জাতীয়প্রধান সংবাদ

গাজীপুরে পোশাক শিল্প শ্রমিক রিতুর ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী

ঢাকা, ২৭ অক্টোবর(ডেইলি টাইমস২৪): জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গার্মেন্টস শ্রমিক ও শিল্প রক্ষা জাতীয় মঞ্চ এবং বাংলাদেশ শ্রম অধিকার ফোরাম এর যৌথ আয়োজনে গাজীপুর জেলার কাশিমপুর থানার হাজী বাড়ির মতিন গেট এলাকায় ড্রীম নীটওয়্যার লিঃ এর পোশাক শিল্প শ্রমিক রিতুর ধর্ষকদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বাংলাদেশ শ্রম অধিকার ফোরামের সভাপতি শ্রমিক নেতা আবুল হোসাইনের সভাপতিত্বে ও মাদারল্যান্ড গার্মেন্টস ওয়ার্কাস ফেডারেশনের সভানেত্রী সালেহা ইসলাম সান্তনার পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ শ্রম অধিকার ফোরামের সদস্য সচিব জাকির হোসেন, বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কমরেড বদরুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ ইকবাল খান, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সভাপতি বাহারানে সুলতান বাহার, রেডিমেড গার্মেন্টস ফেডারেশনের সভানেত্রী লাভলী ইয়াসমীন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস এন্ড শিল্প শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি রফিকুল ইসলাম সুজন, সুমাইয়া ইসলাম, জাহাঙ্গীর হোসেন, রিতু সহকর্মী ও প্রত্যক্ষদর্শী উজ্জল, টেক্সটাইল গার্মেন্টস ওয়ার্কাস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক তপন সাহা, বাংলাদেশ গার্মেন্টস টেক্সটাইল ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সভানেত্রী শামীম আরা শিরিন, মাদারল্যান্ড গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আল-আমিন, গার্মেন্টস টেইলার্স ওয়ার্কার্স লীগের শ্রমিক নেতা রকিবুল ইসলাম, বাংলাদেশ কিষাণী সভার নেত্রী রেহেনা বেগম প্রমূখ।

এ সময় বক্তারা বলেন, ২১ অক্টোবর দিবাগত রাতে ড্রীম নীটওয়্যার লিঃএর পোশাক শিল্প শ্রমিক রিতু সহকর্মী উজ্জ্বলকে সাথে নিয়ে কাজ শেষে বাসায় ফেরা পথে কাশিমপুর হাজী বাড়ির মতিন গেট এলাকায় পৌছিলে ৫ দুর্বৃত্ত গতিরোধ করে। পরে ২ জন দুর্বৃত্ত উজ্জ্বলকে আটকিয়ে রাখে এবং ৩ দুর্বৃত্ত রিতুকে দুরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষন করে। নেতৃবৃন্দ রিতুর উপর মধ্যযুগীয় পৈশাচিক ধর্ষনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে ধর্ষকদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেন।

নেতৃবৃন্দ গার্মেন্টস শ্রমিকদের নিরাপত্তার প্রশ্ন তুলে, পোশাক শিল্প ক্ষেত্রে এ ধরনের হীন ও বর্বরোচিত ঘটনার উত্তরোত্তর বৃদ্ধিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন। পোশাক শিল্প ক্ষেত্রে আইএলও কনভেনশন ১৮৯ ও ১৯০ অনুসমর্থনের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

উল্লেখ্য এ ব্যাপারে কাশিমপুর থানার গার্মেন্টস মালিক ও শ্রমিক নেত্রী সালেহা ইসলাম সান্তনার প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় থানায় মামলায় হয় এবং রাতে ও সকালে পুলিশ ৫ আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। কিন্তু গত ২৩ অক্টোবর কাশিমপুর থানার পুলিশ প্রধান আসামী মাওলানা আক্তার ও এমারতকে ছেড়ে দেন। আরো শোনা যাচ্ছে যে, পুলিশ ভুক্তভোগী রিতুকে দ্রুত মেডিকেল পরীক্ষা করার জন্য হাসপাতালে না পাঠিয়ে ৫ দিন পর্যন্ত থানা হেফাজতে রেখে সময়ক্ষেপণ করে এবং আলামত নষ্ট করেন। রিতু অভিযোগ করেন, পুলিশ গত ৫ দিন থানায় হেফাজতে রেখে মানসিকসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করছে।

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button