জেলার সংবাদ

ঘূর্ণিঝড় আম্ফান: ভোলা সংলগ্ন মেঘনা তেতুলিয়া নদী উত্তাল

ঢাকা , ২০ মে, (ডেইলি টাইমস২৪):

ঘূর্ণিঝড় আম্ফান এর প্রভাবে ভোলা সংলগ্ন মেঘনা তেতুলিয়া নদী উত্তাল রয়েছে । পানির উচ্চতা বেড়েছে কয়েক ফুট। অতিরিক্ত জোয়ারে জেলার নিম্নাঞ্চল কয়েক ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে ।

এছাড়া মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে পুরো জেলায় দমকা বাতাসসহ বৃষ্টিপাত হচ্ছে । জেলার বিচ্ছিন্ন ২১ চরের মানুষদের নিকটবর্তী আশ্রয় কেন্দ্রে আনা হয়েছে। তাছাড়া মূল ভূখণ্ডের সাধারণ মানুষ ও আশ্রয় কেন্দ্রে আসতে শুরু করেছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্রয় কেন্দ্রে আসা মানুষদের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভোলা জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম সিদ্দিক আশ্রয় কেন্দ্র সমূহ পরিদর্শন করেছেন।

প্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাবে ভোলায় ১০ নং সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় ভোলা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ১১’শ চারটি সাইক্লোন শেল্টার খোলা রয়েছে। পাশাপাশি ৯২ টি মেডিক্যাল টিম প্রস্তুত রয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় সতর্কতামূলক প্রচারণা চালাচ্ছে সিপিপি সদস্যরা।

উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে নৌ বাহিনী, নৌ পুলিশ, জেলা পুলিশ ও কোস্ট গার্ড এ সকল মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে আসতে সহায়তা করা হচ্ছে। একই সাথে সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নেয়া মানুষের সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য অতিরিক্ত ৪০০টিসহ সর্বমোট ১১০৪টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়েছে।

ভোলার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক জানান, ঘূর্ণিঝড়ে সবাইকে সতর্ক করার পাশাপাশি নিরাপদে আসতে সিপিপি ও রেডক্রিসেন্টের ১০ হাজার ২০০ সেচ্ছাসেবী কাজ করছে। এছাড়াও আশ্রয় কেন্দ্রে মানুষদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা ছাড়াও নগদ টাকা, শুকনো খাবার ও শিশু খাবার বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়ের আগে, ঘূর্ণিঝড়ের সময় ও ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী এ তিনটি ধাপেই কাজ করার জন্য সকল প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button
Close