uncategorized

মুজিব বর্ষে পাইকগাছায় ২২০ ভূমিহীন পরিবার জমি সহ ঘরের মালিক হলেন

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ
মুজিব বর্ষে জমি সহ রঙিন ঘরের আজীবন মালিকানা হলেন পাইকগাছার ২২০ ভূমিহীন পরিবার। শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক নবনির্মিত গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে এলাকার ২২০ গৃহ ও ভূমিহীন পরিবার ২ শতক জমি সহ নান্দনিক ডিজাইনের বাড়ি পান। এ উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার, আলোচনা সভা ও দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবাল মন্টু, মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আরাফাতুল আলম। উপস্থিত ছিলেন, ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস, কওছার আলী জোয়াদ্দার, রিপন কুমার মন্ডল, কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন, আবু জাফর সিদ্দিকী রাজু, এসএম এনামুল হক, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম রেজায়েত আলী ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইমরুল কায়েস সহ সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে অতিথিবৃন্দ আলোকদ্বীপ এলাকার আবাসন প্রকল্পে যান এবং এখানকার উপকারভোগীদের মাঝে জমি সহ নতুন ঘরের দলিল হস্তান্তর করেন। পরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রুহের মাগফিরাত ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ূ কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। উল্লেখ্য, মুজিব বর্ষে দেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন ঘোষণার আলোকে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রায়ণ প্রকল্প-২ (ক) শ্রেণি এর আওতায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের তত্বাবধায়নে উপজেলার ৫টি ইউনিয়নে এলাকার দুস্থ, অসহায়, অস্বচ্ছল, গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারের জন্য ২২০টি ঘর নির্মাণ করা হয়। প্রতিটি ঘরের অনুকূলে নির্মাণ খরচ হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এমপি আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু বলেন, দেশের গৃহহীন মানুষদের জমি সহ ঘর তৈরী করে দিয়ে উন্নত জীবন-যাপন ও বসবাসের সু-ব্যবস্থা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। মুজিব বর্ষে এ ধরণের মানবিক ও ঐতিহাসিক কাজে নিজেদের সম্পৃক্ত করতে পেরে ধন্য মনে করছি বলে মন্তব্য করেন ইউএনও এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী।
পাইকগাছায় এবার গ্রাম পুলিশ নিয়োগে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করলেন ইউএনও
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধিঃ
পাইকগাছায় শিক্ষকের পর এবার গ্রাম পুলিশ নিয়োগে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী। শনিবার শারিরীক ফিটনেস, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে গ্রাম পুলিশ নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়।
উল্লেখ্য, অত্র উপজেলায় ২০ জন গ্রাম পুলিশের পদ দীর্ঘদিন শূন্য ছিল। ফলে গ্রামের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ও ইউনিয়ন পরিষদের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়। যার ফলে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সহ এলাকাবাসী গ্রাম পুলিশের শূন্য পদে নিয়োগের দাবী জানিয়ে আসছিল। বিষয়টি উপজেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় উত্থাপিত হলে দ্রুত সময়ের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী শূন্য পদে দরখাস্ত আহ্বান করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। যার নিয়োগ পরীক্ষা ছিল শনিবার। যাচাই বাছাই শেষে ২০ শূন্য পদে ৬২জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করেন। নিয়োগে কোন প্রকার অনিয়ম না হয় এবং শতভাগ স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে থানার ওসি, মেডিকেল কর্মকর্তা, আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞ ও দক্ষ কর্মকর্তাদের মাধ্যমে প্রার্থীদের শারিরীক ফিটনেস, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা সম্পন্ন করে গ্রাম পুলিশ নিয়োগে শতভাগ স্বচ্ছতা নিশ্চিত করেন। এর আগেও তিনি একাধিক শিক্ষক নিয়োগে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে ভূয়সী প্রশংসিত হন। অন্যান্য নিয়োগের ক্ষেত্রে এ ধরণের নিয়োগ প্রক্রিয়া অনুকরণীয় হতে পারে বলে মন্তব্য করেন অনেকেই। আগামীতেও এলাকার প্রতিটি নিয়োগের ক্ষেত্রে এভাবে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা গেলে প্রকৃত যোগ্য ও মেধাবীরা মূল্যায়িত হবেন বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।

প্রেরকঃ
আমিনুল ইসলাম বজলু
পাইকগাছা (খুলনা)
মোবাঃ ০১৭১৩-৯০০৯৮২
ঊসধরষ:নধুষঁ.শযঁষহধ@মসধরষ.পড়স

 

Show More

আরো সংবাদ...

Back to top button