জেলার সংবাদ

ঈদের আনন্দ যেখানে পৌছায় না

ঢাকা, ২৪ জুন, (ডেইলি টাইমস ২৪):

পিয়াজ আর কাঁচা মরিচ দিয়ে পান্তা ভাত হয়তো বিত্তবানদের কাছে খুব লোভনীয় খাবার। কিন্তু চার বছরের শিশু মরিয়মের কাছে মোটেই লোভনীয় নয়। শুধুই বেঁচে থাকার তাগিতে আহার গ্রহণ মাত্র।
শুক্রবার দুপুরে পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার বালিপাড়ার কলারন জাপানী ব্যারাক হাউজে গেলে কাঁচা মরিচ আর পিয়াজ দিয়ে পান্তা ভাত খেতে দেখা যায় মরিয়মকে। এসময় তার নানী রওশনা বেগম ইফতার ও সেহরির খাবার তৈরি করছিলেন। কুড়িয়ে আনা বুনো শাক আর করলা কাটাকুটিতে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। এ দিয়ে হবে তাদের ইফতার ও সেহরি। তার সামনে বসেই দুপুরের খাবার খাচ্ছিল মরিয়ম।
মাত্র দুই বছর বয়সে মরিয়মকে ফেলে রেখে পালিয়ে গেছেন তার মা-বাবা। জীবিকার অন্বেষণে মা রেকসোনা বেগম অবৈধ ভাবে পাড়ি জমিয়েছে ভারতে। তাই মরিয়ম থাকছে তার নানির সাথে। হতদরিদ্র নানী রওশনা বেগমের সংসার চলে টানাপড়েনের মধ্য দিয়ে। পুরো রোজার মাসে যে সময় শহুরে বিত্তবানরা খাবার অপচয়ে মত্ত থাকেন। ঠিক সে সময় কলারন জাপানি ব্যারাক হাউজের ৩৭টি পরিবার পানি, চিড়া বা মুড়ি দিয়েই ইফতার করেছে। আবার অনেকে শুধু ভাত দিয়েই ইফতার ও সেহরি করেছেন।
অন্য শিশুরা মরিয়মের মত করেই দায়সারা জীবন-যাপন করছে। তাদের মত করেই উপজেলার চাড়াখালী গুচ্ছগ্রাম, পাড়েরহাট আবাসন, সাউথখালী আবাসন ও কলারন ব্যারাকের কয়েক শত পরিবার অতি কষ্টে দিনাতিপাত করছে। নদী তীরের এই মানুষগুলো অধিকাংশ দিন মজুর ও মৎস্যজীবী।এখন ইলিশের মৌসুম হলেও ইলিশ শিকার নিষেধ। তাই জেলেরা নদীতে যেতে পারছে না। আবার টানা বৃষ্টি ও অতিরিক্ত জোয়ারের পানি বৃদ্ধির কারণে কর্মহীন হয়ে পড়েছে। ফলে তাদের পরিবারগুলোতে ঈদ আনন্দ ম্লান হতে যাচ্ছে।
স্থানীয় কৃষক আলতাফ হোসেন জানান, ‘মোরা যারা খ্যাতে খামারে কাম হরি মোগো কপালে কিছু না কিছুতো জোডে। তয় ব্যরাকে যারা থাহে হ্যারা পায়না কিছুই। খাইয়া না খাইয়া থাহে গুরাগারা লইয়া।’ ব্যারাকের বাসিন্দা মো. জলিল জানান, সকল ধরণের সুযোগ সুবিধা দিয়ে তারা বঞ্চিত। তাদের রোযার মধ্যে কেউ কোন খোঁজ নেয়নি। ঈদে তাদের সন্তানদের নতুন কাপড় কিনে দেয়ার মত অবস্থা তাদের নেই। তাই হয়তো ঈদের দিনটিও কাটবে তাদের অন্য দশটি দিনের মত করেই।
বালিপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান কবির হোসেন বয়াতী জানান, চাড়াখালী গুচ্ছগ্রাম, পাড়েরহাট আবাসন, সাউথখালী আবাসন ও কলারন ব্যারাকের কয়েক শত পরিবার অতিদরিদ্র। যাদের ঈদ বস্ত্র ক্রয়ের সাধ্য নাই। এই অসহায় মানুষদের পাশে বিত্তবানদের দাঁড়ানোর অনুরোধ জানান তিনি।
Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button