খেলাধুলা

মাথা উঁচু করেই ফিরছে টাইগাররা: সাঙ্গাকারা

ঢাকা, ১৬ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

কোটি প্রাণে নতুন কিছু করে দেখানোর আশা জাগিয়ে সেমিফাইনালে নেমেছিল বাংলাদেশ। যদিও শেষ পর্যন্ত বড় ম্যাচে খেলার অভিজ্ঞতা আর ভাগ্যে পিছিয়ে থাকা টাইগাররা বার্মিংহামে টিম ইন্ডিয়ার কাছে হেরেছে বড় ব্যবধানেই।

এত কিছুর পরেও অবশ্য টুর্নামেন্ট থেকে টাইগারদের প্রাপ্তি নেহাত কিছু কম নয়। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল- আইসিসির সবচেয়ে বড় আসরের একটিতে প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে উঠাই টাইগারদের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি।

এছাড়া গ্রুপ পর্বে দুর্দান্ত পারফরমেন্সের মাধ্যমে মূলপর্ব নিশ্চিত করা মাশরাফি-তামিমদের যোগ্যতা নিয়ে এখন আর কেউ প্রশ্ন তুলতে পারবে না। রাইজিং টাইগার নিকট ভবিষ্যতে যে আরও চমক নিয়ে হাজির হবে সে বিষয়ে এক প্রকার নিশ্চিত ক্রিকেট বিশ্লেষকরা।

সেমিফাইনালে বাংলাদেশের পরাজয়ের পর আইসিসির ওয়েবসাইটে লেখা এক কলামে শ্রীলংকার সাবেক ক্রিকেটার কুমার সাঙ্গাকার বলেছেন, টাইগাররা মাথা উঁচু করেই টুর্নামেন্ট শেষ করেছে। যোগ্যতার পরিচয় দিয়েই টুর্নামেন্টের মূলমপর্বে খেলেছেন মাশরাফি-তামিম ও সাকিবরা।

সাঙ্গাকারার মতে, বার্মিংহামে চমকপ্রদ এশিয়ান ডার্বি দেখেছে বিশ্ববাসী। একইসঙ্গে ফাইনালে আরও বড় ধরনের ডার্বি ম্যাচ দেখার অপেক্ষা সবার।

আয়োজক দেশের আবহাওয়া ও কন্ডিশনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে এশিয়ার তিনটি দলের সেমিফাইনালে উন্নীত হওয়া নিয়েও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন এই ‘গ্রেট’ ক্রিকেটার। এর জন্য তিনি দলগুলোর খেলোয়াড় ও সংশ্লিষ্ট দলগুলোর স্টাফদের প্রশংসা করেছেন।

সেমিফাইনালের বাংলাদেশ ম্যাচ নিয়ে তিনি বলেন, গেমটিতে বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত সব বিভাগে পরাস্ত হয়েছে। তবে গ্রুপপর্বে অস্ট্রেলিয়াকে পিছনে ফেলে সেমিফাইনালে ওঠায় ঢাকায় পরবর্তী সিরিজে টাইগারদের মাথা উঁচুই থাকবে বলে মন্তব্য তার।

সাঙ্গাকারা বলেন, গত কয়েক বছরে টাইগার ক্রিকেট অনেকদূর এগিয়ে গেছে। এর পেছনে ছিল চন্ডিকা হাথুরুসিংয়ের উন্নত কোচিং, সহায়ক ক্রিকেট বোর্ড ও সাকিব আল হাসানের মতো সিনিয়র খেলোয়াড়দের দলের প্রতি আত্মত্যাগ। এসবের মাধ্যমেই বাংলাদেশ ক্রিকেট দল একটি শক্তিশালী দলে পরিণত হচ্ছে।

সাঙ্গাকার বলেন, সেমিফাইনালে ওঠা বাংলাদেশের স্থিতিশীল এবং শক্তিশালী ক্রিকেট প্রদর্শনী ১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপ জয়ী শ্রীলংকার দলকে স্মরণ করিয়ে দেয়।

গত দুইটি আইসিসি ইভেন্টে নক আউট পর্বে যাওয়ার মাধ্যমে টাইগাররা ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে যে আবির্ভূত হচ্ছে সেটাই প্রকাশ পাচ্ছে।

সাঙ্গাকারা আরও বলেন, বাংলাদেশ তার বিগত দিনের পারফরমেন্সের কারণে গর্বিত ও খুশি হতে পারে। উচ্ছ্বসিত হওয়াটাই তাদের জন্য যথার্থ। তবে আগামীকে জয় করতে তাদের বোলিং শক্তিকে আরও বৈচিত্র্যপূর্ণ করে তুলতে হবে। বিশ্বকাপে তাদের ভালো পারফরমেন্সের জন্য বোলিংয়ের ধার ও বিষ বাড়ানোরও পরামর্শ দিয়েছে সাঙ্গাকারা।

সাঙ্গাকারার আশা, ব্যাটিং ও বোলিং বিভাগে উন্নতি করতে পারলে আগামীতে ঘরে আর বাইরে সবখানেই ভালো করতে পারবে টাইগাররা।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button