

বাংলাদেশের রফতানি পণ্যের বৃহত্তম বাজার ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) অর্থাৎ ইউরোপের ২৮টি দেশ। সম্প্রতি ইইউ বাংলাদেশকে উচ্চ ঝুঁকির দেশ হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে। বাংলাদেশ থেকে কোনো কার্গোবাহী বিমান সরাসরি ইউরোপে যেতে পারবে না মর্মে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

ফলে আকাশপথে কার্গোবাহী বিমান তৃতীয় কোনো দেশে আবার স্ক্যানিং হতে হবে। গত ১ জুন থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছে। এতে ইউরোপের ২৮টি দেশে হুমকিতে রয়েছে বাংলাদেশি রফতানি পণ্য।

বাংলাদেশ সিভিল এভিয়েশন ও বিমানকে এক চিঠিতে ইইউ জানিয়েছে, বাংলাদেশ থেকে সরাসরি কার্গো পণ্য তাদের দেশগুলোতে প্রবেশ করতে পারবে না। তবে কার্গো পণ্য ইইউভুক্ত সিভিল এভিয়েশন অনুমোদিত দ্বিতীয় কোনো দেশ থেকে রি-স্ক্যান করে নিলে প্রবেশের ক্ষেত্রে কোনো বাধা থাকবে না।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, বিমানের কার্গো রফতানি টার্মিনালটি বহিরাগত জনবল দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। পণ্য স্ক্যানিংয়ে বিমান ও সিভিল এভিয়েশনের গাফিলতি ও অবহেলা রয়েছে।

বিমানের পরিচালক (মার্কেটিং) আলী আহসান বাবু বলেন, ‘ইইউ কার্গো রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পরও মঙ্গলবার তৃতীয় দেশে স্ক্যানিং হয়ে কার্গো পণ্য গেছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে। ইতোমধ্যে তাদের শর্ত অনুযায়ী ইডিএস মেশিন বসানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।’

তবে জলপথে রফতানি পণ্য তৃতীয় কোনো দেশে স্ক্যান করার কোনো শর্ত ইইউর নেই। জানা গেছে, ইইউর বিধিনিষেধ আরোপের পর থেকে ক্যাথে প্যাসিফিক ও ড্রাগন এয়ারের কার্গোতে পণ্য পরিবহন হচ্ছে না। শুধু টার্কিশ, ইতিহাদ, কাতার এয়ারওয়েজসহ কয়েকটি এয়ারলাইন্সে পণ্য পরিবহন হচ্ছে। তবে আগের চেয়ে কমে গেছে।

বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সাবেক সহসভাপতি ও বিমানের সাবেক বোর্ড মেম্বার আবুল কাশেম আহমেদ বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশ থেকে আকাশপথে সরাসরি কার্গো পণ্য পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় তৈরি পোশাক ও চামড়াজাত পণ্য খাত ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে।’

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক কাজী ইকবাল করিম বলেন, ‘ইইউর এ সিদ্ধান্তে আমাদের কার্গো পণ্য পরিবহনে কোনো সমস্যা হবে না। যে এয়ারলাইন্স বাংলাদেশ থেকে কার্গো পণ্য নিয়ে যাবে, তারা চাইলে দুবাই ও জেদ্দায় দ্বিতীয় ধাপে স্ক্যান করতে পারবে।’

অার বিমান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ৭৫ কোটি টাকা দিয়ে দুটি এক্সপ্লোসিভ ডিটাকশন মেশিন কার্গো ভিলেজে বসানোর কাজ চলছে। আগস্টের মধ্যে তা বাস্তবায়ন হবে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button