জেলার সংবাদ

যৌতুকলোভী স্বামী থেঁতলে দিল গৃহবধূর মুখ

ঢাকা , ১১ জানুয়ারি, (ডেইলি টাইমস২৪):

হবিগঞ্জের মাধবপুরে যৌতুকের জন্য এক গৃহবধূকে ঘরে আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়েছে। নির্যাতনে গৃহবধূর চেহারা থেঁতলে গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নির্যাতিত গৃহবধূকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রেরণ করে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বৈষ্ণবপুর গ্রামে।

গৃহবধু ফারজানার ভাই শাহাদাত হোসেন নয়ন বাদী হয়ে নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী শফিকুল ইসলাম বাবুলকে প্রধান আসামি করে মাধবপুর থানায় শনিবার সকালে একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার দেবপুর গ্রামের ইয়াকুব আলীর মেয়ে ফারজানা আক্তার হ্যাপিকে ২০১৪ সালের ১৩ জুলাই বিয়ে দেওয়া হয় উপজেলার বৈষ্ণবপুর গ্রামের মৃত ইমতিয়াজ আলীর ছেলে শফিকুল ইসলাম বাবুলের সঙ্গে। বিয়ের সময় যৌতুক বাবদ নগদ সাড়ে ৩ লাখ টাকাসহ ৫ লাখ টাকার মালামাল দেওয়া হয়। বিয়ের ২ বছর পর বিদেশ যেতে শফিকুল ইসলাম বাবু ফারজানার পরিবারের নিকট ৩ লাখ টাকা দাবি করেন। মেয়ের সুখের দিক চিন্তা করে ফারজানার পরিবার ৩ লাখ টাকা দিয়ে তাকে বিদেশ পাঠায়। বছর তিনেক বাবুল বিদেশ থেকে দেশে চলে আসে। বিদেশ থেকে আসার পর বাবুল বেকার হয়ে গেলে আবার ফারজানাকে তার বাবার বাড়ি থেকে টাকা আনতে চাপ দেয়। টাকা না দিতে পারায় গত শুক্রবার ফারজানাকে তার স্বামী বাবুল ঘরে আটক রেখে অমানুষিক নির্যাতন করে। এতে ফারজানার মুখ থেঁতলে যায়। চোখের নিচে কালো ফোসকা পড়ে।

খবর পেয়ে ফারজানার ভাই মাধবপুর থানা পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ফারজানার শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে গৃহবধূ ফারজানাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রেরণ করে।

মাধবপুর থানার ওসি ইকবাল হোসেন জানান, এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি। আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button
Close