জেলার সংবাদ

প্রতারণাকালে শিল্প পুলিশের এএসআইসহ আটক ৫

ঢাকা, ০৮ নভেম্বর, (ডেইলি টাইমস ২৪):

ঢাকার অদূরে আশুলিয়ায় ডিবি পুলিশ পরিচয়ে মাইক্রোবাসে তুলে প্রতারণার চেষ্টাকালে শিল্প পুলিশের এক এএসআইসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতদের মধ্যে একজন নারীও রয়েছেন।

এ সময় মাইক্রোবাসের ভেতর জিমি দশা থেকে মুক্ত করা হয়েছে চারজনকে।অভিযুক্ত ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে শিল্প পুলিশ ১। এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিল্প পুলিশের পরিচালক সানা শামীনুর রহমান। গতরাতে আশুলিয়ার বাইপাইল এলাকা থেকে প্রতারণা ও ছিনতাইয়ের অভিযোগে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন শিল্প পুলিশের এএসআই মকবুল হোসেন, তার সহযোগী বিপ্লব হোসেন (২৬), স্বপন মিয়া (২৮), হাসমত আলী শেখ (২৭) ও সানজিদা আক্তার সুমি। আর জিম্মিদশা থেকে মুক্তরা  হলেন শামীম, রায়হান হোসেন, আতিয়ার রহমান ও মেহেদী হাসান।

আশুলিয়া থানার ওসি আব্দুল আউয়াল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, রাতে আশুলিয়ার বাইপাইল কাঁচাবাজার এলাকায় শামীম হোসেন নামের এক যুবককে একটি মাইক্রোবাসে তুলে জিম্মি করে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছিল চক্রটি। খবর পেয়ে পুলিশ কৌশল অবলম্বন করে ডিবি পুলিশের স্টিকার সাটানো একটি সাদা মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো চ ৫৬-১৫১৯) জব্দ করে।

মাইক্রোবাসটির ভেতর থেকে পুলিশের ব্যবহৃত একটি ওয়ারলেস সেট, দুইটি হ্যান্ডকাফ ও ২০ হাজার টাকাসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র  উদ্ধার করা হয়। এ সময় জিম্মি অবস্থা থেকে শামীমসহ চার ব্যক্তিকেও উদ্ধার করা হয়। শামীমের শরীরে নির্যাতনের চিহ্ন রয়েছে।

এ ব্যাপারে ঢাকা শিল্প পুলিশ ১ সাভার-আশুলিয়া জোনের পরিচালক সানা শামীনুর রহমান শামীম জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে আটক শিল্প পুলিশের এএসআই মকবুল হোসেনকে সাময়িক বরখাস্ত করাসহ তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। একইসঙ্গে শিল্প পুলিশের পক্ষ থেকে এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

জিম্মিদশা থেকে উদ্ধার শামীম জানান, রাতে তিনি বাইপাইল বাসস্ট্যান্ডে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এ সময় একটি মাইক্রোবাস তার সামনে এসে দাঁড়ায়। পরে কয়েকজন ব্যক্তি গাড়ি থেকে নেমে তার কাছে মাদক রয়েছে বলে দেহ তল্লাশি শুরু করে। একপর্যায়ে তাকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে উঠিয়ে ২০ হাজার টাকা দাবি করে তারা। টাকা না দিলে মাদক মামলায় আসামি করে আদালতে পাঠানো হবে বলে হুমকি দেয় তারা। এ সময় বাধ্য হয়ে তিনি পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তার মা চম্পা বেগম বিকাশের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা পাঠান। পরে আরও ১০ হাজার টাকা দেওয়ার জন্য তারা চাপ প্রযোগ করতে থাকে। একপর্যায়ে তার মা আশুলিয়া থানায় খবর দিলে পুলিশ তাকে নিয়ে বাকি টাকা প্রদানের ব্যাপারে বিশেষ কৌশল অবলম্বন করে শামীমসহ জিম্মি ব্যক্তিদের উদ্ধার করে।

আশুলিয়া থানার ওসি আব্দুল আউয়াল জানান, গভীর রাতে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল শামীমের কাছে চাঁদা আদায়ের চেষ্টা করছে বলে খবর পান তারা। পরে তারা কৌশল অবলম্বন করে ঘটনাস্থল বাইপাইল মোড়ে গিয়ে অবস্থান নেন। একপর্যায়ে একটি প্রাইভেট কারে শামীমের মাকে ১০ হাজার টাকা প্রদানের জন্য বাইপাইলে পৌঁছালে তার কাছ থেকে টাকা নেওয়ার সময় চক্রটিকে হাতেনাতে আটক করা হয়। এ সময় চক্রটির দুই সদস্য কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে আটককৃতদের তথ্য যাচাই করে জানা যায়, ডিবি’র ওসি পরিচয় দেওয়া ব্যক্তি আশুলিয়া শিল্প পুলিশ ১ এর এএসআই মককুল হোসেন। এ সময় ভুয়া ডিবি সদস্য পরিচয় দেওয়া অন্যদেরকেও আটক করা হয়।

ওসি আব্দুল আউয়াল আরও জানান, এর আগেও এ চক্রটি ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে সাধারণ মানুষকে তুলে নিয়ে টাকা আদায় করেছে। আটকৃতদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button