জেলার সংবাদ

ভাঙ্গায় গৃহবধুকে অমানষিক নির্যাতনে বাড়ি ছাড়া করল পাষন্ড স্বামী

ঢাকা , ০৩ আগস্ট,(ডেইলি টাইমস২৪): ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার কাওলীবেড়া ইউনিয়নের মাইঝাইল গ্রামের আতাউর রহমানের মেয়ে লতা আক্তার(২৬)কে অমানষিক নির্যাতনের পর বাড়ি ছাড়া করল পাষন্ড স্বামী । যৌতুক লোভী স্বামী হেলাল শেখ ও তার পরিবারের সদস্যদের হাতে মানষিক ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়ে অসহ্য যন্ত্রনা নিয়ে সে এখন অনেকটাই বাকরুদ্ব। খবর পেয়ে মেয়েটির পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্বার করে প্রথমে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি কর্।ে পরে অবস্থার অবনতি হলে শনিবার সকালে তাকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বেদম প্রহারে মেয়েটির একটি চোখ নষ্ট হয়ে যেতে পারে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে,প্রায় ২ বছর আগে জেলার নগরকান্দা উপজেলার ডাঙ্গী বাঙ্গাল কান্দা গ্রামের রুস্তম শেখের ছেলে হেলাল শেখের সাথে পারিবারিকভাবে লতা আক্তারের বিবাহ হয়। বিয়ের কিছািদনের মধ্যেই স্বামী হেলাল শেখের আসল রহস্য বেরিয়ে আসে। প্রতিনিয়ত যৌতুকের দাবীতে স্বামী ও পবিারের সদস্যরা মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন শুরু করে। স্বামী এক সময় ষ¦াভাবিক পথে ফিরে আসবে এই আশায় দিন গুনতে থাকে। এরই মধ্যে জন্ম নেয় তাদের একটি কন্যা সন্তান। কিন্ত অত্যাচারের মাত্রা কমাতো দূরের কথা পর্যায়ক্রমে তার প্রতি অত্যাচার-নির্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। এদিকে মেয়ের সুখের আশায় লতার বাবা আতাউর রহমান যৌতুক লোভী হেলাল ও তার পরিবারের দাবী মেটাতে কয়েকবারই যৌতুকের বেশ কিছু দাবী পরিশোধ করলেও একবারের জন্যও মন গলেনি। বরং নির্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে যায় । এক পর্যায়ে গত বহস্পতিবার লতাকে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে। তাকে উদ্বারের পর প্রথমে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে শন্বিার ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ঢাকা , ০৩ আগস্ট,(ডেইলি টাইমস২৪) /আর এ কে

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button