শিক্ষা

জাবিতে বন্ধু ভেবে নেতাকে ‘তুই’ বলায় ছাত্রলীগের কাণ্ড!

ঢাকা, ০৪ নভেম্বর, (ডেইলি টাইমস ২৪):

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) বন্ধুর মোবাইলে কল দিতে গিয়ে ভুল করে ছাত্রলীগ নেতাকে কল দিয়ে ফেলে এক শিক্ষার্থী। কল ধরার পর বন্ধু মনে করে তুই বলে সম্বোধন করার অপরাধে ছাত্রলীগের জুনিয়র কর্মীদের হাতে মেধড়ক মারপিটের শিকার হতে হয়েছে ওই শিক্ষার্থীকে।
অভিযুক্ত শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি বায়েজিদ রানার নির্দেশে ১ম ও ২য় বর্ষের ছাত্রলীগকর্মীরা ৪র্থ বর্ষের শেখ সারওয়ার আমির নামে ওই শিক্ষার্থীকে বেধড়ক মারধর করে।
বুধবার রাত ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের সামনে এ ঘটনা ঘটে। পরে বৃহস্পতিবার বিষয়টি জানাজানি হয়।
অভিযুক্ত বায়েজিদ রানা ৪১তম ব্যাচের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ ও বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের শিক্ষার্থী। তিনি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি জুয়েল রানা গ্রুপের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
মারধরের শিকার সারওয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ৪৩তম ব্যাচ ও একই হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।
জানা যায়, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ৪৩তম ব্যাচের তৌফিকের মোবাইল নম্বর মনে করে  ভুলবশত ৪১তম ব্যাচের বায়েজিদ রানাকে ফোন দেয় সারওয়ার। সে অনুযায়ী,  বায়েজিদকে বন্ধু হিসেবে নাম ধরে ডাকে এবং তুই বলে সম্বোধন করে কথোপকথন করে সারওয়ার।
এর কিছুক্ষণ পর বায়েজিদের নির্দেশে হলের সামনে ৪৫তম ব্যাচের সাকিবসহ (আইন বিভাগ), রেজা (আইন বিভাগ), তাকিদ (পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ) ১০-১৫ শিক্ষার্থী এসে সারওয়ারকে বেধড়ক মারধর করে।
পরে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের সহায়তায় আহত সারওয়ারকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়।
এ বিষয়ে শেখ সারওয়ার আমির বলেন, ‘কী কারণে তারা মারছে আমি ওই মুহূর্তে বুঝতেই পারিনি। কিন্তু পরে বুঝতে পারি, বায়েজিদ ভাইকে ভুলবশত নাম ধরে ডাকায় আমাকে মারধরে করেছে। ওই সময় ভুল স্বীকারে ক্ষমা চাওয়ার পরও তারা আমাকে মারধর করে।’
এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানা  বলেন, ‘বিষয়টি আমি শুনেছি। ওই জুনিয়রের সঙ্গে কথা বলে মীমাংসা করা হয়েছে। তাই সাংগঠনিকভাবে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’তবে অভিযুক্ত বায়েজিদ রানার মোবাইল ফোনে একাধিকবার চেষ্টা করলেও ফোন রিসিভ করেননি।

 

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button