জাতীয়

ক্ষমা পেলেন ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালক

ঢাকা, ০৬ নভেম্বর, (ডেইলি টাইমস ২৪):

রিড ফার্মাসিউটিক্যালসের ভেজাল প্যারাসিটামল সিরাপ খেয়ে ২৮ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে পার পেলেন ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান।

সোমবার এক  ক্ষমা প্রার্থনার আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমানের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু। অন্যদিকে ওই আবেদনের বিপক্ষে শুনানি করেন রিটকারী আইনজীবী মনজিল মোরসেদ।

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ যুগান্তরকে জানান, ‘রিড ফার্মার ভেজাল প্যারাসিটামল সিরাপ খেয়ে ২৮ শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় অদক্ষতা ও অযোগ্যতার কারণে শফিকুল ইসলাম নামের এক কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়। বরখাস্ত হওয়া সত্ত্বেও ওই কর্মকর্তা কাজে যোগ দেন এবং সরকারি কাগজপত্রে স্বাক্ষর করেন। পরে ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালককে বরখাস্ত হওয়া কর্মকর্তার কাজে যোগদানের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে নোটিশ দেয়া হয়।’

ওই নোটিশের পরিপ্রেক্ষিতে ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালক হাইকোর্টে আজ  নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তাকে ক্ষমা করেন।

এর আগে, ২০০৯ সালে রিড ফার্মার ভেজাল প্যারাসিটামল সিরাপ খেয়ে সারা দেশে ২৮ শিশু মারা যায়। এ ঘটনায় ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের পক্ষ থেকে পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। মামলার বিচার শেষে গত বছরের ২৮ নভেম্বর পাঁচজনকে খালাস দেন বিচারিক আদালত।

মামলার রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারিক আদালত বলেছিলেন, ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর মামলাটি করার ক্ষেত্রে ১৯৮০ সালের ড্রাগ আইন যথাযথভাবে অনুসরণ করেনি। মামলায় যথাযথভাবে আলামত জব্দ করা, তা রাসায়নিক পরীক্ষাগারে পাঠানো ও রাসায়নিক পরীক্ষার প্রতিবেদন আসামিদের দেয়া হয়নি। এক্ষেত্রে ড্রাগ আইনের ২৩, ২৫ ধারা প্রতিপালন করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে তৎকালীন ওষুধ তত্ত্বাবধায়ক শফিকুল ইসলাম ও আলতাফ হোসেন চরম অবহেলা, অযোগ্যতা ও অদক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button