আন্তর্জাতিক

পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি ভীতির জন্য বিজেপিকে ধিক্কার মমতার

ঢাকা , ২৩ সেপ্টেম্বর, (ডেইলি টাইমস২৪):

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি নিয়ে জনমনে ভীতি সৃষ্টির জন্য ক্ষমতাসীন বিজেপিকে ধিক্কার জানিয়েছেন রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার, শ্রমিক সগংঠনের একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে এনআরসির নামে ভীতি তৈরির অভিযোগ তোলেন তৃণমূলনেত্রী। তিনি দাবি করেন, ভীতি ছড়ানোর ফলে রাজ্যে ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এনআরসি বিষয়ে ধিক্কার জানিয়ে মমতা তার ভাষণে বলেন, ‘বাংলায় এনআরসি নিয়ে ভীতি তৈরির জন্য বিজেপিকে ধিক্কার জানাই। এর ফলে ছ’জনের মৃত্যু হয়েছে। আমার উপরে বিশ্বাস রাখুন। আমি এটা বাংলায় হতে দেব না।’

গত মাসে আসামে নাগরিকপঞ্জি করা হলে ১৯ লাখেরও বেশি মানুষ তাদের নাগরিকত্ব হারান। এরপর থেকেই বিজেপি নেতারা পুরো ভারতজুড়ে নাগরিকপঞ্জি চালুর তৎপরতা শুরু করেন। ভারতে প্রায় দুই কোটি বাংলাদেশি অবৈধভাবে বাস করছেন বলে দাবি করা হয় হিন্দুত্ববাদী দলটির পক্ষ থেকে। এদিকে বিজেপির এই সিদ্ধান্তের বলি পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিরাই হবেন বলে ধারণা স্পষ্ট। এ নিয়ে রাজ্যের সাধারণ নাগরিক থেকে শুরু করে বিজেপি-বিরোধী রাজনৈতিক দলসমূহ ও বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে চরম উদ্বেগের সৃষ্টি হয়।

অপরদিকে বিজেপি নেতাদের এনআরসি বিষয়ে অনড় অবস্থান ও হুমকি-ধামকিতে আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েন পশ্চিমবঙ্গের সর্বসাধারণ। গতকালই রাজ্যের উত্তর চব্বিশ পরগণার দুজন যুবক আত্মহত্যা করেন নাগরিকত্ব প্রমাণের প্রয়োজনীয় দলিলপত্র খুঁজে না পেয়ে। রাজ্যের অন্যান্য অংশে গত এক সপ্তাহে আত্মহত্যা করেছেন আরও ৪ জন।

উল্লেখ্য, ১৯৮৫ সালে তৎকালীন রাজীব গান্ধি কেন্দ্রীয় সরকার ও ‘অল আসামস স্টুডেন্টস’ ইউনিয়নের মধ্যে ‘আসাম চুক্তি’ নামে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এর আগে ছয় বছর ধরে সেখানে আন্দোলন হয়েছিল বাংলাদেশ থেকে আগত অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে। অভিযোগ ছি‌ল, তারা বেআইনি ভাবে আসামে বসবাস করছেন।’

সেই আসাম চুক্তির কথা মনে করিয়ে দিয়ে মমতা বলেন, ‘বাংলা বা দেশের আর কোন জায়গায় এনআরসি হবে না। আসাম চুক্তি অনুযায়ী সেখানে(আসামে) জাতীয় নাগরিকপঞ্জি করা হয়েছে।’

বিজেপি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে অবমাননা করছে অভিযোগ করে মূখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘বাংলায় গণতন্ত্র রয়েছে। কিন্তু দেশের বাকি অংশের মতো এখন তা বিপন্ন। বিজেপি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে অবমাননা করছে।’

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button